এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > তৃণমূলকে বিপাকে ফেলতে বিজেপির হাতে বড় অস্ত্র! চলছে শান দেওয়ার প্রাথমিক প্রস্তুতি!

তৃণমূলকে বিপাকে ফেলতে বিজেপির হাতে বড় অস্ত্র! চলছে শান দেওয়ার প্রাথমিক প্রস্তুতি!



ভোট আসে ভোট যায়, কিন্তু সাধারণ মানুষের দুর্দশা সেই একই জায়গায় রয়েছে। রাজনৈতিক মানচিত্রে হয়তো দল পরিবর্তন হয়, কিন্তু সাধারণের অবস্থার উল্লেখযোগ্য কোনো পরিবর্তন হয়না। এই ঘটনার উদাহরণ হিসেবে বাঁকুড়ার ভূতেশ্বর ওন্দার কথা বলা যায়। দীর্ঘদিন ধরে এই এলাকার মানুষ একটি সেতুর দাবি করে এসেছে। কিন্তু এখনো পর্যন্ত ভোটের পর ভোট চলে গেলেও এলাকার মানুষের দাবি পূরণ হয়নি। এবার এই প্রসঙ্গকেই হাতিয়ার বানিয়ে 2021 এর বিধানসভা নির্বাচনে বিজেপি তৃণমূলের বিরুদ্ধে অস্ত্র হিসেবে প্রয়োগ করতে চলেছে। পরিকল্পনা অনুযায়ী তাঁরা এখন থেকেই বাঁকুড়ার রাজনৈতিক সভায় এই প্রসঙ্গটি উত্থাপন করে তৃণমূল শাসকের ব্যর্থতার নজির এর উদাহরণ দিচ্ছেন।

দীর্ঘদিন প্রতিশ্রুতি পাওয়া সত্বেও এলাকার মানুষের দীর্ঘদিনের দাবি মেনে আজও বাঁকুড়ার উৎস ভুতোশ্বর-ওন্দার তপোবনে দ্বারকেশ্বর নদীর ঘাটে স্থায়ী সেতুর নির্মাণকার্য সম্ভব হয়নি। বাঁকুড়া শহরে যোগাযোগের জন্য এলাকাবাসীরাই অবশেষে নিজেদের উদ্যোগে বানিয়ে নিয়েছে একটি বাঁশের সাঁকো। সেই বাঁশের সাঁকো ধরে প্রতিদিন হাজার হাজার মানুষ ও অসংখ্য ছাত্র-ছাত্রী জীবনের ঝুঁকি নিয়ে এই সাঁকো পেরিয়ে বাঁকুড়া শহরে যাতায়াত করেন। দ্বারকেশ্বর নদীর ওপর এই সাঁকোটি থাকার কারণে মাত্র দু কিলোমিটার দূরে বাঁকুড়া শহরের পৌঁছানো সম্ভব হয় সময়ের মধ্যেই। অন্যথায় ঘুরে ঘুরে বাঁকুড়া শহর যেতে গেলে সময়ের অপচয় হয়।

ওন্দার এই এলাকাটি মূলত কৃষি নির্ভর। কিন্তু জীবিকার স্বার্থে ও স্কুল-কলেজ যেতে গেলে দ্বারকা নদী পেরিয়ে বাঁকুড়া শহরে যাওয়া নিত্যদিনের কাজ। বর্ষার সময় যখন সেতুর জল বেড়ে যায়, তখন ধলডাঙ্গা মোড় হয়ে প্রায় 15 কিলোমিটার ঘুরে শহরে পৌছাতে হয়। যেখানে বাঁশের সাঁকো দিয়ে দু কিলোমিটার দূরত্বে বাঁকুড়া শহর। এই বিষয়টি নিয়ে গ্রামবাসীরা অনেকদিন থেকেই প্রশাসনিক স্তরে আবেদন জানিয়ে যাচ্ছে। কিন্তু তা সত্ত্বেও কোনো কাজ হয়নি বলে এলাকাবাসীর অভিযোগ। সম্প্রতি এলাকার মানুষ সিদ্ধান্ত নিয়েছেন তাঁরা গণ-আন্দোলন করবেন এই ব্যাপারে। সেই মতো ‘সেতু নির্মাণ আন্দোলন কমিটি’ গড়ে গ্রামে গ্রামে ফেস্টুন লাগিয়ে প্রচার পর্ব সেরে ব্যাপকহারে গণ আন্দোলনে নামার প্রস্তুতি শুরু করেছেন ওন্দাবাসীরা।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

