এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ব্রেকিং নিউজ – কবে হতে পারে লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট প্রকাশ? কি জানা যাচ্ছে বিভিন্ন সূত্র থেকে?

ব্রেকিং নিউজ – কবে হতে পারে লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট প্রকাশ? কি জানা যাচ্ছে বিভিন্ন সূত্র থেকে?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া এক্সক্লুসিভ – আপামর ভারতবাসীর মনে প্রশ্ন কবে হতে চলেছে লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট প্রকাশ? কেননা সাধারণ অবস্থায় মনে করা হচ্ছিল মার্চের প্রথম তিন দিনের মধ্যেই এই ঘোষণা হয়ে যেতে পারে – কিন্তু প্রতিবেশী দেশের জঙ্গি হামলার পরিপ্রেক্ষিতে দেশে এখন যুদ্ধকালীন পরিস্থিতি তৈরী হয়েছে। ফলে, জল্পনা ছড়িয়েছে সত্যিই যদি পাকিস্তান ভারতের সঙ্গে যুদ্ধ ঘোষণা করে তাহলে স্বাভাবিক নিয়মেই পিছিয়ে যাবে লোকসভা নির্বাচন। কিন্তু, কিছুদিন আগেই জাতীয় নির্বাচন কমিশন জানিয়ে দেয় নির্দিষ্ট সময়েই হবে আগামী লোকসভা নির্বাচন।

এই পরিস্থিতিতে রাজধানীর বুকে জল্পনা ছড়ায় – আগামী লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট প্রকাশ হতে পারে আগামী ১১ ই মার্চ। কিন্তু, বিভিন্ন বিশ্বস্ত সূত্র থেকে যে ইঙ্গিত পাওয়া যাচ্ছে, তাতে স্পষ্ট হচ্ছে অপেক্ষা আর মাঝে একদিনের – কাল বাদ দিয়ে পরশু, অর্থাৎ আগামী ৮ ই মার্চই জাতীয় নির্বাচন কমিশন ঘোষণা করে দিতে পারে দেশের সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচনের নির্ঘন্ট। যদিও, নির্বাচন কমিশন সরকারিভাবে এই নিয়ে মুখ খোলে নি এখনো – কিন্তু, রাজধানীর বুকে বিভিন্ন রাজনৈতিক সূত্র থেকে যে ইঙ্গিত মিলছে তাতে ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে ঘোষণা হতে চলেছে ওই ৮ ই মার্চই। বিভিন্ন রাজনৈতিক নেতার সঙ্গে, যাঁরা আপাতত দিল্লিতে আছেন, কথা বললেও ওই ৮ ই মার্চের ইঙ্গিতটাই ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

ঐদিনই স্পষ্ট হয়ে যেতে পারে কোন রাজ্যে ক দফায় নির্বাচন হতে চলেছে। প্রসঙ্গত, এর আগে হোয়াটস্যাপে কেউ বা কারা উদ্দেশ্যপ্রণোদিত রাজ্যওয়ারি নির্বাচনের দিন ও দফা ঘোষণা করে ছড়িয়ে দেয়। কিন্তু, সেই নির্ঘন্ট সম্পূর্ণ ভুয়ো – ভালো করে লক্ষ্য করলেই বোঝা যাবে, তা আদতে ২০১৪ সালের নির্বাচনী নির্ঘন্ট। সেখানে শুধু সালটা বদলে ২০১৯ করে দেওয়া হয়েছে – ফলে, সেই মেসেজ পেয়ে অনেকেই বিভ্রান্ত হয়ে পড়েন। এমনকি, ওই ঘটনায় এক ওয়েব পোর্টালের মালিককে গ্রেপ্তারও হতে হয়। নির্বাচন কমিশন থেকে এখনও নির্বাচনের দিন ও দফা নিয়ে কোনো নির্দেশিকা প্রকাশিত হয় নি।

তবে, ৮ ই মার্চ নির্বাচন ঘোষণা হলে মনে করা হচ্ছে ভোটগ্রহণ হবে এপ্রিলের শেষ সপ্তাহ থেকে শুরু করে মে মাসের মাঝামাঝি পর্যন্ত চলতে পারে। কেননা, নির্বাচনী নির্ঘন্ট প্রকাশের পর ন্যূনতম ৪৫ দিন দিতে হয় ভোটগ্রহণের জন্য – মাঝের এই সময়টা রাজনৈতিক দলগুলি প্রচার কার্য চালাতে পারবে। আর মে মাসের মাঝামাঝি ভোটগ্রহণ শেষ হয়ে গেলে মে মাসের তৃতীয় বা শেষ সপ্তাহে ভোটগণনা ও ফল ঘোষণা হতে পারে। সেক্ষেত্রে নতুন কেন্দ্রীয় মন্ত্রীসভা জুন মাসের প্রথমেই শপথগ্রহন করতে পারবে। ফলে, আগামী পরশু নির্বাচন কমিশন কি ঘোষণা করে সেদিকেই আপাতত তাকিয়ে সকলে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!