এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > তৃণমূল শিবিরে যোগদান ঘিরে চাঞ্চল্যকর দাবি দলের একাংশের, তীব্র সমালোচনা রাজনৈতিক মহলে

তৃণমূল শিবিরে যোগদান ঘিরে চাঞ্চল্যকর দাবি দলের একাংশের, তীব্র সমালোচনা রাজনৈতিক মহলে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – তৃণমূল শিবিরের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বের কথা সকলের জানা। তৃণমূল নেত্রী বারবার গোষ্ঠীদ্বন্দ্ব বন্ধের নির্দেশ দিলেও তা যে বিশেষ কাজে লাগেনি, তাও স্পষ্ট হয়েছে দিন দিন। এবার শান্তিপুরে তৃণমূলের অন্তর্কলহ প্রকাশ পেল দলে যোগদান নিয়ে। একুশের বিধানসভার নির্বাচন কাছে আসার সাথে সাথে বিভিন্ন দলে চলছে যোগদান শিবির। একদিকে যেখানে গেরুয়া শিবিরে তৃণমূল থেকে লোকজন যোগদান করছে, সে সময় তৃণমূল শিবিরের অন্দরেই অভিযোগ উঠল দলের লোকদেরকেই নতুন করে দলে যোগদান করানো নিয়ে। উল্লেখ্য, বুধবার শান্তিপুর 24 নম্বর ওয়ার্ডে যোগদান শিবিরের আয়োজন করা হয় তৃণমূলের পক্ষ থেকে।

এবং সেই অনুষ্ঠানে একাধিক সদস্য যোগদান করেন। কিন্তু এই যোগদান নিয়ে এবার তৃণমূলের অন্দরে শুরু হয়েছে তীব্র অন্তর্কলহ। দুই পক্ষের ভিন্ন দাবি নিয়ে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে তীব্র সমালোচনা। সম্প্রতি নদীয়ার শান্তিপুরে 200 জন সদস্য তৃণমূলে যোগদান করেন। আর এই নিয়েই শুরু হয়েছে বিতর্ক। দলের একাংশ যেমন দাবি করেছে, বিজেপি ও সিপিএম ছেড়ে এই সদস্যরা তৃণমূলে যোগ দিয়েছেন। তেমনি দলের অন্য আরেকটি অংশ দাবি করেছে, তৃণমূলের পুরনো কর্মীরাই নতুন করে দলে যোগদান করেছে। স্বাভাবিকভাবে তৃণমূল শিবিরে যোগদান নিয়ে এই বিতর্ক ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি করেছে।


ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর, 24 নম্বর ওয়ার্ডের সভাপতি রেবতী প্রামাণিক জানিয়েছেন, যারা তৃণমূলে যোগদান করেছেন তাঁরা অন্য দলের সদস্য নন। বরং প্রত্যেকেই তৃণমূলেরই পুরনো সক্রিয় সদস্য। আবার এই বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে শান্তিপুরের 24 নম্বর ওয়ার্ডের ঘাসফুল শিবিরের নেতা বিকাশ চন্দ্র সাহা ওয়ার্ড সভাপতি ক্ষমতা নিয়েই প্রশ্ন তুলেছেন। এই ঘটনাকে ঘিরে শান্তিপুরে তৃণমূলের অন্তর্কলহ বেশ ভালো রকমই শুরু হয়েছে বলে জানা যাচ্ছে। দলের একাংশ দাবি করছে, এই যোগদানের ফলে বিজেপি এবং বামেদের শক্তি খর্ব হয়েছে। সেরকমই অন্য অংশ দাবি করছে, এভাবে নিজের দলের সক্রিয় সদস্যদের যোগদান করানোয় দলের ভাবমূর্তি ক্ষুণ্ন হচ্ছে।

সব মিলিয়ে শান্তিপুরের তৃণমূল শিবিরের এই ঘটনা বিরোধীদের তীব্র কটাক্ষ করার সুযোগ করে দিচ্ছে। শান্তিপুরের বিজেপি নেতা বিপ্লব কর এই ঘটনার পরিপ্রেক্ষিতে তীব্র কটাক্ষ করেছেন তৃণমূলকে সার্কাস পার্টি বলে। অন্যদিকে সিপিআইএমের পক্ষ থেকে দাবি করা হয়েছে, তাঁদের দলের পক্ষে পক্ষ থেকে কেউ তৃণমূলের যোগদান করেননি। তাহলে তৃণমূলে যোগদানকারী সদস্যদের আসল রহস্য কী ? অন্যদিকে বিধানসভা নির্বাচনের আগে তৃণমূল শিবিরের এই অন্তর্কলহ যে দলকে বড় বিপর্যয়ের মুখে ফেলবে সে ব্যাপারে নিশ্চিত রাজনৈতিক মহলের অনেকেই। যথারীতি শান্তিপুরের এই দলবদলের ঘটনা নিয়ে যে বিতর্ক সৃষ্টি হয়েছে, তার রেশ কতদূর গড়ায় সেদিকেই এখন থাকবে নজর ওয়াকিবহাল মহলের।

 

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!