এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়ে পদ পাননি সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ দুই নেতা! তীব্র জল্পনা শুরু রাজ্যে

তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দিয়ে পদ পাননি সবথেকে গুরুত্বপূর্ণ দুই নেতা! তীব্র জল্পনা শুরু রাজ্যে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – 2021 সালে বিজেপির কাছে প্রধান টার্গেট বাংলার। তবে তৃণমূলের মত প্রবল প্রতাপশালী শক্তিকে বধ করতে হলে শাসক দলকে যে ভাঙতে হবে, তা উপলব্ধি করেছে ভারতীয় জনতা পার্টি। আর তাই তৃনমূলের একদা সেকেন্ড ইন কমান্ড মুকুল রায় বিজেপিতে আসার পরেই তৃনমূল ভাঙানোর কাজ শুরু হয়ে যায়। পরবর্তীতে যত দিন যায়, ততই বাংলায় শক্তিশালী হতে শুরু করে গেরুয়া শিবির। তবে এই সমস্ত কিছুই যে তৃনমূল থেকে আসা নেতাদের জন্যই, তা নতুন করে বলার অপেক্ষা রাখে না। তবে বিজেপিকে এত কিছু দিয়েও তেমনভাবে কোনো জায়গা পাননি মুকুল রায়।

আর মুকুল রায়ের পাশাপাশি আরও একটি নাম উঠে এসেছে। যিনি শোভন চট্টোপাধ্যায়। একসময় তারা তৃনমূলের শীর্ষ নেতা ছিলেন। কিন্তু এখন তারা বিজেপিতে থেকেও পদহীন। তাই সেই মুকুল রায় এবং শোভন চট্টোপাধ্যায়ের রাজনৈতিক ভবিষ্যৎ নিয়ে তীব্র জল্পনা তৈরি হয়েছে। বারবার মুকুল রায়কে কখনও কেন্দ্রীয় মন্ত্রী আবার কখনও বা বড় দলীয় পদ দেওয়া হবে বলে সম্ভাবনা তৈরি হয়েছে। কিন্তু তা বাস্তবায়িত হয়নি। ফলে তার মত নেতার সাহায্যে বিজেপি আগামী দিনে তৃনমূলকে ভাঙাতে পারে। আর এই কথা বেশ ভালোই জানেন বিজেপির শীর্ষ নেতৃত্ব। কিন্তু তা সত্ত্বেও কোনো এক অজ্ঞাত কারণে তাকে জায়গা দিচ্ছে না বিজেপি।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে রাজ্যের প্রাক্তন মন্ত্রী শোভন চট্টোপাধ্যায় প্রায় এক বছর আগে বিজেপিতে নাম লেখালেও তাকে কোনো জায়গা দেওয়া হয়নি। মুকুল রায় তাও সক্রিয় থাকলেও, তাকে সেভাবে কোথাও দেখা যায়নি। বান্ধবী বৈশাখী বন্দ্যোপাধ্যায়কে নিয়ে আপত্তি থাকলেও, তাকে নিয়ে এখন কার্যত নীরবতাই পালন করছেন রাজ্যের এই প্রাক্তন মন্ত্রী। বলা বাহুল্য, এই দুই হেভিওয়েট নেতার এখন আবার নতুন করে দলবদলের জল্পনা ছড়িয়ে পড়েছে। তাই এককালে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পর তৃণমূলে এই দুই নেতা সর্বেসর্বা হলেও তারা বিজেপিতে তেমন কোনো পদ না পাওয়ায় তারা নতুন কোনো রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নিতে পারেন বলে মনে করছে রাজনৈতিক মহল। এখন বিজেপিতে তাদের গুরুত্বপূর্ণ জায়গা দেওয়া হয়, নাকি তারা নতুন কোনো রাজনৈতিক সিদ্ধান্ত নেন, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!