এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > পুরুলিয়া-ঝাড়গ্রাম-বাঁকুড়া > তৃণমূলের সাফল্য পাওয়ার মন্ত্র জানিয়ে দিলেন শুভেন্দু! নেতা কর্মীরা মানবে কি? উঠছে প্রশ্ন !

তৃণমূলের সাফল্য পাওয়ার মন্ত্র জানিয়ে দিলেন শুভেন্দু! নেতা কর্মীরা মানবে কি? উঠছে প্রশ্ন !



গত লোকসভা নির্বাচনের জঙ্গলমহলের বিভিন্ন এলাকায় ফুটে গিয়েছে পদ্মফুল। আর তারপর থেকেই সেখানে সংগঠনকে শক্তিশালী করে ভালো কাজের মধ্যে দিয়ে দলকে এগিয়ে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করছে তৃণমূল কংগ্রেস। বিজেপিকে কুপোকাত করবার জন্য বাঁকুড়ায় তৃণমূলের তরফে দায়িত্ব পেয়েছেন দলের হেভিওয়েট মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারী। কখনও কর্মী সম্মেলন, আবার বা কখনও বা বুথ ভিত্তিক কর্মী সম্মেলনের মধ্যে দিয়ে সংগঠনকে বাঁকুড়া জেলায় চাঙ্গা করার চেষ্টা করেছেন রাজ্যের পরিবহনমন্ত্রী। এবার পৌরসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে বুথভিত্তিক কর্মী সম্মেলন করলেন শুভেন্দু অধিকারী। সূত্রের খবর, মঙ্গলবার বাঁকুড়ার রবীন্দ্রভবনে পৌরসভার প্রস্তুতি বৈঠক করেন তিনি।

যেখানে উপস্থিত ছিলেন মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা, জেলা তৃণমূলের সভাপতি শুভাশিস বটব্যাল, নির্বাচনী কমিটির চেয়ারম্যান শম্পা দরিপা, আহ্বায়ক অরুপ চক্রবর্তী সহ বাঁকুড়ায় তৃণমূলের অন্যান্য নেতাকর্মীরা। আর সেখানে বক্তব্য রাখতে গিয়ে কিভাবে সাফল্য আসবে, তা দলের নেতাকর্মীদের জানিয়ে দেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, “মুখ্যমন্ত্রী উন্নয়নের যে কাজ করেছেন, তাতে গণতান্ত্রিক পরিবেশে মানুষ লাইন দিয়ে ভোট দিলেই, তৃণমূল কংগ্রেস বাকুড়ায় হারানো ভোটব্যাঙ্ক ফিরে পাবে।” পাশাপাশি দলীয় সংগঠনকে চাঙ্গা করার জন্য প্রতিটি বুথে মাদার এবং সমস্ত শাখা সংগঠনের কর্মীদের নিয়ে নির্বাচনী কমিটি গঠনের নির্দেশ দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারী।

এদিন পৌরসভা নির্বাচনে কারা প্রার্থী হবে, তা নিয়েও বক্তব্যে নিজের মত তুলে ধরেন তৃণমূলের এই হেভিওয়েট নেতা। তিনি বলেন, “দল কাকে প্রার্থী করবে তা নেত্রী ছাড়া কেউ জানেন না। তবে তিনি সব খবর রাখেন। তাছাড়া দলের নিযুক্ত এজেন্সি, সংবাদমাধ্যম, প্রশাসন ও রাজনৈতিক নেতাদের কাছ থেকে নবান্নে খবর যাচ্ছে। আপনাদের কাজের খতিয়ান, সুনাম ও জনসংযোগ রিপোর্ট কার্ড দেখেই তিনি সিদ্ধান্ত নেবেন। এপ্রিলে নির্বাচন হবে। তাই দল না বললেও আমাদের প্রস্তুত থাকতে হবে। এখন প্রতিটি ওয়ার্ডে আলোচনার মাধ্যমে সম্ভাব্য তিনজন প্রার্থীর নাম ঠিক করে বায়োডাটা সহ জেলা নেতৃত্বের কাছে জমা দিন। তবে সংরক্ষিত আসনগুলোর ক্ষেত্রে শংসাপত্রের বিষয়টি আগে দেখে নেবেন।”

অন্যদিকে বিগত দিনে এই পৌরসভায় ব্যাপক উন্নয়নের কাজ হয়েছে। তাই সাধারণ মানুষের কাছে সেই কাজগুলো তুলে ধরুন বলেও দলের নেতাকর্মীদের নির্দেশ দেন শুভেন্দু অধিকারী। তিনি বলেন, “প্রচারে পতাকা ফেস্টুন লাগিয়ে হৈচৈ করার পরিবর্তে বিনয়ী হন। তাতে মানুষ আপনার কার্যকলাপকে দলকে ভুল বুঝবেন। আপনি ক্ষমতায় আছেন বলে কারও রং করা দেওয়ালের জোর করে লিখতে যাবেন না। আগে অনুমতি নিন। তারপরে কারও দেওয়ালে প্রচারের কথা ভাববেন। মনে রাখবেন, জোর করে একটা দেওয়াল লিখলে শাসক দলের লোক বলে ভয় আপনাকে মুখের সামনে কিছু বলবে না। কিন্তু মানুষ অসন্তুষ্ট হবেন।” সব মিলিয়ে মানুষের কাছে ভোট চাইতে বিনয়ী হয়ে যাওয়ার পরামর্শ দিয়ে সাফল্যের মন্ত্র পাঠ করলেন শুভেন্দু অধিকারী।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!