এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > এবার রাজ্যে জাল ভোটার কার্ড চক্র – দলের অস্বস্তি বাড়িয়ে বনগাঁ থেকে গ্রেপ্তার হলেন বিজেপি নেতা

এবার রাজ্যে জাল ভোটার কার্ড চক্র – দলের অস্বস্তি বাড়িয়ে বনগাঁ থেকে গ্রেপ্তার হলেন বিজেপি নেতা



ফের চাঞ্চল্য বাড়িয়ে দুর্নীতিমূলক কর্মকান্ডের সঙ্গে নাম জড়ালো এক বিজেপি নেতার। জাল ভোটার চক্রে যুক্ত থাকার খবর পেয়ে এদিন রাতে রেটপাড়া এলাকা থেকে অভিযুক্তকে গ্রেফতার করল বনগাঁ থানার পুলিশ। ধৃত অমিত রায়ের কাছ থেকে পাওয়া গিয়েছে প্রচুর জাল ভোটার কার্ড,হলোগ্রামবিহীন ভোটার কার্ড,ভুয়ো লাইসেন্স এবং মহাকুমা শাসকের স্ট্যাম্প এমনটাই জানা গেছে পুলিশ সূত্রে। এই অভিযোগে অন্য একজনকেও পরদিন সকালে গ্রেফতার করা হয়েছে। ধৃতদের বনগাঁ মহাকুমা আদালতে তোলা হয়। তাঁদের দুজনকেই দশদিনের পুলিশি হেফাজতে রাখার জন্য আপিল করেছে বনগাঁ থানার পুলিশ।

পুলিশ ও স্থানীয় সূত্র থেকে জানা গিয়েছে, ধৃত অমিত রায় বনগাঁর রেটপাড়া এলাকায় একটি জেরক্সের দোকান চালায়। দোকান চালানোর সঙ্গে সঙ্গেই জেরক্স মেশিন,স্ক্যানার মেশিন এবং ল্যামিনেশন মেশিন দ্বারা গোপনের চালাচ্ছিল জাল ভোটার কার্ড তৈরি কাজ। গোপন সূত্রে খবর পেয়ে ওই দোকানে তল্লাশি চালায় বনগাঁ থানার পুলিশ। সেখান থেকেই  উদ্ধার করা হয় ১৫০ টি জাল ভোটার কার্ড,১৬ টি ভারতীয় হলোগ্রামবিহীন ভোটার কার্ড,৩০ টি জাল ড্রাইভিং লাইসেন্স এবং বনগাঁ মহাকুমার স্ট্যাম্প। মহাকুমা শাসকের স্ট্যাম্প কীকরে ধৃতের কাছে আসলো তা নিয়ে রীতিমতো প্রশ্ন তৈরি হয়েছে। পুলিশের দাবী, ধৃত অমিত রায় বনগাঁ পৌরমন্ডলের বিজেপির সহসভাপতি। তবে এই ঘটনায় কার্যত হতবাক বনগাঁর মহাকুমা শাসক কাকলি মুখোপাধ্যায়। দোষীর কড়া শাস্তির দাবী করলেন এদিন এবং জানালেন, পুলিশের কাছে এই ইস্যুতে অভিযোগও দায়ের করবেন।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

ধৃতকে জেরা করেই এই চক্রের আরো একজন অভিযুক্তের হদিশ পেল বনগাঁ থানার পুলিশ। হাসানুর মন্ডল নামের ব্যক্তিটিকে গঙ্গানন্দপুর এলাকা থেকে গ্রেফতার করা হয় এদিন। পুলিশি জেরায় উঠে এসেছে, বাংলাদেশের অনুপ্রবেশকারীদের  জাল ভোটার কার্ড বানিয়ে দিত ধৃতরা। এই চক্রের সঙ্গে বনগাঁ মহাকুমা আদালতের কয়েকজন মুহুরিও যুক্ত আছেন বলে জানা গিয়েছে। তাঁদের নিয়মিত ওই জেরক্সের দোকানে আসা যাওয়া করতে দেখা গিয়েছে।

সম্ভবত ওই জাল ভোটার কার্ড তৈরির উদ্দেশ্যে নিয়েই তারা আনাগোনা করতো। তবে এ বিষয়ে নির্দিষ্ট তথ্য প্রমাণ এখনো আসেনি পুলিশের হাতে। তদন্ত এখনো চলছে। এই দুর্নীতিমূলক ঘটনায় বিজেপির যোগ থাকায় রীতিমতো আক্রমণাত্মক ভূমিকায় দেখা গিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেসকে। দলের যুব সংগঠনের জেলা সভাপতি জানান, বিজেপির শীর্ষমহল থেকে নিচুতলার কর্মী সদস্যরা সকলেই জাতিয়াতির সঙ্গে যুক্ত। তবে এই যুক্তি ভিত্তিহীন বলে দাবী করেছেন বিজেপি। ধৃতের সঙ্গে বিজেপির কোনো যোগ নেই বলেই জানালেন বিজেপির জেলা নেত্রী দেবশ্রী বিশ্বাস।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!