এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > করোনা সংক্রমণের ওপর রাশ টানতে এবার রাজ্য জুড়ে বড়সড় পরিকল্পনা রাজ্য সরকারের

করোনা সংক্রমণের ওপর রাশ টানতে এবার রাজ্য জুড়ে বড়সড় পরিকল্পনা রাজ্য সরকারের



ভারতের অন্যান্য রাজ্যের মতনই পশ্চিমবঙ্গেও করোনা ভাইরাস মাত্রাছাড়া সংক্রমণের দিকে এগোচ্ছে ক্রমশ। রাজ্যের প্রতিটি জেলায় কড়া নজর রেখেছে রাজ্য সরকার। এমনিতেই রাজ্যে চলছে করোনা সংক্রমণ আটকাতে লকডাউন পরিস্থিতি। কিন্তু তা সত্বেও দেখা যাচ্ছে, লকডাউনের মধ্যেই করোনা সংক্রমণের সংখ্যা ক্রমাগত বেড়েই চলেছে। পরিস্থিতি ক্রমশ হাতের বাইরে চলে যাচ্ছে এবং তার জেরেই এবার কলকাতার করোনার রেড জোনগুলিতে বিশেষ নজর দিচ্ছে রাজ্য সরকার।

আর এই নজরদারির ফলে কিছুটা সুফল মিলছে বলে মনে করা হচ্ছে। রাজ্যের মুখ্য সচিব রাজীব সিনহা ইতিমধ্যেই জানিয়েছেন, করোনার হাত থেকে রক্ষার জন্য হাওড়া ও কলকাতা মিলিয়ে একটি কম্পোজিট টিম তৈরি করা হচ্ছে। যে টিমে পুলিশ-প্রশাসন, পৌরসভা এবং স্বাস্থ্য দপ্তরের কর্মীরা থাকবেন বলে খবর। প্রসঙ্গত, গত শুক্রবারই মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় হাওড়া জেলার মারাত্মক আকারে করোনা ভাইরাস সংক্রমণ নিয়ে ব্যাপক উদ্বিগ্ন যে ছিলেন, তা তাঁর বক্তব্যে পরিষ্কার হয়েছিল।

সেদিন তিনি প্রশাসনকে কড়া নির্দেশ দিয়েছিলেন, হাওড়া জেলায় পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে গেলে আবশ্যিকভাবে সামাজিক মেলামেশা বন্ধ করতে হবে। এ প্রসঙ্গে এদিন মুখ্য সচিব জানিয়েছেন, এবার থেকে প্রতিটি ওয়ার্ডে একজন করে নোডাল অফিসার থাকবেন। রাজ্যের মুখ্য সচিব এদিন আরও জানিয়েছেন হাওড়া জেলা সম্পর্কে, ‘এখনও পর্যন্ত হাওড়া জেলায় করোনাভাইরাসে আক্রান্ত হয়েছেন ৬২ জন। মোট ৫৮০ জনের শরীরের নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে।’

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তবে, শুধু হাওড়া বা কলকাতা নয়, করোনার থাবা ক্রমশ প্রবল হচ্ছে রাজ্যের অন্যান্য জেলাগুলিতেও। ফলে, গোটা রাজ্য জুড়েই এই মারণ ভাইরাসকে কাবু করতে মরিয়া রাজ্য সরকার। সেই লক্ষ্যেই, অন্যদিকে এদিন মুখ্যসচিব জেলার সমস্ত স্বাস্থ্যকর্তা এবং হাসপাতাল সুপারদের সঙ্গে ভিডিও কনফারেন্সের মাধ্যমে একটি জরুরি বৈঠক করেন এবং সেই বৈঠকের পরেই সরাসরি জানান, খুব শীঘ্রই রাজ্যে সমস্ত জায়গায় ‘র‍্যাপিড টেস্ট’ শুরু হতে চলেছে।

এ প্রসঙ্গে তিনি আরো জানান, ”র‌্যাপিড টেস্টের জন্য আমরা তৈরি আছি। কিট পেলেই পরীক্ষার বন্দোবস্ত করা হবে। কোথাও কোনও খবর পেলেই টেস্ট করা হচ্ছে এখন।” এর সাথে তিনি জানিয়েছেন, এখনো পর্যন্ত রাজ্যজুড়ে মোট আটটি জায়গায় করোনার পরীক্ষা হচ্ছে। তবে অবিলম্বে করোনা পরীক্ষাকেন্দ্রের সংখ্যা বাড়ানোর জন্য রাজ্য সরকার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে। তবে মুখ্য সচিবের বক্তব্য থেকে জানা গেছে, মালদা মেডিক্যাল কলেজেও করোনা ভাইরাসের টেস্ট শুরু হবে।

গত কয়েকদিন ধরেই করোনা সংক্রমণের সঙ্গে সঙ্গে রাজ্যজুড়ে বিতর্ক শুরু হয়েছিল করোনার আক্রান্তের পরিসংখ্যান ও টেস্ট ঘিরেও। বিরোধীদের দাবি ছিল, রাজ্যে করোনা আক্রান্তের পরিসংখ্যান কম করে দেখানোর জন্য ইচ্ছাকৃতভাবে রাজ্য সরকার করোনার টেস্ট করছেনা। তবে রাজনৈতিক মহলের একাংশের দাবি, এই বিতর্ককে চাপা দিতেই এবার তড়িঘড়ি করোনা টেস্টের ব্যবস্থা হচ্ছে সর্বত্র। রাজ্যে আপাতত করোনা পরিস্থিতি কোন দিকে মোড় নেয়, সে দিকেই লক্ষ্য রাখছে ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!