এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > শিবসেনার জোট ভাঙ্গায় মহারাষ্ট্রে সরকারে সঙ্কট? কি বলছে বিজেপি?

শিবসেনার জোট ভাঙ্গায় মহারাষ্ট্রে সরকারে সঙ্কট? কি বলছে বিজেপি?



মুম্বইতে আজ কর্মসমিতির বৈঠকের শেষে শিবসেনা ঘোষণা করল, আগামী ২০১৯ সালের লোকসভা ও বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপির সঙ্গে আর জোট থাকছে না, একাই পথ চলবে তারা। ফলে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা তীব্র সঙ্কটে পড়ে গেল মহারাষ্ট্র সরকার। কেননা ২৮৮ টি আসন বিশিষ্ট মহারাষ্ট্র বিধানসভায় সংখ্যাগরিষ্ঠতা পেতে গেলে ন্যূনতম ১৪৫ টি আসন পেতে হবে। কিন্তু ২০১৪ সালের মহারাষ্ট্র বিধানসভা নির্বাচনে আসন সমঝোতা মনমতো না হওয়ায় শিবসেনা ও বিজেপি আলাদা আলাদা করে লড়াই করেছিল। কিন্তু নির্বাচনের ফলাফল বেরোলে দেখা যায় কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পায় নি। বিজেপি পায় ১২২ টি, শিবসেনা ৬৩ টি, কংগ্রেস ৪২ টি, এনসিপি ৪১ টি ও অন্যান্যরা ২০ টি আসন পায়। আর তাই সরকার গড়ার লক্ষ্যে বৈরিতা ভুলে নির্বাচনোত্তর সমঝোতা গড়ে সরকার গড়ে বিজেপি ও শিবসেনা, তাঁদের সঙ্গ দেন একমাত্র আরএসপি বিধায়কও। বর্তমানে বিশেষ করে বিজেপি বিরোধী তিন বড়দল কংগ্রেস, শিবসেনা ও এনসিপি যদি এক ছাতার তলায় চলে আসার সিদ্ধান্ত নেয়, তাহলে তাদের মিলিত আসন সংখ্যা হবে ১৪৬, যা অনায়াসেই তাদের সংখ্যাগরিষ্ঠতা এনে দেবে।

কিন্তু মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীস স্পষ্ট ভাষায় জানিয়ে দিলেন এনডিএ থেকে শিবসেনার বেরিয়ে আসার ঘোষণার প্রভাব মহারাষ্ট্রের জোট সরকারের ওপর পড়বে না, পুরো সময় ক্ষমতায় থাকবে তাঁর সরকার। বর্তমানে প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর সফরসঙ্গী হয়ে মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী দেবেন্দ্র ফড়নবীস রয়েছেন দাভোসে, সেখানেই সংবাদমাধ্যমকে নিজের প্রতিক্রিয়া দিতে গিয়ে সমস্ত আশঙ্কার কথা উড়িয়ে তিনি জানান, ওরা ওরকম অনেক কথাই বলে, আমাদের জোট এখনো রয়েছে, আমর সরকার তার কার্যকাল পূর্ণ করবে। অন্যদিকে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের ধারণা, এইমুহূর্তে শরদ পাওয়ারের সঙ্গে নরেন্দ্র মোদীর ‘বন্ধুত্ত্ব’ বেশ ‘গাঢ়’। তাই শিবসেনা সমর্থন তুলে নিলেও, এনসিপির সমর্থন নিয়ে সরকার টিকিয়ে ফেলতে পারবে বিজেপি। আর তাই মহারাষ্ট্রের মুখ্যমন্ত্রী পূর্ন সময় ক্ষমতায় থাকার ব্যাপারে এতখানি আত্মবিশ্বাসী বলে মনে করছেন তাঁরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!