এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > উপনির্বাচনেও বাজিমাত হবে দিনহাটা-শান্তিপুরে? কনফিডেন্ট বিজেপি, মুচকি হাসছে ঘাসফুল শিবির

উপনির্বাচনেও বাজিমাত হবে দিনহাটা-শান্তিপুরে? কনফিডেন্ট বিজেপি, মুচকি হাসছে ঘাসফুল শিবির



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি তাদের লক্ষ্যে পৌঁছতে পারেনি। তারা আশা করেছিল, রাজ্যে তাদের সরকার গঠন হবে। কিন্তু মোটে 77 টি আসন দখল করে কোনোরকমে রাজ্যের বিরোধী দলের জায়গা দখল করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। তবে বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি তাদের একাধিক সাংসদকে প্রার্থী করলেও, অনেকেই পরাজিত হয়েছেন‌। কিন্তু তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য নিশীথ প্রামানিক এবং জগন্নাথ সরকার।

এই দুই বিজেপি সাংসদ দিনহাটা এবং শান্তিপুর বিধানসভা কেন্দ্রের বিধায়ক হিসেবে জয়লাভ করেছেন। তবে এই দুই বিধানসভা কেন্দ্রে আবার উপনির্বাচন হতে চলেছে। কেননা বিজেপির এই দুই সাংসদ বিধানসভা নির্বাচনে জয়লাভ করে বিধায়ক হলেও, তারা সাংসদ পদে থাকতে চলেছেন। ইতিমধ্যেই তারা বিধায়ক পদে ইস্তফা দেবেন বলে খবর।

আর এই পরিস্থিতিতে যদি আবার দিনহাটা এবং শান্তিপুরে বিধানসভা উপনির্বাচন হয়, তাহলে কাদের ভাগ্যে শিকে ছিড়বে, এখন তা নিয়েই রীতিমত জল্পনা ছড়িয়ে পড়েছে। তৃণমূল থেকে বিজেপি দুই পক্ষই দাবি করছে, এবারের উপনির্বাচনে তারাই জয়লাভ করবে। স্বাভাবিক ভাবেই এই ঘটনাকে কেন্দ্র করে দিনহাটা এবং শান্তিপুরের রাজনৈতিক ভবিষ্যত নিয়ে রীতিমত গুঞ্জন ছড়িয়ে পড়েছে রাজনৈতিক মহলে।

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, নিয়ম অনুযায়ী আগামী 6 মাসের মধ্যে এই দুই বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচন হবে। সেদিক থেকে এই দুই বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপির দুই সাংসদ জয়লাভ করলেও, কেন তারা আবার ইস্তফা দিলেন, তা নিয়ে অনেকের মনেই প্রশ্ন রয়েছে। সেদিক থেকে এবার তৃণমূলের অনেকটাই সুযোগ রয়েছে এই দুই বিধানসভা কেন্দ্রে জয়লাভ করার বলে মনে করছেন একাংশ।

কেননা মানুষ বহু কষ্ট করে এখানে দুই বিজেপি সাংসদকে বিধায়ক হিসেবে নির্বাচিত করেছিলেন। ফলে তারা যদি বিধায়ক হিসেবে থাকবেনই না বলেই মনস্থির করে থাকেন, তাহলে তারা কেন এই নির্বাচনী লড়াই করলেন এবং কেনই বা সাধারণ মানুষের রায়কে অগ্রাহ্য করলেন!

এখন তা নিয়ে প্রশ্ন তুলতে শুরু করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। আর তৃণমূলের এই প্রশ্নে বিজেপি বড়সড় ভাবে কাবু হতে পারে বলেই মনে করছেন রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞরা। যার ফায়দা আগামী বিধানসভা কেন্দ্রের উপনির্বাচনের তৃণমূল তাদের ঘরে ফসল স্বরুপ তুলতে পারে বলেই মনে করছেন একাংশ।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

বিজেপির দাবি, বিধানসভা নির্বাচনে যেভাবে দিনহাটা এবং শান্তিপুরের মানুষ তাদের ওপর ভরসা রেখেছিল, এবারেও উন্নয়নের জন্য মানুষ বিজেপির উপর ভরসা রাখবে। যদিও বা গেরুয়া শিবিরের এই দাবিকে প্রাধান্য দিতে নারাজ তৃণমূল কংগ্রেস। তাদের পাল্টা দাবি, বিধানসভা নির্বাচনে মানুষ তৃনমূলের উপর ভরসা রেখেছে। কিন্তু এই দুই বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি জয়লাভ করলেও, এখানে বিজেপি সাংসদরা বিধায়ক হয়ে যেভাবে মানুষকে অপমান করেছেন, তাতে তাদের এবার মানুষ তাদের জবাব দেবেন।

যার ফলে এই দুই বিধানসভা কেন্দ্রে বিজেপি উপ-নির্বাচন হলে কোনোমতেই জয়লাভ করতে পারবে না বলে দাবি করছে তৃণমূল কংগ্রেস। স্বাভাবিক ভাবেই দুই বিজেপি সাংসদ এখানে বিধায়ক হিসেবে লড়াই করেও, বিধায়ক পদে ইস্তফা দেওয়ার কারণে এই উপনির্বাচন হওয়ার জন্য তৃণমূল এখানে অনেকটাই এগিয়ে থাকতে পারে বলে মনে করছেন একাংশ। তবে সময় এবং পরিস্থিতি অনুযায়ী প্রতি মুহূর্তে পরিবর্তিত হয় রাজনৈতিক গতিপ্রকৃতি। তাই শেষ মুহূর্তে দিনহাটা এবং শান্তিপুরের বিধানসভা উপ-নির্বাচনে কারা শেষ হাসি হাসে, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!