এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > ২০১৯ এ বাংলায় বিজেপির প্রার্থীতালিকায় জুড়তে চলেছে এই দুই হেভিওয়েটরের নাম?

২০১৯ এ বাংলায় বিজেপির প্রার্থীতালিকায় জুড়তে চলেছে এই দুই হেভিওয়েটরের নাম?



কয়েকদিন আগেই আমরা বিভিন্ন সূত্র থেকে প্রাপ্ত তথ্য অনুযায়ী আগামী ২০১৯ এ লোকসভা নির্বাচনে বাংলা থেকে বিজেপির টিকিটে কারা কারা কোন কোন আসন থেকে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করতে পারেন তার একটা সাম্ভাব্য তালিকা দিই। যদিও সেই তালিকা নিয়ে কোনো সরকারি অনুমোদন রাজ্য বিজেপির তরফে পাওয়া যায় নি, কিন্তু বিজেপির সংগঠনের বিভিন্ন স্তরে কান পাতলে সেই নামগুলি জানা যাচ্ছে। আর এবার নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিজেপির এক অন্যতম শীর্ষনেতার সূত্রে পাওয়া গেল আরো দুই হেভিওয়েট প্রার্থীর নাম। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে দেশজুড়ে মোদী-হাওয়ায় অনুপ্রাণিত হয়ে দেশের বিভিন্ন রাজ্যে রাজনৈতিক পরিধির বাইরের অনেক ব্যক্তি বিজেপির টিকিটে লোকসভা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করেন। বাংলাও এই প্রবণতার বাইরে থাকেনি, চমক জাগিয়ে একাধিক সেলিব্রিটি বাংলা থেকে বিজেপির টিকিটে লড়াই করেন, যদিও বাবুল সুপ্রিয় ছাড়া আর কেউই জয়ের মুখ দেখতে পাননি।

আর তারপর থেকেই হঠাৎ করে রাজনৈতিক মঞ্চ থেকে যেন হারিয়ে গিয়েছিলেন এঁরা। কিন্তু পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলের পরিপ্রেক্ষিতে বাংলা জুড়ে বিজেপির প্রতি একটা হাওয়া লক্ষ্য করা যাচ্ছে, আর তারপরেই আশ্চর্যরকম ভাবে এঁদের যাতায়াত হঠাৎ করে বেড়ে গেছে বিজেপির রাজ্য সদর দপ্তরে। আর এরকমই দুই নাম হলো ম্যাজিশিয়ান পি সি সরকার (জুনিয়র) ও অভিনেতা নিমু ভৌমিক। গতবছর রায়গঞ্জ কেন্দ্র থেকে লড়াই করেন অভিনেতা নিমু ভৌমিক, হেরে গেলেও যথেষ্ট বেগ দেন স্বনামধন্য বাকি তিন প্রার্থীকেই। আর তারপরে আক্ষেপ করে জানান, দল যদি তাঁর হয়ে আরেকটু প্রচার করত, তাহলে হয়ত অসাধ্যসাধন করেই ফেলতেন তিনি। অন্যদিকে গতবারে বারাসত লোকসভা থেকে লড়াই করেন ম্যাজিশিয়ান পি সি সরকার (জুনিয়র), তৃণমূল সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদারের কাছে হেরে গেলেও, ওই কেন্দ্রে বিজেপির হয়ে ভালোই লড়াই দিয়েছিলেন তিনি। কিন্তু নির্বাচনে হেরে যেতেই এই দুই সেলিব্রিটিকে আর সেভাবে বিজেপির হয়ে রাজনৈতিক মঞ্চে দেখা যায় নি। নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক ওই নেতার কথায়, সরকারবাবু বা ভৌমিকদের মত হেভিওয়েট সেলিব্রিটি মানুষ যদি আবারো নির্বাচনে লড়তে চান, সেটা তো গুরুত্ত্ব দিয়ে বিবেচনা করতেই হবে। কেননা ২০১৪ সালে দুজনেই খুব ভালো লড়াই দিয়েছিলেন, তবে লোকসভা নির্বাচনের এখনো অনেক দেরি আছে, আর লোকসভার টিকিট নরেন্দ্র মোদী ও অমিত শাহ কেন্দ্রীয় নেতৃত্ত্বের সঙ্গে বসে নিজেরা ঠিক করেন, সুতরাং কি হবে এখনই বলা শক্ত। তবে বাংলায় এবার বিজেপি অসাধারন ফল করতে চলেছে একথা সবাই বুঝেছে, সুতরাং রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ত্বরা তো বটেই, অনেক অরাজনৈতিক সেলিব্রিটি মানুষও আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন এবং বিজেপির রাজনৈতিক লড়াইয়ে শামিল হতে চাইছেন। সুতরাং আগামীদিনে আরো চমক অপেক্ষা করে থাকছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!