এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > বিজেপি > তৃণমূলের মায়া কাটিয়ে এবার পাকাপাকিভাবেই পদ্মশিবিরের হয়ে কোমর বেঁধে নামতে চলেছেন শোভন?

তৃণমূলের মায়া কাটিয়ে এবার পাকাপাকিভাবেই পদ্মশিবিরের হয়ে কোমর বেঁধে নামতে চলেছেন শোভন?



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – একসময় তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের কাছের লোক ছিলেন স্নেহের কানন শোভন চট্টোপাধ্যায়। কিন্তু একসময় তৃণমূল দলের সঙ্গে তার সম্পর্ক ছিন্ন হতে শুরু করে। একটু একটু করে তৃণমূল দলে তিনি ক্ষমতা হারাতে থাকেন। প্রথমে কলকাতা পৌরসভার মেয়র পদ হারান, তারপর তৃণমূলের দক্ষিণ ২৪ পরগনা জেলা সভাপতির পদ, পরে আরো কিছু কমিটি ও পদ তাঁর হাতছাড়া হয়ে যায়। প্রায় নিঃস্ব অবস্থায় তিনি দলে ৯ মাস ছিলেন। তারপর একসময় তৃণমূল ছেড়ে তিনি চলে যান বিজেপিতে। তারপর এক বছর কেটে গেছে তবে খুব একটা সক্রিয় হতে ইতিমধ্যে তাকে দেখা যায়নি।

কয়েকদিন ধরেই প্রশ্ন উঠছিল যে, তিনি তৃণমূল ত্যাগ করে বিজেপি দলের ফিরতে চান কিনা? এবার শোভন চট্টোপাধ্যায় পরিষ্কার করে জানিয়ে দিলেন যে, তৃণমূল দলে তাঁর ফেরার ব্যাপারে বেশ কিছু সমস্যা রয়েছে, গত এক বছরেও এই সমস্যাগুলির নিরসন হয়নি। মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় তাকে ডেকেছেন, ডেকেছেন মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তবুও সমস্যার সমাধান হয়নি তাই তৃণমূলে ফেরার কোন সম্ভাবনাও নেই।

প্রসঙ্গত, তিনি জানান বিজেপি দলের রাজ্য পর্যবেক্ষক অরবিন্দ মেননের সঙ্গে তাঁর যে বিশেষ বৈঠক হয়েছিল, তা একান্তই ব্যক্তিগত পর্যায়ের বৈঠক ছিল। রাজনৈতিক বৈঠক ছিলনা ছিল না । এ ব্যাপারে তিনি আরো জানান, অরবিন্দ মেনন এর পূর্বেও তার সঙ্গে দেখা করতে এসেছিলেন। তাই তাঁর আসার মধ্যে কোন রাজনৈতিক কারণ খুঁজতে যাওয়া অযুক্তিক।

বিজেপি নেতা অরবিন্দ মেননের সঙ্গে তার এই সাক্ষাৎকারে পর শাসক দলের মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায় তাঁর সঙ্গে যোগাযোগ করেছিলেন। পার্থবাবুকে তিনি পরিষ্কারভাবে জানিয়ে দিয়েছেন যে, তৃণমূলের তিনি ফিরছেন না। এবং কি কি কারণে ফিরছেন না। এ প্রসঙ্গে তিনি জানিয়েছেন যে, তার বান্ধবী বৈশাখী চট্টোপাধ্যায়কে যেভাবে চাকরি থেকে বরখাস্ত করা হয়েছে, যেভাবে তার সম্মানহানি করা হয়েছে দিনের পর দিন ধরে এ কারণেই তৃণমূল দলের প্রতি যথেষ্ঠ ক্ষুব্ধ আছেন তিনি। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, ” শোভন বলেন, কেবল আমার জন্য বৈশাখীকে যা সহ্য করতে হয়েছে, সেটা অনভিপ্রেত। আমার ফেরার শর্তে বৈশাখী সব ফিরে পাবে, তা চাইনি কখনও।”

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সম্প্রতি তৃণমূল দলের তরফ থেকে শোভন চট্টোপাধ্যায় কে বার্তা দেওয়া হয়েছে যে, তৃণমূল দলে ফেরার ব্যাপারে তিনি কোনো শর্ত রাখতে পারবেন না। নিঃশর্তভাবে তাকে দলে ফিরতে হবে। দলে ফিরলেন তার সমস্ত দাবিগুলি পূরণের প্রচেষ্টা করবে শাসকদল। কিন্তু ফেরার আগে তার কোনো দাবি পূরণে ইচ্ছুক নয় শাসক দল।

সূত্রে জানা গেছে, শাসক দলের বেশ কিছু অংশ শোভন চট্টোপাধ্যায় কে দলে ফেরাতে চান না। কেন না শোভন চট্টোপাধ্যায়কে দলে ফেরাতে গেলে তার স্ত্রী রত্না চট্টোপাধ্যায় কে সাংগঠনিক কাজ কর্ম থেকে বসিয়ে দিতে হবে। যেটা তৃণমূলের অনেকাংশই চান না। তৃণমূলের রাজনৈতিক পরামর্শদাতা প্রশান্ত কিশোরেরও এ ব্যাপারে মত নেই।

শোভন বাবুকে যখন প্রশ্ন করা হয়েছে এতে তিনি কি তৃণমূল দলে ফিরতে চান? নাকি সক্রিয়ভাবে বিজেপিতে অবস্থান করতে চান? এর উত্তরে তিনি জানালেন, সবকিছুর শেষ বিচারক হলো জনগণ। সময় এলেই তার অবস্থান তিনি স্পষ্ট করবেন। করোনা সংক্রমণ কারণেই তিনি সম্প্রতি বিজেপির কর্মসূচিতে যোগ দিতে পারছেন না। সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ হলেই তিনি পুনরায় বিজেপির রাজনৈতিক সভায় যোগ দেবেন। এ বিষয়ে তিনি জানিয়েছেন, সক্রিয়ভাবে বিজেপির কর্মসূচিতে যোগ না দিলেও রাজনৈতিক পর্যালোচনায় তিনি অনেকবারই যোগ দিয়েছেন।

প্রসঙ্গত শোভন চট্টোপাধ্যায় জানালেন বিজেপি যে ৪০ শতাংশ ভোট গত লোকসভা নির্বাচনে পেয়েছিল সেটা কিন্তু ভুলে গেলে চলবে না। এছাড়া রাজ্যের শাসকদলের বিরুদ্ধে তিনি জানালেন যে, রাজ্যের বিভিন্ন সরকারি সিদ্ধান্ত নিয়ে চলছে রাজনীতি যা বাংলার জন্য কখনোই শুভ নয়। তিনি আরো জানালেন যে, সমস্ত কিছু দেখছে বাংলার মানুষ করোনা সংক্রমণ থেকে ঘূর্ণিঝড় কোনকিছুই বাংলার মানুষের চোখ এড়ায়নি। এই সরকারের সমস্ত কার্যকলাপ মানুষের নজরে পড়ছে। মানুষ সব কিছুর শ্রেষ্ঠ বিচারক। উপযুক্ত সময় এলেই সব কিছুর উত্তর দেবেন তিনি। তাঁর এই বক্তব্যের মধ্যে দিয়ে তিনি আভাসে, ইঙ্গিতে পরিষ্কার ভাবে বুঝিয়ে দিলেন যে, আগামী দিনে তিনি বিজেপি দলের সক্রিয় ভূমিকা পালন করতে চলেছেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!