এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > ভোট বড় বালাই! হাঁটু সমান জল-কাদায় নেমে ধানচাষ হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়কের! তীব্র প্রতিক্রিয়া!

ভোট বড় বালাই! হাঁটু সমান জল-কাদায় নেমে ধানচাষ হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়কের! তীব্র প্রতিক্রিয়া!



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – জনগণের নজরে আসার জন্য রাজনৈতিক নেতাদের বিভিন্ন সময় বিভিন্ন কাজ করতে হয়। তবে মাঠে নেমে ধান রোয়ার কাজ সচরাচর দেখা যায়না। তবে এ রকমই কাজ করে এবার বিখ্যাত হলেন হেভিওয়েট তৃণমূল বিধায়ক। যদিও তিনি নিজে তাঁর কাজটি একদমই স্বাভাবিক বলে বর্ণনা করলেও বিরোধীরা কিন্তু এর পেছনে ভোটের রাজনীতিকেই দেখছে। একুশের বিধানসভা নির্বাচন যত এগিয়ে আসছে ততই বাংলার রাজনৈতিক নেতারা বিভিন্নভাবে নজরে আসার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছেন বলে মনে করেন রাজনৈতিক মহলের একাংশ।

একদিকে যেমন শাসক দল, অন্যদিকে সেরকম বিরোধী দল নজরে আসার চেষ্টা চালিয়ে যাচ্ছে বলে মনে করা হচ্ছে। এদিন যেমন সোশ্যাল-মিডিয়ায়-ভাইরাল হয় শাসকদলের বিধায়কের জলে কাদায় ভরা জমিতে নেমে ধানের চারা রোপন করার ছবি। সামনাসামনি এই দৃশ্য দেখে অবশ্য পূর্ব বর্ধমানের শংকরপুর গ্রামের অনেকেই অবাক হয়েছেন। আবার অনেকেই সোশ্যাল মিডিয়ায় এই ছবি দেখে প্রশংসাও করেছেন। গলসির তৃণমূল কংগ্রেস বিধায়ক অলক কুমার মাঝি এদিন দিনমজুরদের সঙ্গে হাঁটুজল ভেঙে ধান রোপন করার কাজ করেন।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে তাঁর পরিবারের জমিতে ধান রোপন করার কাজ চলছিল। কিন্তু কিছু কাজ বাকি পড়ায় তিনি নিজেই মাঠে নেমে পড়েন। অলক কুমার মাঝি সম্প্রতি তৃণমূলের সাংগঠনিক রদবদলের ফলে জেলা তৃণমূলের কো-অর্ডিনেটর হয়েছেন। অন্যদিকে বিধায়ককেমাঠে ধান রোপণ করতে দেখে কেউ কেউ ছবি তোলার লোভ সামলাতে পারেননি। যথারিতী বিধায়ক অলক কুমার মাঝির ধান রোপন করার ছবি ফেসবুকের বিভিন্ন পেজে আপলোড হয়। অনেকেই ভরপুর প্রশংসা করেন বিধায়ক অলক কুমার মাঝির। কিন্তু অনেকেই আবার কটাক্ষে ভরিয়ে তোলেন তাঁকে।

কেউ কেউ এলাকার বেহাল রাস্তা নিয়েও খোঁচা দেন। শুধু তাই নয়, এলাকার রাস্তা খারাপ বলে অনেকেই আবার গলসি গোহগ্রামের রাস্তায় ধান চাষ করার হাস্যকর আবেদন রাখেন বিধায়কের কাছে। অনেকে পুরো ব্যাপারটি লোকদেখানো বলে বর্ণনা করেছেন। তবে যে যাই বলুক না কেন, রাজনৈতিক মহলের একাংশের মত পুরো ব্যাপারটি শুধুমাত্র স্বাভাবিক ভাবেই হয়েছে তা নয়। এর পেছনে জনমোহিনী ভাবমূর্তিও কাজ করতে পারে। অন্যদিকে বিরোধীরাও পুরো ব্যাপারটিকে রাজনৈতিক কারণ বলেই ব্যাখ্যা করেছে। তবে বিধায়ক নিজে ধান রোপনের ব্যাপারটিকে অত গুরুত্ব দিতে রাজি নন।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!