এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > তৃণমূলের অন্দরের গোষ্ঠীকোন্দল ঘিরে চরম অস্বস্তি,পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে পুলিশবাহিনী

তৃণমূলের অন্দরের গোষ্ঠীকোন্দল ঘিরে চরম অস্বস্তি,পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে পুলিশবাহিনী



সামনে রাজ্যের পৌরসভা নির্বাচন এবং তারপরেই আসছে রাজ্যের বিধানসভা নির্বাচন। এই নির্বাচনগুলির দিকে লক্ষ্য রেখে রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী তথা তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় ইতিমধ্যে তৃণমূলের অন্দরের দলীয় গোষ্ঠীকোন্দল পুরোপুরি বন্ধ করার নির্দেশ দিয়েছেন। কিন্তু তা সত্ত্বেও বারেবারেই বিভিন্ন জায়গায় প্রকাশ্যে এসে পড়ছে তৃণমূলের গোষ্ঠীকোন্দল। বারংবার দলের প্রত্যেক সদস্যকে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব নিয়ে সাবধান করার পরেও একই ঘটনা ঘটে চলেছে। লোকসভা নির্বাচনের পর দলের শৃঙ্খলা আনা জরুরি, তা অনুধাবন করেই তৃণমূল কংগ্রেস নেতৃত্ব জেলায় জেলায় দলীয় কোন্দল বন্ধ করার করা নির্দেশ দেন। কিন্তু তা সত্বেও অবস্থার যে বিশেষ কিছু হেরফের হয়নি, তা দক্ষিণ 24 পরগনা ভাঙরের ঘটনায় আরেকবার প্রমাণ হলো।

সম্প্রতি দক্ষিণ 24 পরগনার ভাঙড়ে শুধুমাত্র খালের জল নেওয়াকে কেন্দ্র করে তৃণমূলের দুই গোষ্ঠীর বিক্ষোভে এলাকা রীতিমতো রণক্ষেত্রের চেহারা নিল। গোষ্ঠী সংঘর্ষের ঘটনায় অভিযোগ উঠেছে যুব তৃণমূল কর্মীদের দিকেই। দাবি করা হয়েছে এলাকার তৃণমূল কর্মীদের রীতিমতো এলোপাথাড়ি অস্ত্র দিয়ে আঘাত করেছে যুব তৃণমূলের কর্মীরা। এই ঘটনায় এলাকায় তুমুল উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে। পরিস্থিতি আয়ত্তে আনতে বিশাল পুলিশবাহিনী ঘটনাস্থলে উপস্থিত হন। সূত্রের খবর, এদিনের রাজনৈতিক সংঘর্ষে গুরুতর জখম হয়েছেন 6 জন তৃণমূল কর্মী। অন্যদিকে, এই ঘটনা সামনে আসার সাথে সাথেই তৃণমূল অন্দরে অস্বস্তি স্পষ্ট।

জানা গেছে, ভাঙ্গড় এলাকার তৃণমূল কর্মীদের মধ্যে বরাবরই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বর্তমান। তৃণমূল নেত্রীর কড়া নির্দেশ সত্ত্বেও এই গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধ হয়নি। এলাকার আদি তৃণমূল কর্মী এবং যুব তৃণমূল কর্মীরা হামেশাই বচসায় জড়িয়ে পড়েন বলে জানা গেছে। বুধবার রাতেও সামান্য একটি ব্যাপার থেকেই শুরু হয় প্রবল কথাকাটাকাটি। জানা গেছে, এলাকার খাল থেকে জল নেওয়াকে কেন্দ্র করে ঝামেলার সূত্রপাত। শুরু হয়, দুই গোষ্ঠীর মধ্যে কথাকাটাকাটি এবং সেখান থেকেই হাতাহাতি শুরু হয়ে যায়। অভিযোগ উঠেছে সে সময় যুব তৃণমূল কর্মীরা রীতিমতো কোপাতে থাকে তৃণমূল কর্মীদের। এই ঘটনায় গুরুতর জখম হয়েছেন 6 জন। আহতদের হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

এই ঘটনায় এলাকার পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে পড়ে। খবর পেয়ে সঙ্গে সঙ্গে ঘটনাস্থলে উপস্থিত হয় বাসন্তী থানার বিশাল পুলিশবাহিনী। ধীরে ধীরে তাঁরা পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে এনেছে বলে জানা গেছে। সূত্রের খবর, আহতদের উদ্ধার করে হাসপাতালে নিয়ে যায় বাসন্তী থানার পুলিশ আধিকারিকরাই। প্রথমে তাঁদের স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। কিন্তু পরবর্তীতে অবস্থার অবনতি হওয়ায় সেখান থেকে আহতদের ক্যানিং মহকুমা হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়। বর্তমানে সেখানেই তাঁরা চিকিৎসাধীন অবস্থায় রয়েছেন। অন্যদিকে, পুলিশের পক্ষ থেকে জানা গিয়েছে ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে ইতিমধ্যে তদন্ত শুরু হয়েছে। তবে এখনো পর্যন্ত অভিযুক্তদের কেউ পুলিশের হাতে ধরা পড়েনি। তবে এই ঘটনায় স্থানীয় বাসিন্দারা যথেষ্ট আতঙ্কিত বলে জানা গেছে।

বারংবার এই গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে ঘিরে সমালোচনার মুখে পড়তে হচ্ছে শাসক দলকে। তৃণমূল দলের অন্দরে গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের অস্বস্তি প্রবল আকার ধারণ করছে দিন দিন। অন্যদিকে, শাসকদলের গোষ্ঠী কোন্দল নিয়ে বিরোধী দলগুলিও ক্রমাগত সমালোচনা চালিয়ে যাচ্ছে। এ ব্যাপারে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের মত, আগামী দিনে রাজ্যে দুটি উল্লেখযোগ্য নির্বাচন আসতে চলেছে। ঠিক এই সময় যদি শাসক দলের অন্দরে এভাবে গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব ব্যাপক মাত্রায় দেখা যায়, তাহলে তার সুযোগ অতি অবশ্যই বিরোধী দলের লোকজন নেবে। আপাতত এইসব গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে সামলাতে আগামী দিনে তৃণমূল সুপ্রিমো বিশেষ কোনো পদক্ষেপ গ্রহণ করছে কিনা সেদিকে লক্ষ্য রাখবে রাজ্যের ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!