এখন পড়ছেন
হোম > বিশেষ খবর > ডিএ নেই সরকারি কর্মীদের, বিধায়কদের ভাতা দ্বিগুন করার তোড়জোড়

ডিএ নেই সরকারি কর্মীদের, বিধায়কদের ভাতা দ্বিগুন করার তোড়জোড়

Priyo Bandhu Media


একদিকে যখন ষষ্ঠ বেতন কমিশন ও বাকি প্রায় ৩৯% ডিএ-র দেখা নেই বলে রাজ্য সরকারি কর্মচারীদের দীর্ঘশ্বাস দীর্ঘায়িত হচ্ছে, তখনই কিছুদিন আগেই হয়ে যাওয়া বেতন বৃদ্ধি সত্ত্বেও সন্তপর্ণে বিধায়কদের আবারো বেতন বৃদ্ধির তোড়জোড় শুরু হল। যা নিয়ে ক্ষোভ শুরু হয়েছে চারিদিকে। প্রস্তাব এসেছে এবার বিধায়কদের দৈনিক ভাতা বাড়িয়ে দ্বিগুণ করতে হবে, আর এই প্রস্তাব কার্যকর হলে বিধায়কদের বেতন দাঁড়াবে ৮০ হাজার টাকার কাছাকাছি। প্রসঙ্গত এ বছরের পয়লা এপ্রিল থেকেই রাজ্যের পূর্ণমন্ত্রী, প্রতিমন্ত্রী এবং বিধায়কদের বেতন বেড়ে হয়েছে –
১. মুখ্যমন্ত্রীর মাসিক বেতন ৮,৫০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ২৭,০০১ টাকা
২. বিধানসভার স্পিকারের বেতন ১১,৭০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ২৭,০০০ টাকা
৩. বিরোধী দলনেতার বেতন ১০,২০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ২২,০০০ টাকা
৪. পূর্ণমন্ত্রীদের বেতন ৭,৫০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ২২,০০০ টাকা
৫. প্রতিমন্ত্রীদের মাসিক বেতন ৭,৩০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ২১,৯০০ টাকা
৬. ডেপুটি স্পিকারের বেতন ১০,৬০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ২১,৯০০ টাকা
৭. বিধায়কদের বেতন ১২,৫০০ টাকা থেকে বেড়ে হয়েছে ১৭,৫০০ টাকা

বেতনের পাশাপাশি সেসময় পাশাপাশি মন্ত্রীদের দৈনিক ভাতাও বাড়ে। ১,০০০ টাকা থেকে বেড়ে মন্ত্রীদের দৈনিক ভাতা হয়েছে ২,০০০ টাকা অর্থাৎ মাসে ৬০,০০০ টাকা। ফলে বেতন ও ভাতা মিলিয়ে মাসে মন্ত্রীদের মোট প্রাপ্য দাঁড়ায় ৮২,০০০-৮৭,০০০ টাকা। কিন্তু, এপ্রিল মাসে মন্ত্রীদের ভাতা বাড়লেও, বিধায়কদের দৈনিক ভাতা বাড়েনি। বিধানসভা সূত্রে দাবি, সম্প্রতি বিধানসভার এনটাইটেলমেন্ট কমিটির বৈঠকে সর্বসম্মতভাবে সুপারিশ করা হয়েছে, পূর্ণমন্ত্রীদের মতো বিধায়কদের দৈনিক ভাতাও ২,০০০ টাকা করা হোক, মানে সবমিলিয়ে মাসে আরো প্রায় ৩০,০০০ টাকা অতিরিক্ত দাবী বিধায়কদের। পদাধিকার বলে বিধানসভার এনটাইটেলমেন্ট কমিটির চেয়ারম্যান বিধানসভার অধ্যক্ষ বিমান বন্দ্যোপাধ্যায়। এছাড়া কমিটিতে রয়েছেন সিপিএম বিধায়ক সুজন চক্রবর্তী, কংগ্রেস বিধায়ক মনোজ চক্রবর্তীরা। অর্থাৎ বিধায়করা নিজেরাই দিব্যি নিজেদের বেতন বৃদ্ধির সুপারিশ করেছেন!

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!