এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > শুধু তৃণমূলকে হারালেই হবে না? জেপি নাড্ডার বেঁধে দেওয়া নতুন লক্ষ্যে উড়তে পারে দিলীপদের ঘুম!

শুধু তৃণমূলকে হারালেই হবে না? জেপি নাড্ডার বেঁধে দেওয়া নতুন লক্ষ্যে উড়তে পারে দিলীপদের ঘুম!



প্রিয় বন্ধু মিড়িয়া রিপোর্ট – পশ্চিমবঙ্গের আগামী ২০২১ এর বিধানসভা নির্বাচনকে পাখির চোখ করে পশ্চিমবঙ্গের রাজনৈতিক ক্ষমতা দখলে উদ্যত পশ্চিমবঙ্গের প্রধান বিরোধী দল বিজেপি। গতকাল বৃহস্পতিবার বিজেপির নতুন রাজ্য কমিটির বৈঠকে দিল্লি থেকে ভার্চুয়াল ভাবে অংশগ্রহণ করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জগত প্রকাশ নাড্ডা। এই বিশেষ ভার্চুয়াল সভায় তিনি আগামী নির্বাচনে বিজেপি দলের জন্য যেমন লক্ষ্যমাত্রা বেঁধে দিলেন, তেমনি দলের সদস্যদের উজ্জীবিত করতে নানা বক্তব্যও রাখলেন। সেই সঙ্গে পশ্চিমবঙ্গের শাসকদল তৃণমূল কংগ্রেসের বিরুদ্ধে একাধিক অভিযোগ তুললেন।

গতকালের এই ভার্চুয়াল বৈঠকে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জগত প্রকাশ নাড্ডা জানালেন পশ্চিমবঙ্গে বিজেপি যথেষ্ট কম সময়ের মধ্যেই নিজেদের উল্লেখযোগ্য সাফল্য দেখাতে পেরেছে। দলের নেতাকর্মীদের দলের এই সাফল্য ধরে রেখে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে ৫০ % ভোট নিয়ে তৃণমূল সরকারকে উৎপাটনের নির্দেশ দিলেন তিনি। এ প্রসঙ্গে বিজেপি দলের নেতাকর্মীদের প্রতি তার বক্তব্য, ” আমরা পশ্চিমবঙ্গে ২০১১ সালে দুটি আসন এবং ৪ শতাংশ ভোট পেয়েছিলাম। ২০১৪-এ পেয়েছিলাম দুটি আসন এবং ১৮ শতাংশ ভোট। ২০১৯-এ সেই ভোট ৪০ শতাংশে পৌঁছেছে। আগামী বছর বিধানসভা ভোটে সেটাকে ৫০ শতাংশে নিয়ে যান। আমাদের পশ্চিমবঙ্গে মানুষকে স্বচ্ছ সরকার উপহার দিতে হবে।”

আগামী বিধানসভা নির্বাচনে নির্বাচন প্রসঙ্গে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জগত প্রকাশ নাড্ডা তৃণমূল সরকারকে তোষণের সরকার বলে অভিযুক্ত করে বললেন যে, মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ও স্বয়ং জানেন যে, তাঁর পায়ের তলা থেকে ক্রমশ মাটি সরে যাচ্ছে। পশ্চিমবঙ্গের জনগণ বিজেপিকে ক্ষমতায় আনতে উৎসুক। এজন্য বিজেপি দলের সমস্ত সদস্যকে সব রকম ভাবে প্রস্তুতি নিতে হবে।

