এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৈরি হচ্ছে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা, আশা আশঙ্কায় নেতৃত্বরা!

তৈরি হচ্ছে তৃণমূলের প্রার্থী তালিকা, আশা আশঙ্কায় নেতৃত্বরা!



সামনেই পৌরসভা ভোট। যদি সমস্ত কিছু ঠিকঠাক থাকে তাহলে রাজ্য সরকারের ইচ্ছা অনুযায়ী আগামী 12 এপ্রিল হতে চলেছে কলকাতা এবং হাওড়া পৌরসভার ভোট। পরবর্তীতে আগামী 26 এপ্রিল অনুষ্ঠিত হবে রাজ্যের বাকি পৌরসভাগুলো নির্বাচন। তবে একটি নির্বাচনের সব থেকে বেশি চমক যেখানে থাকে, তা হল প্রার্থী তালিকা। এবারের এই পৌরসভা নির্বাচন শাসকদলের কাছে তেমন কঠিন লড়াই, ঠিক তেমনই বিরোধীদের কাছেও অত্যন্ত কঠিন লড়াই। লোকসভার আগে রাজ্যে যে সমস্ত নির্বাচন হয়েছে, সেখানে তৃণমূলকে অতটা বেগ পেতে হয়নি। কিন্তু লোকসভা থেকে বিজেপির উত্থানে এখন তৃণমূল রীতিমতো আতঙ্কিত।

তাই এবার পৌরসভা নির্বাচনে ভালো এবং স্বচ্ছ মুখদের প্রার্থী করতে উদ্যোগী হয়েছে তাঁরা। তবে পৌরসভা নির্বাচনের যে খসড়া তালিকা ইতিমধ্যেই প্রকাশিত হয়ে গিয়েছে, সেখানেও যথেষ্ট চিন্তায় রয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। কেননা অনেক কাউন্সিলরদের ওয়ার্ড সংরক্ষিত হয়ে যাওয়ায় সেই সমস্ত কাউন্সিলরদের কি হবে, তা নিঃসন্দেহে ভাবাচ্ছে রাজ্যের শাসক দলকে। শুধু কাউন্সিলার নয়, কিছু ক্ষেত্রে রাজ্যের অনেক পৌরসভার চেয়ারম্যান এবং ভাইস চেয়ারম্যানের ওয়ার্ডও সংরক্ষিত হয়ে গিয়েছে। ফলে তাঁদেরকে অন্য ওয়ার্ড থেকে প্রার্থী করা হবে, নাকি করা হবে না, তার দিকে নজর রয়েছে সকলেরই।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তবে এটা এক প্রকার নিশ্চিত যে, এবার প্রশান্ত কিশোরের টিমের বিভিন্ন পৌরসভা এবং ওয়ার্ডগুলিতে ঘুরে যে সমীক্ষা হাতে এসেছে, সেই সমীক্ষা মোতাবেকই তৃণমূল প্রার্থী তালিকা স্থির করবে। অর্থাৎ এতদিন যাঁরা কাউন্সিলার ছিলেন, তাঁদের ভাবমূর্তি কেমন, তাঁরা এলাকায় কেমন কাজ করেছে ইত্যাদি নিয়ে সাধারন মানুষের কাছ থেকে জনমত সংগ্রহ করেছে এই টিম। তাই সেই টিম তাদের রিপোর্ট দলের কাছে তুলে দিয়ে কাদের প্রার্থী করলে ভালো হয়, এলাকার মানুষ কাকে চাইছেন, তার ব্যাপারে সুপারিশ করবেন। আর তার ভিত্তিতেই তৃণমূল নেতৃত্ব ওয়ার্ডগুলির প্রার্থী ঠিক করবে বলে জানা যাচ্ছে। ইতিমধ্যেই এই ব্যাপারে পাঁচজনের একটি কমিটি তৈরি করে দিয়েছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

যেখানে রয়েছেন সুব্রত বক্সি, পার্থ চট্টোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম শুভেন্দু অধিকারী এবং অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ের মত নেতৃত্বরা। মূলত যদি কোনো একটি ওয়ার্ড থেকে সর্বসম্মতিক্রমে কোনো একটি নাম ঠিক হয়ে যায়, তাহলে তাঁকে প্রার্থী করতে টাউন নেতৃত্বই শেষ সিদ্ধান্ত নেবে। কিন্তু যদি এই ব্যাপারে টাউন নেতৃত্বের কাছে একাধিক নাম আসে, তাহলে তা জেলা নেতৃত্তের কাছে পাঠিয়ে দিয়ে চূড়ান্ত সিদ্ধান্ত নেওয়া হবে। অন্যদিকে জেলা নেতৃত্ব যদি বির্তকের অবসান ঘটাতে না পারে, তাহলে রাজ্যস্তরে গঠিত কমিটি সেখানকার প্রার্থী তালিকা ঠিক করবে বলে খবর।

তবে তৃণমূলের প্রার্থী হওয়ার ব্যাপারে স্থানীয় স্তরে সেই ব্যক্তির ভাবমূর্তি এবং জনপ্রিয়তা যে ভালোভাবে খতিয়ে দেখবে তৃণমূল কংগ্রেস, তা প্রকার নিশ্চিত। আর এই সমস্ত কিছু অনুধাবন করেই এখন তৃণমূলের অনেক বর্তমান কাউন্সিলরদের ঘুম উড়তে শুরু করেছে। এখন পৌরসভা নির্বাচনের সংরক্ষণের দোরগোড়ায় পড়ে এবং ভাবমূর্তি নিয়ে প্রশ্ন ওঠায় তৃণমূলের কোন কোন কাউন্সিলরদের টিকিট বাতিল হয়, আর কারা কারা জায়গা পান, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

আপনার মতামত জানান -

ট্যাগড
Top
error: Content is protected !!