এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > পরিবর্তন না প্রত্যাবর্তন? দিনের শেষে কি বলছে ত্রিপুরা?

পরিবর্তন না প্রত্যাবর্তন? দিনের শেষে কি বলছে ত্রিপুরা?



প্রায় শেষের মুখে ত্রিপুরা বিধানসভা নির্বাচনের ভোটগ্রহণ। সরকারিভাবে বিকেল ৪ টেতেই ভোটগ্রহণ শেষ হয়ে গেলেও কয়েকটি বুথে এখনো চলছে ভোটগ্রহণ। ৬০ আসন বিশিষ্ট ত্রিপুরা বিধানসভায় আজ মোট ৫৯ টি আসনে নির্বাচন হল, ভোটার ঠিক আগেই প্রচার চলাকালীন চড়িলাম বিধানসভা কেন্দ্রের বাম প্রার্থীর আকস্মিক মৃত্যুতে সেখানে ভোটগ্রহণ স্থগিত রাখা হয়, সেখানে নির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে আগামী ১২ মার্চ। বাকি ৫৯ টি আসনের ভোটগণনা হবে আগামী ১ লা মার্চ। আজ ভোটগ্রহণ হয়ে গেলেও, ত্রিপুরার সঙ্গেই ভোটার নির্ঘন্ট প্রকাশিত হয় মেঘালয় ও নাগাল্যান্ডের, সেখানে ভোটগ্রহণ হবে আগামী ২৭ শে ফেব্রুয়ারী, আর তাই নির্বাচন কমিশনের সিদ্ধান্তানুসারে আগামী ২৭ শে ফেব্রুয়ারী পর্যন্ত কোনো সংবাদমাধ্যম এই তিন রাজ্যের নির্বাচনের জন্য কোনো এক্সিট পোল প্রকাশ করতে পারবে না।

এবারের ত্রিপুরা নির্বাচনে লড়াই ছিল প্রত্যাবর্তন বনাম পরিবর্তনের। কিছুদিন আগে পর্যন্ত ত্রিপুরাতে সেভাবে বিজেপির অস্তিত্বই ছিল না, ২০১৩ এর শেষ বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি ভোট পায় ১.৫% এর কাছাকাছি, আর ২০১৪ তে দেশজোড়া প্রবল মোদী হওয়ার মধ্যেও ত্রিপুরাতে বিজেপির প্রাপ্ত ভোট দাঁড়ায় ৫.৫% এর কাছাকাছি। কিন্তু এরপরেই বদলে যেতে থাকে সমস্ত সমীকরণ। বিরোধী কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসকে তছনছ করে ক্রমশ বিরোধী পরিসর দখল করতে থাকে বিজেপি। নির্বাচনের ঠিক আগেই ত্রিপ্রাহা গোষ্ঠীর সঙ্গে জোট ঘোষণা করে বিজেপি। ফলে ত্রিপুরার উপজাতি এলাকায় যে ২০ টি আসন রয়েছে (এরমধ্যে ১৯ টি আসন ছিল বামেদের দখলে), সেখানে তীব্র লড়াইয়ের আবহ তৈরি হয়ে যায়। ত্রিপুরায় ৬০ টি আসনের জন্য মোট ভোটদাতা ২৫ লক্ষ, অর্থাৎ গড়ে প্রায় ৪০-৪৫ হাজার ভোটার এক একটি বিধানসভা আসনে। এরকম ছোট আসনের বিধানসভার হাজার খানেক ভোট এদিক ওদিক হলেই উল্টে যেতে পারে সম্পূর্ণ ফলাফল। কিন্তু আজ ভোটগ্রহণ চলাকালীনই বিভিন্ন বাম বিধায়ক নিশ্চিত করেন ‘প্রত্যাবর্তন’ নিশ্চিত করে অষ্টম বাম সরকার গঠিত হতে চলেছে। অন্যদিকে বিজেপিও দাবী করে ত্রিপুরা জুড়ে পরিবর্তনের প্রবল হাওয়া বইছে আর তাই এবার ত্রিপুরায় সরকার গড়তে চলেছে তারাই। এই লড়াইয়ে অন্য দুই প্রধান প্রতিদ্বন্দ্বী কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসের সংগঠন নিজেদের দিকে নিয়েই রাজ্যে বিজেপির উত্থান, তাই নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করলেও সেভাবে ‘ভালো ফলের’ আশা করছেন না দুদলের দায়িত্ত্বপ্রাপ্ত নেতারা। আজ সারাদিন ইভিএমের গন্ডগোলের কয়েকটি খবর এবং আগরতলার অভয়নগরে সকালে শূন্যে গুলি চালানোর ঘটনা ছাড়া সারাদিন ভোটগ্রহণ শান্তিপূর্ণই হয়েছে বলে নির্বাচন কমিশনের দাবী। নির্বাচন কমিশন সূত্রেই জানা যাচ্ছে বিকেল ৪ টে পর্যন্ত ত্রিপুরার পরিপ্রেক্ষিতে রেকর্ড সংখ্যক ৭৪% ভোট পড়েছে, এই বেশি ভোট পড়া কিসের ইঙ্গিত তার উত্তর মিলবে আগামী ১ লা মার্চ ইভিএম খুললে। সবমিলিয়ে কি হয় ত্রিপুরার জনমত সেদিকেই এখন তাকিয়ে রাজ্যবাসী।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!