এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > রাজ্যের প্রাক্তন প্রভাবশালী তৃণমূল মন্ত্রী এবার বিজেপির পথে? জল্পনা বাড়ালেন হেভিওয়েট সাংসদ

রাজ্যের প্রাক্তন প্রভাবশালী তৃণমূল মন্ত্রী এবার বিজেপির পথে? জল্পনা বাড়ালেন হেভিওয়েট সাংসদ



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – করোনা আবহে মাঝে কিছুদিন বাংলায় রাজনৈতিক কার্যকলাপ থমকে ছিল। কিন্তু, আনলক-১ পর্ব শুরু হতেই, নতুন করে রাজনৈতিক গতিবিধি বৃদ্ধি পেয়েছে। বিশেষ করে, যেখানে বিধানসভা নির্বাচনের আর ১ বছরও বাকি নেই, সেখানে সম্ভাব্য দুই প্রধান প্রতিপক্ষ তৃণমূল কংগ্রেস ও ভারতীয় জনতা পার্টি পূর্ণোদ্যমে ময়দানে নেমে পড়েছে। আর এইসবের মাঝেই এবার সামনে এল বড়সড় জল্পনা। বিজেপির বিষ্ণুপুরের সাংসদ সৌমিত্র খাঁ আজ এক সাংবাদিক বৈঠকে বড়সড় জল্পনা বাড়ালেন।

এদিন বিজেপির রাজ্য যুব সভাপতি সৌমিত্র খাঁ এক সাংবাদিক বৈঠকে নাম না করে জানান, তাঁর জেলায় রাজ্যের এক প্রাক্তন তৃণমূল কংগ্রেসের মন্ত্রী নাকি বিজেপিতে যোগদান করতে ইচ্ছুক। শীর্ষ নেতৃত্বের সবুজ সঙ্কেত পেলেই নাকি সেই যোগদান হতে পারে। সৌমিত্রবাবু এদিন জানান, তাঁর স্থানীয় এলাকা কোতুলপুরে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর মধ্যে ‘বিশাল মারপিট’ হয়েছে। তারফলে, একটি ‘টীম’ বিজেপিতে যোগদান করতে চেয়ে তাঁকে ফোন করেছে। তার মধ্যে তৃণমূলের দুই প্রভাবশালী নেতা আছেন, যাঁদের মধ্যে একজন রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

কিন্তু, যেহেতু সৌমিত্রবাবু কোনো নাম নেন নি, তাই জল্পনা চরমে উঠছে কার কথা তিনি বলতে চাইছেন। রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে, সৌমিত্রবাবুর ইঙ্গিত অনুযায়ী এই তৃণমূল নেতা হতে পারেন – শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়। কেননা, সম্প্রতি বাঁকুড়া জেলা তৃণমূল কংগ্রেস সভাপতি শুভাশিস বটব্যাল তিন তৃণমূল নেতাকে ‘দুর্নীতির দায়ে’ শোকজ করেন। যার মধ্যে ছিল বিষ্ণুপুর পৌরসভার বর্তমান পৌরপ্রধান তথা প্রশাসক শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায়ের নামও। স্বাভাবিকভাবেই, রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী সহ তিন হেভিওয়েট নেতাকে এভাবে জেলা তৃণমূল নেতৃত্বের পক্ষ থেকে শোকজের চিঠি ধরানোয় তীব্র চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়েছিল।

এদিকে, রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শ্যামাপ্রসাদ মুখোপাধ্যায় বিরুদ্ধে যেভাবে শোকজের চিঠি এল, তাতে তিনি রীতিমত উষ্মা প্রকাশ করেছিলেন। সেদিনই তিনি জেলা সভাপতি শুভাশিস বটব্যালের বিরুদ্ধে ক্ষোভ উগরে দিয়ে বলেন, “মুখ্যমন্ত্রীর লড়াইকে সামনে রেখে সমস্ত বিষ্ণুপুরবাসীকে সাহায্য করেছি। জেলা সভাপতি কি করছেন, সেটা আগে জানান।” আর শ্যামাপ্রসাদবাবুর এহেন মন্তব্যের পর থেকেই তাঁর ‘অভিমান’ নিয়ে জল্পনা চড়ছিল বাঁকুড়ার রাজনৈতিক মহলে। আর আজ যেভাবে সৌমিত্র খাঁ ‘প্রাক্তন মন্ত্রীর’ কথা বললেন, তাতে সেই জল্পনা আরও গতি পেল। যদিও এই নিয়ে সরকারিভাবে মুখ খোলেননি কেউই।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!