এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > ভোট মিটতেই সভাধিপতি পদ নিয়ে শাসকদলের অন্দরে একাধিক যোগ-বিয়োগের অঙ্ক

ভোট মিটতেই সভাধিপতি পদ নিয়ে শাসকদলের অন্দরে একাধিক যোগ-বিয়োগের অঙ্ক



ত্রিস্তরীয় পঞ্চায়েত নির্বাচনের ফলাফ্ল প্রকাশ হতেই উত্তরবঙ্গের কোচবিহার জেলা পরিষদের সভাধিপতির আসন কে ঘিরে শাসক দলের অভ্যন্তরে জল্পনার অন্ত নেই। এই পদের জন্যে নির্বাচনের পূর্বে কাউকে প্রস্তাব করেনি তৃণমূল কংগ্রেস। উল্লেখ্য জেলা পরিষদের ৩৩ টি আসনের মধ্যে ৩২ টি তে জয়লাভ করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। জেলা নেতৃত্বের থেকে জানা গিয়েছে জেলা পরিষদের সভাধিপতি পদে কে মনোনীত হবেন তা সম্পূর্ণটাই তৃণমূল কংগ্রেস  নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ও রাজ্য নেতৃত্বের উপর নির্ভর করছে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

রাজনৈতিক মহল সূত্রে জানা গিয়েছে ২০১৩ সালে পঞ্চায়েত নির্বাচনের পর থেকে দলের জেলা সভাপতির আনুকূল্যেই বেশিরভাগ জেলা পরিষদের প্রার্থী নির্বাচনে সাফল্যে পেয়েছেন। তাই এখন জেলার অনেক নেতা কর্মীরাই জেলা পরিষদের সভাধিপতি ও কর্মাধ্যক্ষের পদের দিকে লক্ষ্য রেখে জেলা সভাপতির সাথে সম্পর্ক মজবুতীকরণে মনোনিবেশ করেছেন। এই প্রসঙ্গে তৃণমূল কংগ্রেসের জেলা সভাপতি রবীন্দ্রনাথ ঘোষ বললেন, “জেলা পরিষদের সভাধিপতি ও কর্মাধ্যক্ষ কারা হবেন তার পুরোটাই নেত্রী ও রাজ্য নেতৃত্বের উপর নির্ভর করছে। তাঁরা যে নির্দেশ দেবেন সেই অনুসারেই কাজ হবে।” অন্যদিকে  জেলা পরিষদের বিদায়ী সভাধিপতি পুষ্পিতা রায় ডাকুয়া বললেন, “দল যা সিদ্ধান্ত নেবে সেটাই চূড়ান্ত। আমি এব্যাপারে কোনও মন্তব্য করব না।” দলের একাংশের মতে পরিষদের সভাধিপতি পদে এইবার কোনো সংরক্ষণ না থাকলেও তফসিলি জাতি সম্বলিত এই জেলায় প্রাক্তন জেলা সভাধিপতি পুষ্পিতা রায় ডাকুয়ার পুনরায় মনোনীত হওয়ার সম্ভবনা রয়েছে। একই সাথে এইবার ঐ পদের জন্যে জেলা সভাপতির সর্বক্ষণের সহায়ক তথা দলের জেলা সহ সভাপতি আবদুল জলিল আহমেদ কে মনোনীত করার একটা আভাস পাওয়া যাচ্ছে । অন্যদিকে জেলা পরিষদের কর্মাধ্যক্ষ তথা জেলা তৃণমূল মহিলা কংগ্রেসের সভানেত্রী শুচিস্মিতা দেবশর্মার নাম উঠে আসছে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!