এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূল সুপ্রীমোকে বড়সড় চ্যালেঞ্জ জানাতে এবার বঙ্গে আগমন এই হেভিওয়েট নেতার, কৌতুহল তুঙ্গে

তৃণমূল সুপ্রীমোকে বড়সড় চ্যালেঞ্জ জানাতে এবার বঙ্গে আগমন এই হেভিওয়েট নেতার, কৌতুহল তুঙ্গে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – রাজনীতির অলিন্দে কখন যে কোন সমীকরণ তৈরি হয় তা কেউ বলতে পারেনা। একুশের বিধানসভা নির্বাচন নিয়ে এই মুহূর্তে টানটান উত্তেজনা বাংলার বুকে। রাজ্যের শাসক দল তৃণমূলের বিরোধিতায় প্রথমেই জোট বেঁধেছিল বাম এবং কংগ্রেস শিবির। তারপর তাঁদের সঙ্গে হাত মেলায় আব্বাস সিদ্দিকীর ইন্ডিয়ান সেকুলার ফ্রন্ট। 

আর এবার বাংলার ভোটে তৃণমূলকে কোণঠাসা করতে মহাজোটের সঙ্গী হচ্ছেন লালুপ্রসাদ যাদবের দল আরজেডি। খুব স্বাভাবিক ভাবেই মহাজোট নিয়ে ব্যাপক উৎসাহ রাজনৈতিক মহলে। তবে সব থেকে বড় খবর হল, ব্রিগেডের মাঠে এবার মহাজোটের হয়ে তৃণমূলের বিরুদ্ধে প্রচার চালাতে রাজ্যে আসছেন আরজেডির তেজস্বী যাদব।

খুব স্বাভাবিকভাবে বাংলার মহাজোটে যেভাবে একের পর এক মহারথীরা সামিল হচ্ছেন, তাতে এই মহাজোট কিন্তু ক্রমশ একুশের রাজনীতিতে আলাদা মাত্রা পেতে চলেছে। প্রসঙ্গত, বিহারের ভোটের প্রাক্কালে মহাজোট সামনে আসে। আর সে সময় একক সংখ্যাগরিষ্ঠ দল হিসেবে রাজনৈতিক মঞ্চে উত্থান হয় আরজেডির।

নির্বাচনের পর তৃণমূল নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় রীতিমতো ফোন করে তেজস্বী যাদবকে শুভেচ্ছা জানান। পাশাপাশি লালু প্রসাদ যাদবের সুস্থতা কামনা করেন তিনি। এই তেজস্বী যাদবই আবার মমতা ব্যানার্জির ডাকে লোকসভা নির্বাচনের আগে ব্রিগেডের সভা থেকে তৃণমূলের হয়ে প্রচার চালান। কিন্তু এবার একুশের বিধানসভা নির্বাচনে পরিপ্রেক্ষিতে তেজস্বী যাদব আসছেন মমতা বিরোধী সভায়।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

যেখানে মনে করা হচ্ছে তিনি বাম কংগ্রেসের সাথে মহাজোটে শামিল হয়ে তৃণমূল কংগ্রেসকে দেবেন কড়া বার্তা। সূত্রের খবর, বাংলার মহাজোটে আরজেডি সামিল হওয়ায় সিপিএম তাঁদের জামুরিয়া বিধানসভা আসনটিকে ছেড়ে দিতে পারে। এছাড়াও জানা গিয়েছে এন্টালী, জোড়াসাঁকো, কুলটির আসনটিও বামেরা ছাড়তে চলেছে আরজেডিকে। মূলত এইসব আসনে হিন্দিভাষীর সংখ্যা বেশি।

আর সে জায়গায় মহাজোট কার্যকর করার জন্য আরজেডিকে জায়গা ছাড়া হচ্ছে বলে রাজনৈতিক মহলের অনেকেই মনে করছেন। অন্যদিকে তেজস্বী যাদবের সঙ্গে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সম্পর্ক থাকলেও রাজনৈতিক ময়দানে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের যে বিরোধিতা করবেন তেজস্বী মহাজোটে সামিল হয়ে, সে কথা পরিষ্কার।

কিন্তু ব্রিগেডের ময়দানে দাঁড়িয়ে তেজস্বী যাদব মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়সহ তৃণমূলের বিরুদ্ধে কতটা ক্ষোভ উগরে দিতে পারেন বা কতটা আক্রমণ শানাতে পারেন সে দিকে কিন্তু নজর থাকবে ওয়াকিবহাল মহলের। বিশেষজ্ঞদের মতে, রাজনীতির বাইরে দুই বিপরীত শিবিরের নেতা বা নেত্রীদের মধ্যে সুসম্পর্ক থাকলেও তা রাজনীতির ময়দানে কোন কাজ করে না। বরং সেখানে লড়াইকেই মুখ্য হিসাবে ধরা হয়। তাই দেখার ব্রিগেডের মাঠ থেকে মহাজোটের সামিল হয়ে তেজস্বী যাদব তৃণমূল নেত্রীকে বড়সড় কোনো চ্যালেঞ্জের মুখোমুখি করতে পারেন কিনা!

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!