এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > জয়ের শংসাপত্র হাতে পেতেই আগাম বিজয়োৎসবের প্রস্তুতি ঘাসফুল শিবিরে

জয়ের শংসাপত্র হাতে পেতেই আগাম বিজয়োৎসবের প্রস্তুতি ঘাসফুল শিবিরে



আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনকে কেন্দ্র করে আদালতে আইনী জটিলতা যখন তুঙ্গে ঠিক সেই সময়েই বাঁকুড়ার বিষ্ণুপুর মহকুমার বিজয়ী প্রার্থীদের হাতে শংসাপত্র তুলে দিলেন স্বয়ং বিষ্ণুপুর মহকুমা শাসক। উল্লেখ্য আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে এই মহকুমা থেকে বিরোধীরা নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করার জন্যে কোনো প্রার্থীই মনোনীত করতে পারেনি। সেই কারণে সব কটি আসনেই বিনা প্রতিদ্বন্দীতায় জয়লাভ করেছে রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। অবশ্য বিরোধীরা এই প্রসঙ্গে অভিযোগ জানিয়ে বলেছেন শাসক দলের ‘সন্ত্রাসে’র কারণেই তাঁরা মনোনয়ন পত্র পেশ করতে অসমর্থ হয়েছেন। এদিন জয়ের শংসা পত্র নিয়ে বেরিয়ে তৃণমূল কংগ্রেস দলের কর্মী সমর্থকরা তাঁদের জয়ের আনন্দ , সবুজ আবীর সহযোগে পালন করে।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এদিনের বিজয়োৎসব পালনে উপস্থিত ছিলেন বাঁকুড়া জেলা পরিষদের বিদায়ী সভাধিপতি অরূপ চক্রবর্তী, মন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা। উল্লেখ্য আসন্ন পঞ্চায়েত নির্বাচনে বিষ্ণুপুর মহকুমায় বিনা প্রতিদ্বন্দ্বীতায় বিজয়ী গ্রাম পঞ্চায়েতের ৭৫৩ জন , পঞ্চায়েত সমিতির ১৫৭ জন এবং জেলা পরিষদের ১৩ জন তৃণমূল কংগ্রেস মনোনীত প্রার্থীকে মহকুমা প্রশাসনের পক্ষ থেকে শংসাপত্র তুলে দেওয়া হয়। জেলা পরিষদের দুটি আসনে কংগ্রেসের তরফ থেকে মনোনয়ন পত্র পেশ করা হলেও অন্তিম সময়ে তা প্রত্যাহার করে নেওয়া হয়। এরফলে স্বাভাবিক ভাবেই বিষ্ণুপুর মহকুমার সমস্ত আসনে তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থীরা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয়ী হন। জেলার বিষ্ণুপুর মহকুমার দলের নির্বাচনী সাফল্য প্রসঙ্গে রাজ্যের গ্রামোন্নয়ন দফতরের প্রতিমন্ত্রী শ্যামল সাঁতরা বললেন, “এই জয় মানুষের জয়। উন্নয়নের জন্যই বিরোধীরা প্রার্থী দিতে পারেনি। যদিও বিরোধীদের অভিযোগ সন্ত্রাসের জন্যই প্রার্থী দেওয়া সম্ভব হয়নি।”

আজ থেকে প্রিয় বন্ধু বাংলার অফিসিয়াল ফেসবুক আইডি হল – Priyo Bandhu Bengali আমাদের সব খবর, সমস্ত আপডেট পাওয়া যাবে এখানেই – https://www.facebook.com/pbmediaofficial/

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!