আগামী নির্বাচনে বিজেপি দলের নেতাকর্মী তথা সদস্যদের উজ্জীবিত করতে তাদের প্রতি তিনি বলেন যে, ”সেবা হি সংগঠন’ ও ‘ফিড দা নিডি’ বিজেপি দলের এই দুই বিশেষ কর্মসূচিতে দলের নেতাকর্মীরা যথেষ্ট ভালোভাবে কাজ করতে পেরেছেন। এজন্য দলের সদস্যদের তিনি বিশেষভাবে ধন্যবাদ জানালেন। এ প্রসঙ্গে তিনি আরও জানালেন যে, শাসকদল তৃণমূলের কর্মীরা যখন রেশনের সামগ্রী লুণ্ঠনে নিজেদেরকে ব্যস্ত রেখেছিলেন তখন বিজেপি নেতা কর্মীরা বিপন্ন রাজ্যবাসীর পাশে দাঁড়িয়েছেন। প্রতিকূল অবস্থার মধ্যে তাদের খাদ্য সামগ্রী, মাস্ক ইত্যাদি বিলি করেছেন। তাই প্রতিকূল পরিস্থিতির সঙ্গে লড়াই করার ক্ষমতা বিজেপি সদস্যদের যথেষ্ট আছে বলে তাঁর অভিমত।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ করে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জানালেন যে, আয়ুষ্মান ভারত, প্রধানমন্ত্রী কিষান সম্মান নিধি বেশকিছু কেন্দ্রীয় সরকারি প্রকল্পের সুবিধা গুলি থেকে রাজ্যবাসীকে বঞ্চিত রেখেছে রাজ্য সরকার। এ প্রসঙ্গে বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি জানান, এ বিষয়ে আগামী বিধানসভা নির্বাচনে জনগণের কাছে রাজ্য সরকারের জবাবদিহি করতে হবে। জনগণ রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে রাজ্য সরকার প্রতি তার বক্তব্য, ” আগামী বিধানসভা ভোটে জনতাকে বলতে হবে, আপনার অধিকার মোদীজি আপনাকে দিচ্ছেন, আর মমতাজি সেটা নিতে দিচ্ছেন না। ”

অন্যদিকে, করোনা পরিস্থিতির মোকাবিলায় রাজ্য সরকার সম্পূর্ণ ব্যর্থ এবং সেইসঙ্গে রেশন, আম্ফান দুর্নীতিতে অভিযুক্ত বলে মন্তব্য করলেন বিজেপির সর্বভারতীয় সভাপতি। রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলে তিনি জানান যে, রাজ্য বিজেপির শতাধিক সদস্যকে হত্যা করেছে তৃণমূল কংগ্রেস। এ কারণে পশ্চিমবঙ্গকে জঙ্গলরাজের সঙ্গে তুলনা করেন তিনি। এ বিষয়ে মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি তাঁর বক্তব্য, ” যিনি নিজেকে গণতন্ত্রের চ্যাম্পিয়ন বলে তুলে ধরেন, এ ক্ষেত্রে তাঁর নীরবতা কি দ্বিচারিতা নয়? ”

অন্যদিকে গত মাসে বিশ্বভারতী বিশ্ববিদ্যালয়ের পাঁচিল ভাঙার ঘটনায় রাজ্য সরকারকে অভিযোগের কাঠগড়ায় তুললেন বিজেপির কেন্দ্রীয় সভাপতি। এ প্রসঙ্গে তিনি জানান, তৃণমূল কর্মীরা বিশ্বভারতীতে জমি মাফিয়াদের সঙ্গে মিলে রাজনীতি করছে। বিশ্বভারতীর এই অবস্থায় রবীন্দ্রনাথ ঠাকুরের আত্মা কাঁদছে। বাংলার মানুষ শিক্ষিত। তাঁরা তৃণমূলকে ক্ষমা করবেন না।”

প্রসঙ্গত, বিজেপি দলকে জেলা থেকে বুথ স্তর পর্যন্ত বিশেষ ভাবে শক্তিশালী করতে বিজেপি দলের সমস্ত গুরুত্বপূর্ণ নেতা-কর্মীদের উপরে বিশেষ দায়িত্ব দিলেন তিনি। দলকে সর্বভাবে শক্তিশালী করতে রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের উপরে বাড়তি দায়িত্ব দিলেন তিনি। সেইসঙ্গে কেন্দ্রের বিভিন্ন প্রকল্পের বিষয়ে রাজ্যবাসীকে অবহিত করার নির্দেশও দিলেন তিনি।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!