ওন্দার স্থানীয় বাসিন্দা সৌমেন পাত্র, সঞ্জয় কোনাররা জানিয়েছেন, বাঁশের সাঁকো দিয়ে পারাপার করা যথেষ্ট জীবনের ঝুঁকি সম্পন্ন কাজ। তাছাড়া, যেখানে নদী পেরিয়ে মাত্র দু কিলোমিটার দূরের বাঁকুড়া শহর পৌঁছানো যায় নিমেষে, সেখানে রাস্তা দিয়ে ঘুরে ঘুরে গেলে পার করতে হবে প্রায় 15 কিলোমিটার পথ। গ্রামবাসীরা জানিয়েছেন, বারংবার প্রশাসনের কাছে তাঁরা বিভিন্ন আবেদন-নিবেদন জানিয়েছেন কিন্তু তা সত্বেও কোন কাজ হয়নি বলে অভিযোগ। বিজেপি এবার এই ইস্যুকে কাজে লাগিয়ে আগামী দিনের ভোটের প্রচার শুরু করে দিয়েছে। ইতিমধ্যে বাঁকুড়া লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি সাংসদ ডাঃ সুভাষ সরকার তীব্র  সমালোচনা করেছেন রাজ্যের শাসকদলের। প্রসঙ্গক্রমে, তিনি শাসক দল তৃণমূলের সাথে প্রাক্তন শাসকদল বামফ্রন্টের তুলনা টেনেছেন।

তিনি আরও বলেছেন, দীর্ঘ সময় পেরিয়ে গেলেও দ্বারকা নদীর ওপর সেতু তৈরি করার কথা কেউ ভাবেননি এখনো পর্যন্ত। এ প্রসঙ্গে তিনি রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রীকে রীতিমত তুলোধোনা করে বলেছেন, তিনি শুধুই প্রতিশ্রুতি দেন। কিন্তু পালন করার কোন চেষ্টাই করেননা। অন্যদিকে, রাজ্যের মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা এ প্রসঙ্গে জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রী ইতিমধ্যে দ্বারকেশ্বর নদীর ওপর সেতু নির্মাণ করেছেন। অন্যদিকে, তিনি রাজ্যের প্রতি কেন্দ্রের বঞ্চনার অভিযোগ জানিয়ে বলেছেন, মুখ্যমন্ত্রী দিনরাত এক করে সব সময় মানুষের কথা ভাবছেন, তাই এলাকার মানুষের দাবি সম্পর্কে তিনি অবহিত। নিশ্চয়ই তিনি তা পূরণ করার কথা ভেবেছেন।

আপাতত দ্বারকেশ্বর নদীর উপর সেতু তৈরি করা নিয়ে যুযুধান দুই রাজনৈতিক শিবির তৃণমূল এবং বিজেপির মধ্যে চাপানউতোর চলছে সমানে। সামনেই 2020 র পুরভোট এবং তারপর 2021 এর বিধানসভা ভোট। তাই বিভিন্ন ইস্যুকে কাজে লাগাতে তৎপর হয়েছে রাজ্য বিজেপি। অন্যদিকে তৃণমূলও পিছিয়ে নেই। তাঁরাও জনসাধারণের কাছে কেন্দ্রের বঞ্চনার ইস্যুটি প্রবলভাবে তুলে ধরছেন। তবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের দাবি, ভোট দেন সাধারণ জনগণরা। তাই তাঁদের দাবী যে রাজনৈতিক দল মিটিয়ে দেবে, তাঁরা তাঁদের দিকেই নিজেদের সমর্থন দেবে। আপাতত সেতু তৈরি করা নিয়ে যে রাজনৈতিক চাপানউতোর চলছে, সেদিকেই নজর রাখছে রাজ্যের ওয়াকিবহাল মহল।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!