এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > সামনে এল চাঞ্চল্যকর দাবি, উল্টে যাবে বিজেপি সরকার?

সামনে এল চাঞ্চল্যকর দাবি, উল্টে যাবে বিজেপি সরকার?

Priyo Bandhu Media


মাত্র দুদিন আগেই নির্বাচন কমিশনের দাবিকে মান্যতা দিয়ে ‘লাভজনক পদ’ বিতর্কে দিল্লি বিধানসভা থেকে ২০ জন আম আদমি পার্টির বিধায়ককে বরখাস্ত করেছেন রাষ্ট্রপতি রামনাথ কোবিন্দ। ফলে দিল্লিতে আসন্ন ‘মিনি বিধানসভা’ নির্বাচন। আর এবার সেই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে চাঞ্চল্যকর দাবি করে বসল আম আদমি পার্টি, তাদের দাবি ‘লাভজনক পদ’ বিতর্কে যদি তাদের বিধায়কদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হয়, তাহলে সেই একই ‘দোষে দুষ্ট’ মধ্যপ্রদেশের ১১৬ জন বিজেপি বিধায়কের বিরুদ্ধেও এবার একইরকম ব্যবস্থা নিক নির্বাচন কমিশন। প্রসঙ্গত, আম আদমি পার্টির বা আপের এই দাবি কিন্তু নতুন নয়, দিল্লির অনেক আগেই মধ্যপ্রদেশ নিয়ে এই অভিযোগ সামনে এনেছিল তারা। ২০১৬ সালের ৪ জুলাই ১১৬ জন বিজেপি বিধায়কের বরখাস্তের দাবি করে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয়েছিল আপ। কিন্তু নির্বাচন কমিশন কোনও ব্যবস্থা তো নেয়নি বলে অভিযোগ তাদের। কিন্তু বর্তমানে তাদের ২০ জন বিধায়ক বরখাস্ত হওয়ায় নতুন করে কমিশনের উপর চাপ বাড়াচ্ছে তারা। আর আপের দাবি মেনে যদি সত্যিই বরখাস্ত করা হয় ওই ১১৬ জন বিধায়ককে, তাহলে মধ্যপ্রদেশের বিজেপি সরকারের পতন হবে বলে মনে করা হচ্ছে।

আপের তরফে ‘তথ্য’ দিয়ে দাবি জানানো হয়েছে যে, ওই ১১৬ জন বিধায়কদের প্রায় সবাই কলেজের জন ভাগদারি সমিতির সদস্য। যা ‘লাভজনক পদের’ অধীন, কেননা অভিযুক্ত বিধায়কদের কোনও বেতন না দেওয়া হলেও, কলেজগুলি থেকে তাঁরা ভ্রমণ ভাতা পেয়ে থাকেন বলেন অরবিন্দ কেজরিওয়ালের দল দাবি করেছেন। এমনকি ওই ১১৬ জন বিধায়কের মধ্যে দুই মন্ত্রী পরশ জৈন এবং দীপক যোশীও ইন্ডিয়ান স্কাউট অ্যান্ড গাইড-এ যুক্ত থেকে ‘লাভজনক পদ’ বিতর্কে জড়িয়ে পড়েছেন বলে তাদের দাবি। সব থেকে বড় কথা তাদের দাবি অনুযায়ী গত কয়েক বছরে আরও অনেক মন্ত্রী ধীরে ধীরে জড়িয়েছেন এই বিতর্কে। এই প্রসঙ্গে মধ্যপ্রদেশ কংগ্রেসকেও পাশে পেয়েছে আম আদমি পার্টি। যদিও বিজেপির তরফে দাবি করা হয়েছে অভিযুক্ত দুই মন্ত্রী ইন্ডিয়ান স্কাউট অ্যান্ড গাইড থেকে কোনও ভাতাই নেন না। সব মিলিয়ে ‘লাভজনক পদ’ বিতর্কে ক্রমশ সরগরম হচ্ছে জাতীয় রাজনীতি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!