এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > ভোটের আগে রাজ্যের নিরাপত্তা আঁটসাঁট করতে কড়া বার্তা নির্বাচন কমিশনের

ভোটের আগে রাজ্যের নিরাপত্তা আঁটসাঁট করতে কড়া বার্তা নির্বাচন কমিশনের



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – 2021 এর বিধানসভা নির্বাচন কিন্তু রীতিমতো প্রেসার বাড়িয়ে রাখছে যেমন রাজ্যের রাজনৈতিক দলগুলির, ঠিক সেরকমই এবারের নির্বাচন নিয়ে রাজ্যের পরিস্থিতি যাতে কোনমতেই উত্তেজক না হয়ে ওঠে, সেদিকে কড়া নজর রাখছে রাজ্যের নির্বাচন কমিশন। আর তাই ভোটের আগে রাজ্যের পুলিশ কর্তাদের সঙ্গে দফায় দফায় বৈঠকে বসছেন উপ নির্বাচন কমিশনার। জানা যাচ্ছে এই বৈঠকে রাজ্য পুলিশের কাছে প্রশাসনিক কার্যকলাপ নিয়ে প্রশ্ন রাখা হচ্ছে। উত্তরে সন্তুষ্ট না হওয়া পর্যন্ত কোনমতেই ছাড়তে রাজি নয় উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। এদিন বৈঠকে রাজ্যের পুলিশ কর্তাদের একের পর এক প্রশ্ন করেন উপ নির্বাচন কমিশনার।

মূলত, কলকাতা ও ব্যারাকপুর পুলিশ কমিশনারদের প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়। জানা গিয়েছে, পুলিশ কর্মকর্তাদের কাছে উপ নির্বাচন কমিশনার শুধুমাত্র গত ছমাসের নয়, বরং 2019 বা 2016 সালের রাজ্যের পরিস্থিতি সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চেয়েছে। পাশাপাশি জানা যাচ্ছে, এদিন উপ নির্বাচন কমিশনার স্পষ্ট করে জানিয়ে দিয়েছেন, একুশের বিধানসভা নির্বাচনে যদি কোনো সরকারি আধিকারিক কোন রকম কাজে গাফিলতি করেন, তাহলে তাঁকে সাথে সাথে তাঁর কাজ থেকে সরিয়ে দেওয়া হবে। এর জন্য কোন শোকজের উত্তরের অপেক্ষা করা হবে না।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এবছর করোনা পরিস্থিতির কারণে বিধানসভা নির্বাচনে বুথের সংখ্যা বাড়তে পারে আর তাই কড়া নিরাপত্তার মোড়ক রাখতে তৎপর নির্বাচন কমিশন। সেক্ষেত্রে বাংলার নির্বাচনকালে আইন-শৃঙ্খলা কতটা মেনে চলে রাজ্য পুলিশ তা আঁচ করতে চাইছে আগে থেকেই নির্বাচন কমিশন। প্রসঙ্গত রাজ্য পুলিশ কর্তারা গত ছমাসের রাজ্যের যে রিপোর্ট উপ নির্বাচন কমিশনারের সামনে পেশ করেছেন, তাতে কমিশন সন্তুষ্ট না হয়ে আগামীকাল আবার রিপোর্ট জমা করার কথা বলেছেন। প্রসঙ্গত, ব্যারাকপুর, রানাঘাট, বারাসাত, কোচবিহারের পুলিশ সুপারদের রিপোর্ট খুশি করতে পারেনি উপ নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈনকে।

জানা গেছে, আর কিছুদিনের মধ্যেই জেলাশাসক, পুলিশ সুপার, পুলিশ কমিশনারদের সঙ্গে উপ নির্বাচন কমিশনার বৈঠকে বসতে চলেছেন। খুব স্বাভাবিকভাবেই একুশের নির্বাচন নিয়ে এবার তৎপরতা দেখাতে শুরু করলো নির্বাচন কমিশন। পাশাপাশি রাজ্য প্রশাসনও নির্বাচন কমিশনকে সাহায্য করতে প্রস্তুত থাকার বার্তা দিয়েছে। সে ক্ষেত্রে রাজ্যের নিরাপত্তা ব্যবস্থা যে আঁটসাঁট হবে একুশের বিধানসভা নির্বাচনে, সে ব্যাপারে স্পষ্ট ইঙ্গিত দিয়েছে রাজ্য পুলিশ কর্তারা।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!