এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ভোট পরবর্তী হিংসার ছবি তুলে মমতাকে চেপে ধরতে গিয়ে আদালতে বড়সড় মুখ পুড়ল কেন্দ্র সরকারের!

ভোট পরবর্তী হিংসার ছবি তুলে মমতাকে চেপে ধরতে গিয়ে আদালতে বড়সড় মুখ পুড়ল কেন্দ্র সরকারের!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিধানসভা নির্বাচনের ফলাফল প্রকাশের পর থেকেই রাজ্যে হিংসার ঘটনা ক্রমবর্ধমানভাবে বৃদ্ধি পেতে শুরু করেছে। যে ঘটনাকে হাতিয়ার করে তৃতীয়বারের জন্য তৃণমূল সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই তাদের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙুল তুলতে শুরু করেছিল ভারতীয় জনতা পার্টি। এমনকি মুখ্যমন্ত্রী পদে শপথ নেওয়ার পরই মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে হিংসা বন্ধ করার বার্তা দিয়েছিলেন পশ্চিমবঙ্গের রাজ্যপাল।

পরবর্তীতে শপথ নেওয়ার 24 ঘণ্টার মধ্যেই তৃণমূল সরকারের অস্বস্তি বাড়িয়ে রাজ্য পরিদর্শনে আসে কেন্দ্রীয় স্বরাষ্ট্রমন্ত্রকের প্রতিনিধি দল। যে ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক অস্বস্তিতে পড়ে যায় তৃতীয়বার রাজ্যের ক্ষমতায় আসা তৃণমূল সরকার। তবে রাজ্য সরকারকে বদনাম করার জন্যই কেন্দ্রের পক্ষ থেকে এই ধরনের প্রতিনিধিদল পাঠানো হচ্ছে বলে প্রথম থেকে অভিযোগ করতে শুরু করেছিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তবে এবার রাজ্যের ভোট পরবর্তী হিংসা নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে বড়সড় ধাক্কা খেল কেন্দ্রীয় সরকার। যে ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক চাঞ্চল্য তৈরি হয়েছে।

বস্তুত, ভোটের ফলাফল প্রকাশ হওয়ার পরই রাজ্যে হিংসার ঘটনা বাড়তে শুরু করে। আর এরপরই সরব হয় ভারতীয় জনতা পার্টি। যে ঘটনার রেশ ধরে বিশিষ্ট আইনজীবী তথা বিজেপি নেত্রী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল রাজ্যের ভোট পরবর্তী হিংসার ঘটনা নিয়ে কলকাতা হাইকোর্টে একটি মামলা করেন। আর এরপরই এই মামলার শুনানির জন্য পাঁচ বিচারপতির একটি সাংবিধানিক বেঞ্চ গঠিত হয়। কিন্তু এদিন কেন্দ্রের পক্ষ থেকে এই হিংসার ঘটনার জন্য বিশেষ তদন্তকারী দল গঠনের যে আবেদন করা হয়েছিল, তা সম্পূর্ণরূপে খারিজ করে দিল কলকাতা হাইকোর্ট।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

যেখানে রাজ্যকে কিছুটা স্বস্তি দিয়ে আইন-শৃংখলা পরিস্থিতির পালন করতে রাজ্য সবরকম ভূমিকা গ্রহণ করছে বলে জানিয়ে দিল কলকাতা হাইকোর্ট। স্বাভাবিক ভাবেই কেন্দ্রের পক্ষ থেকে এই ধরনের উদ্যোগ নেওয়া হলেও, কলকাতা হাইকোর্টের পক্ষ থেকে আবেদন খারিজ করে দেওয়ার কারণে কেন্দ্রীয় সরকার যে যথেষ্ট অস্বস্তির মুখে পড়ে গেল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। জানা গেছে, কলকাতা হাইকোর্টের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, এই মুহূর্তে রাজ্যের পরিস্থিতি সম্পূর্ণরূপে স্বাভাবিক। রাজ্য সরকার আইনশৃঙ্খলা রক্ষায় যথাযথ ভূমিকা পালন করছে। তাই এই মুহূর্তে সিট গঠন করার কোনো প্রয়োজন নেই।

তবে রাজ্য সরকার বরাবর বিজেপি বা কেন্দ্রীয় সরকারের পক্ষ থেকে যে হিংসার ঘটনার অভিযোগ করা হয়েছে, তাকে নস্যাৎ করে দিয়েছে। আর এদিন আদালতের পক্ষ থেকে কেন্দ্রীয় সরকারের যে আবেদন, তা সম্পূর্ণরূপে খারিজ করে দেওয়ার কারণে কিছুটা হলেও অস্বস্তিতে পড়েছেন মামলাকারীরা। যদিও বা মামলাকারী প্রিয়াঙ্কা টিবরেওয়াল বলেন, “এখনও বহু বিজেপি কর্মী আতঙ্কে ঘরছাড়া রয়েছেন।”

তবে বিজেপির সেই মামলাকারীর আবেদন শুনে সোমবারের মধ্যে রাজ্য সরকারকে হলফনামা দেওয়ার নির্দেশ দিয়েছে কলকাতা হাইকোর্ট। তবে প্রাথমিকভাবে আদালতের নির্দেশে কেন্দ্রের শাসকদল যে কিছুটা হলেও মুখ থুবড়ে পড়ল, তা বলার অপেক্ষা রাখে না। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!