এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > মোদী-জেটলির ‘চালে’ অমিত মিত্রর রাজ্য বাজেট কার্যত ‘ঠুঁটো জগন্নাথ’

মোদী-জেটলির ‘চালে’ অমিত মিত্রর রাজ্য বাজেট কার্যত ‘ঠুঁটো জগন্নাথ’



কেন্দ্র বিরোধিতার সুর চড়াতে ও কেন্দ্রীয় অনুষ্ঠানের গুরুত্ত্ব হরণ করতে মুখ্যমন্ত্রী আবার নিজের সিদ্ধান্তে অনড় থাকলেন। আর তাই এবার ১ লা ফেব্রুয়ারী কেন্দ্রীয় বাজেটের দিনই নজিরবিহীন ভাবে রাজ্য বাজেট পাশের সিদ্ধান্ত নিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী। কিন্তু রাজনৈতিক ও অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মতে নরেন্দ্র মোদী ও অরুন জেটলির ‘চালে’ এবারের রাজ্য বাজেট কার্যত গুরুত্ত্বহীন হয়ে গেছে। কেননা দেশজুড়ে জিএসটি চালু হয়ে যাওয়ায় এ বছর থেকে কর কাঠামো রদবদলের কোনও এক্তিয়ার আর রাজ্যের হাতে নেই। সাধারণ ধারণা হল, যে কোনও বাজেটের মূল আকর্ষণ হল করের হারে পরিবর্তন কেননা তার উপরেই নির্ভর করে জিনিসপত্রের দাম কমা-বাড়া। কিন্তু বর্তমানে এই করে হার পরিবর্তনের এক্তিয়ার শুধুমাত্র জিএসটি পরিষদের। রাজ্যের হাতে রয়েছে শুধু আবগারি শুল্ক, জমি-বাড়ি কেনাবেচার স্ট্যাম্প ডিউটি, জমির খাজনা এবং পেট্রোপণ্যের উপরে সেস নির্ধারণের অধিকার। কিন্তু সেখানে বড়সড় কোনো পরিবর্তন করলে রাজ্যের অর্থনীতিই পঙ্গু হয়ে যেতে পারে।

অন্যদিকে, আগামী বছর লোকসভা নির্বাচনের আগে এটিই শেষ পূর্ণাঙ্গ কেন্দ্রীয় বাজেট। নোটবন্দী বা জিএসটি চালু হওয়ার পর সাধারণ মানুষকে স্বস্তি দিতে কেন্দ্র কি সিদ্ধান্ত নেয় সেদিকেই নজর থাকবে সবার। তাছাড়া, কেন্দ্রীয় বাজেটের সঙ্গে বর্তমানে রেল বাজেটও জুড়ে গিয়েছে, ফলে তার আকর্ষণ আরও বেড়েছে বই কমেনি। কিন্তু রাজ্যের ক্ষেত্রে, রাজস্ব আদায়ের ক্ষেত্রে কেন্দ্রীয় সরকার নির্ভরতা বাড়ায় নতুন প্রকল্প ঘোষণার ব্যাপারেও নবান্ন চাপে থাকবে। মুখ্যমন্ত্রী আগেই জানিয়েছেন রাজ্যের কাঁধে বিপুল ঋণের বোঝা, ফলে ঋণ শোধের চাপে চালু প্রকল্পগুলিই চালানো ক্রমশ কঠিন হয়ে পড়ছে। আর তাই এবারের বাজেট পেশ জৌলুস হারিয়ে কার্যত নিয়মরক্ষার বলেই মনে করছেন অর্থনৈতিক বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!