এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > গদি যাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ মন্ত্রীর? জল্পনা চরমে

গদি যাচ্ছে মুখ্যমন্ত্রী ঘনিষ্ঠ মন্ত্রীর? জল্পনা চরমে

Priyo Bandhu Media


২০১৬ বিধানসভা নির্বাচনে গোটা উত্তরবঙ্গ জুড়ে শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেস দুর্দান্ত ফল করে আর এর বাহবা যায় উত্তরবঙ্গের অন্যতম দাপুটে নেতা রবীন্দ্রনাথ ঘোষের। ভালো কাজের পুরস্কারও জোটে তাঁর কপালে, মুখ্যমন্ত্রীর অন্যতম ‘ফেভারিট’ নেতা গৌতম দেবকে সরিয়ে তাঁকেই উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন মন্ত্রী করেন দলনেত্রী। কিন্তু কিছুদিন আগেই দুর্নীতি নিয়ে প্রাক্তন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে মুখ খোলেন রবীন্দ্রনাথবাবু, হাতে ‘অস্ত্র’ পায় বিরোধীরা। তাঁর অভিযোগের সূত্র ধরেই প্রদীপ ভট্টাচার্য বা অশোক ভট্টাচার্যের মত বিরোধী হেভিওয়েটরা দুর্নীতির প্রশ্নে গৌতমবাবুর পাশাপাশি শাসকদলকেও বিঁধতে থাকেন। আর এই ঘটনা যে ভালোভাবে নেয়নি শাসকদলের শীর্ষনেতৃত্ত্ব তা বোঝা যায়, যখন ‘হঠাৎ’ করে নিজের ‘বিদ্রোহী’ ভাবমূর্তি ঝেড়ে ফেলে ‘সুর’ পাল্টে ফেলেন মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ।

এবার বিজেপি ছেড়ে তৃণমূলে যোগ চারশো কর্মীর

কিন্তু ‘ছন্দটা’ যে কোথাও কেটে গেছে স্বয়ং মুখ্যমন্ত্রীর কথাতেই তা আবার পরিস্ফুটিত হয়ে উঠল। গতকাল উত্তরবঙ্গ উৎসবের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানে মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় কথা বলছেন, সেই সময় দেখা যায় মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষ সতীর্থ মন্ত্রী বাচ্চু হাঁসদার সঙ্গে কথা বলতে ব্যস্ত। হঠাৎ করে মুখ্যমন্ত্রী প্রশ্ন ছুঁড়ে দেন, রবি শুনছ তো? মন্ত্রীর তখন রীতিমত থতমত মুখ। কিন্তু মুখ্যমন্ত্রী তাঁর অস্বস্তি আরো বাড়িয়ে বলেন, উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন দফতর উত্তরবঙ্গ উৎসবের আয়োজন করে। রবি যদি কনটিনিউ করে (রবীন্দ্রনাথবাবু যদি মন্ত্রী থাকেন) তবে পরের বার ও আয়োজন করবে, না হলে অন্য কেউ করবে। আর যদি পর্যটন দফতর উৎসবের আয়োজন করে, তবে ওরা সে সব পরিকল্পনা করবে। আর এই কথা প্রকাশ্যে বলার সাথেসাথেই জল্পনা শুরু হয়ে যায় উপস্থিত সাংবাদিক মহলে, তাহলে কি এবার মন্ত্রীত্ত্ব হারাতে চলেছেন রবীন্দ্রনাথবাবু? নিদেনপক্ষে ক্ষমতা খর্ব হতে চলেছে?
সাংবাদিকদের গুঞ্জনটা ধরতে দেরি হয় নি বিচক্ষণ নেত্রীর।

নাবান্নর নির্দেশিকায় বড়সড় পরিবর্তন আমলা মহলে

সামাল দিয়ে তিনি তখন বলেছেন, আপনারা আবার লিখতে যাবেন না যে মুখ্যমন্ত্রী রবিকে বকুনি দিলেন, আমি মোটেই বকা দিইনি। রবি-বাচ্চু কথা বলছিল, এটা বড় বিষয় নয়। ওরা মন্ত্রী, ওঁদেরই তো সব আয়োজন করতে হয়, তাই নানা কথা বলতেই পারে। কিন্তু ততক্ষনে জল্পনা চরমে পৌঁছে গেছে, মুখ্যমন্ত্রীর কথার রেশ ধরেই রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা এখন তাকিয়ে কি হতে চলেছে মন্ত্রী রবীন্দ্রনাথ ঘোষের ভাগ্যে। ক্ষমতা যাচ্ছে তাঁর নাকি মুখ্যমন্ত্রী তাঁর স্নেহের দৃষ্টি দিয়ে এবারের মত তাঁর প্রাক্তন মন্ত্রীর বিরুদ্ধে বিষেদাগার করে দলকে বিড়ম্বনায় ফেলার ব্যাপারটা মেনে নিচ্ছেন?

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!