এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ভ্যাকসিন নিলেও করোনা থেকে কি বাঁচা যাচ্ছে? কি বলছে সমীক্ষা?

ভ্যাকসিন নিলেও করোনা থেকে কি বাঁচা যাচ্ছে? কি বলছে সমীক্ষা?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – করোনার প্রথম ও দ্বিতীয় ঢেউ কাটিয়ে ওঠার পর এবার সামনে আসছে এবার সামনা-সামনি হওয়ার পালা তৃতীয়  ঢেউয়ের। ইতিমধ্যে শুরু হয়েছে দেশজুড়ে টিকাকরণ। অনেকেই ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ নিয়ে ফেলেছেন ইতিমধ্যেই। কিন্তু ভ্যাকসিন নেওয়ার পরেও করোনা আক্রান্ত হচ্ছেন অনেকেই এবং এই তথ্যই সামনে এসেছে কেরলের ত্রিচুর থেকে সম্প্রতি। দীর্ঘদিন কেরলের ত্রিচুর মেডিকেল কলেজ বন্ধ থাকার পর গত পয়লা জুন কলেজ খুলেছে। প্রথম ব্যাচের ছাত্ররা ক্যাম্পাসে গত 5 ই জুন এসেছেন, পরের ব্যাচের 175 জন ছাত্র ক্যাম্পাসে যোগ দিয়েছেন 6 জুন। এরা প্রত্যেকেই ভ্যাকসিনের দুটি ডোজ সম্পূর্ণ করেছেন বলে জানা যাচ্ছে।

কিন্তু দেখা যাচ্ছে, কলেজে আসার পর দ্বিতীয় ব্যাচের একজন করোনা পজিটিভ হয়েছেন। ক্রমশ সংক্রামিতর সংখ্যা বাড়তে থাকায় কলেজ কর্তৃপক্ষ সমস্ত ছাত্রদের কোভিড টেস্ট করায়। এবং সেখানেই ধরা পড়ে চাঞ্চল্যকর তথ্য। দেখা যায়, অন্তত কুড়িজন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। কলেজ কর্তৃপক্ষ প্রত্যেককেই বাড়ি যাওয়ার অনুমতি দিয়ে দিয়েছে। অন্যদিকে ছাত্রদের তিনটি ব্যাচ এখনো কলেজে রয়েছে, কারণ তাঁদের পরীক্ষা চলছে। কিন্তু দেখা যাচ্ছে, তাঁদের মধ্যে অন্তত 19 জন করোনা আক্রান্ত হয়েছেন। ইতিমধ্যেই তাঁদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। তাঁদের আলাদা ঘর থেকে পরীক্ষা দেবার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। অন্যদিকে ডেন্টাল কলেজেরও 17 জন ছাত্র করোনা আক্রান্ত হয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

আইসিএমআর এর সমীক্ষা অনুযায়ী জানা যাচ্ছে, যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তাদের মধ্যে মাত্র 0.4 শতাংশ মারা গিয়েছেন। করোনার প্রতিষেধক নেওয়ার পরেও আক্রান্ত হয়ে হাসপাতালে ভর্তি হয়েছেন 10 শতাংশ মানুষ। এক্ষেত্রে 677 জন করোনা আক্রান্তের জিনোম সিকোয়েন্সিং করে এই সিদ্ধান্তে আসা গিয়েছে। অন্যদিকে দেখা যাচ্ছে, আক্রান্তদের মধ্যে অন্তত 86% ডেল্টা ভ্যারিয়ান্ট সংক্রমিত হয়েছে। ইতিমধ্যে ডেল্টা ভ্যারিয়েন্ট অন্তত 104 টি দেশে ছড়িয়ে পড়েছে- যার মধ্যে ভারত, ব্রিটেন, আমেরিকা, অস্ট্রেলিয়া অন্যতম। অন্যদিকে বলা হচ্ছে, করোনার প্রতিষেধক এই ডেল্টা ভ্যারিয়েন্টকে রুখতে সক্ষম। আর সেদিকেই নজর দিয়েই আইসিএমআর জানিয়েছে, দেশের টিকাকরণের গতি বাড়ানোর জন্য।

সম্প্রতি নীতি আয়োগ সূত্রে জানা যাচ্ছে, আগামী 100 থেকে 125 দিন অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ করোনার ক্ষেত্রে। কারণ এই সময় তৃতীয় ঢেউ আসার সম্ভাবনা রয়েছে। অন্যদিকে বলা হচ্ছে, ধীর গতিতে সংক্রমণ কমছে, যা অত্যন্ত উদ্বেগজনক। আগামী দেড় থেকে দুই মাসের মধ্যে করোনার তৃতীয় ঢেউ আসতে চলেছে। এই অবস্থায় জুলাইয়ের মধ্যে যে 50 কোটি মানুষের টিকাকরণ হয় সেদিকে নজর দেওয়ার কথা বলা হয়েছে। সব মিলিয়ে এই মুহূর্তে করোনা সংক্রমণের হাত থেকে বাঁচতে টিকাকরণ অত্যন্ত জরুরী বলে মনে করা হচ্ছে। কার্যত টিকা নেওয়ার পরে অসুস্থ হলেও সে ক্ষেত্রে মৃত্যুহার নেই বললেই চলে। তবে টিকাকরণ হয়ে গেলেও সব রকম সাবধানতা ও সততা বজায় রাখার কথা জানাচ্ছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!