এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > বিজেপি ‘ছেড়ে’ কংগ্রেসের পথে বলিউডি মহাতারকা? জল্পনা তুঙ্গে

বিজেপি ‘ছেড়ে’ কংগ্রেসের পথে বলিউডি মহাতারকা? জল্পনা তুঙ্গে



অমিতাভ বচ্চন – নামটাই যথেষ্ট। তাঁর অভিনয়ের জন্য একডাকে তাঁকে চেনে আসমুদ্রহিমাচল। অভিনয় থেকে সাময়িক বিরতি নিয়ে ১৯৮৪ সালে কংগ্রেসের টিকটে তিনি এলাহাবাদ কেন্দ্র থেকে জিতে সংসদে পা রাখেন বন্ধু রাজীব গান্ধীর অনুরোধে। কিন্তু বছর তিনেকের মধ্যেই রাজনীতিতে তাঁর মোহভঙ্গ হয়, সেই যে রাজনীতির দুনিয়াকে বিদায় জানালেন, প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে আর তাঁর দেখা মেলেনি। যদিও আমার সিংহের কল্যানে বচ্চন পরিবারের সঙ্গে সমাজবাদী পার্টির ঘনিষ্ঠতা বাড়ে, সমাজবাদী পার্টির টিকিটে তিন-তিনবার রাজ্যসভার সাংসদ হন অমিতাভ-পত্নী জয়া বচ্চন।

অন্যদিকে, বিজেপি শাসিত গুজরাতের ব্র্যান্ড আম্বাসাডর তিনি। এমনকি কেন্দ্রে বিজেপি ক্ষমতায় আসার পর নরেন্দ্র মোদীর কেন্দ্রীয় বহু প্রকল্পের বিজ্ঞাপনেও দেখা যায় তাঁকে। তাই প্রত্যক্ষ রাজনীতিতে তিনি জড়িত না থাকলেও বর্তমানে তিনি বিজেপি ঘনিষ্ঠ বলেই পরিচিত। কিন্তু সেই অমিতাভ বচ্চনই হঠাৎ করে রাহুল গান্ধী কংগ্রেস সভাপতি হওয়ার পর একযোগে তাঁর অফিসিয়াল ট্যুইটারে কংগ্রেস নেতাদের ফলো করতে শুরু করেন। এর আগে প্রথম সারির রাজনৈতিক নেতাদের মধ্যে লালুপ্রসাদ যাদব, নীতীশ কুমার, সুরেশ প্রভু ও নীতীন গড়করিকে তিনি ফলো করতেন। কিন্তু হঠাৎ করেই তিনি কপিল সিব্বাল, আহমেদ প্যটেল, অশোক গেহলোট, জ্যোতিরাদিত্য সিন্ধিয়া, সচিন পাইলট, পি চিদাম্বরম, অজয় মাকেনের মতো প্রথম সারির কংগ্রেস নেতাদের ট্যুইটারে ফলো করতে শুরু করেছেন। এমনকি বাদ যাননি সঞ্জয় নিরুপম, মণীশ তিওয়ারি, সঞ্জয় ঝায়ের মতো কংগ্রেসি নেতারাও। আর এরফলে কংগ্রেস নেতারাও তাঁকে অভিনন্দন জানিয়েছেন। এমনিতেই রজনীকান্ত ও কমল হাসানদের মতো তারকারা সরাসরি রাজনীতিতে যোগ দিয়েছেন, তার মাঝে অমিতাভ বচ্চনের এইভাবে কংগ্রেসে নেতাদের প্রতি ‘প্রীতি-প্রদর্শন’ নতুন করে জল্পনা উস্কে দিচ্ছে। রাজনৈতিক মহলে বর্তমানে চর্চার বিষয় তাহলে কি নরেন্দ্র মোদীর ঘরের ছেলে এবার কংগ্রেসের ‘ব্যাটন’ হাতে তুলে নেবেন? যদিও এই নিয়ে অমিতাভ বচ্চনের নিজের বা কংগ্রেসের তরফে কোনো সরকারি প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়নি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!