এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > মুকুল রায়ের সঙ্গে শাসকদলের বিধায়কের স্বামীর ‘সৌজন্য সাক্ষাৎ’ ঘিরে জল্পনা চরমে

মুকুল রায়ের সঙ্গে শাসকদলের বিধায়কের স্বামীর ‘সৌজন্য সাক্ষাৎ’ ঘিরে জল্পনা চরমে



তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়ার পর মুকুল রায়ের হাত ধরে শাসকদলের নিচুতলার কর্মীরা হাতে পদ্ম-পতাকা তুলে নিলেও সেই অর্থে কোনো বড় মাপের নেতা-বিধায়ক-সাংসদ এখনো তৃণমূল কংগ্রেস ছেড়ে বিজেপিতে যোগদান করেননি। যদিও মুকুলবাবু নিজে দাবি করেছেন, সে সময় এখনো আসেনি, সময় এলেই দেখতে পাবেন কিভাবে ভাঙছে শাসকশিবির। কিন্তু আগামী বছর হতে চলা পঞ্চায়েত ভোটকে পাখির চোখ করে মুকুল রায়ের নেতৃত্ত্বে বিজেপির রাজ্যের শীর্ষ নেতৃত্ত্ব বর্তমানে উত্তরবঙ্গে জন-জাগরণ যাত্রা করছেন। যেখানে মূল লক্ষ্য শাসক শিবির বা বামফ্রন্ট-কংগ্রেস থেকে নেতা কর্মীদের বিজেপিতে যোগদান করানো।
কিন্তু এর মাঝেই তাত্‍পর্যপূর্ণ ভাবে মুকুল রায়ের সঙ্গে দেখা করেন ধূপগুড়ির তৃণমূল বিধায়ক মিতালি রায়ের স্বামী সত্যজিত্‍ চট্টোপাধ্যায়। তাঁর সঙ্গে ছিল বিধায়ক কন্যাও। যদিও পরবর্তীকালে মুকুল রায়ের তাঁর সাক্ষাৎকে ‘পূর্ব পরিচিতির জেরে সৌজন্য সাক্ষাৎ’ বলে বর্ণনা করেছে সত্যজিত্‍বাবু নিজে। কিন্তু যেখানে মুকুল রায়ের সঙ্গে সামান্য ঘনিষ্ঠতা থাকলেই দলের শীর্ষ নেতৃত্ত্বের প্রশ্নের মুখে পড়তে হচ্ছে, সেখানে সব আড় ভেঙে এইভাবে প্রকাশ্যে ‘সৌজন্য সাক্ষাৎ’ করে তীব্র গুঞ্জন শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। পরবর্তীকালে মুকুলবাবু ধূপগুড়িতে দাঁড়িয়ে বলেন, তৃণমূল যারা এখনও করেন, তাঁদের বোঝা উচিত তাঁরা যে চিন্তা ভাবনা নিয়ে যে নীতি আদর্শ নিয়ে তৃণমূল করতে এসেছিলেন তা কি বজায় আছে? তাঁরা এখন এই পিসি ভাইপোর প্রাইভেট লিমিটেড কোম্পানিতে দাসত্ব ছাড়া আর কী পাচ্ছেন? ধূপগুড়ি বরাবরই আমার পয়া এলাকা। আগামীদিনে এই এলাকার প্রায় সমস্ত পুরানো ও সত্যিকারের তৃণমূল কর্মীরাই বিজেপিতে আসছেন। অনেকেই এ পর্যন্ত মনেপ্রাণে চলে এসেছেন, শুধু শরীরটা ওদিকে পড়ে আছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!