এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > তৃণমূলে শুদ্ধিকরণ গুলিকাণ্ডে নাম জড়াতেই রাতারাতি পদ গেল হেভিওয়েট নেত্রীর, দায়িত্বে প্রাক্তন

তৃণমূলে শুদ্ধিকরণ গুলিকাণ্ডে নাম জড়াতেই রাতারাতি পদ গেল হেভিওয়েট নেত্রীর, দায়িত্বে প্রাক্তন



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – গতকাল মঙ্গলবার বাঁশবেড়িয়ার বেলতলা বাজারে হঠাৎ করে প্রকাশ্যে গুলি চালানো হয়। ভরা বাজারে গুলি ছোড়ার ঘটনায় এলাকায় আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। গুলিবিদ্ধ হন তৃণমূল নেতা আদিত্য নিয়োগী। বাজার করতে গিয়ে আক্রান্ত হন তিনি। পিঠে গুলি লাগার পর দ্রুত তাঁকে নিয়ে যাওয়া হয় হাসপাতালে। এখনো তিনি হাসপাতালে ভর্তি আছেন। এই গুলি কাণ্ডে অভিযুক্ত করা হয়েছে স্থানীয় তৃণমূল নেতা সত্য রঞ্জন শীল বা সোনা শীলকে। অভিযোগ আসার পরেই তাঁর স্ত্রী অরিজিতা শীল, যিনি পুরসভার প্রশাসক পদে ছিলেন, তাঁকে দ্রুত অপসারণ করা হয়েছে।

তৃণমূল নেতা আদিত্য নিয়োগীকে গুলি চালানোর ঘটনায় অভিযুক্ত করা হয়েছে তৃণমূল নেতা সোনা শীলকে। জানা গেছে, দুই তৃণমূল নেতার মধ্যে দীর্ঘদিনের ঝগড়া ছিল। আদিত্য নিয়োগীকে গুলি করে হত্যার পরিকল্পনা করেছিলেন সোনা শীল, এমন অভিযোগ উঠেছে দলের পক্ষ থেকে। এ ছাড়াও সোনা শীলের বিরুদ্ধে একাধিক দুর্নীতির অভিযোগও উঠেছে। অভিযোগ উঠেছে, তৃণমূল নেতা সোনা শীল ও তাঁর স্ত্রী তথা বাঁশবেড়িয়া পুরসভার প্রাক্তন প্রশাসক অরিজিতা শীল একাধিক আর্থিক দুর্নীতির সঙ্গে জড়িত রয়েছেন। নির্বাচনের আগে দলের সঙ্গে অন্তর্ঘাতের চেষ্টাও করেছিলেন সোনা শীল, এমনই গুরুতর অভিযোগ উঠেছে তাঁর বিরুদ্ধে।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

একাধিক অভিযোগ আসার পর দ্রুত বাঁশবেড়িয়া পুরসভার প্রশাসকের পদ থেকে অপসারিত করে দেয়া হয়েছে অরিজিতা শীলকে। সেস্থলে আনা হয়েছে প্রাক্তন উপ পুরপ্রধান আদিত্য নিয়োগীকে। তবে, আদিত্য নিয়োগীর প্রতি গুলি চালানোর ঘটনায় তাঁদের কোন যোগ নেই বলে দাবি করেছেন অরিজিতা শীল। তদন্ত না করে কারোর নামে বদনাম করা অনুচিত বলেই, মনে করছেন তিনি। গতকালের এই ঘটনা তৃণমূলের গোষ্ঠীদ্বন্দ্বকে আবার প্রকাশ্যে এনে দিয়েছে।

নতুন সরকার গঠনের মাত্র ৭ দিনের মধ্যে দলের এক নেতাকে লক্ষ্য করে অপর নেতার গুলি ছোড়ার ঘটনা দলকে যথেষ্ট অস্বস্তিতে ফেলে দিয়েছিল। এ কারণেই পুরপ্রশাসক পদ থেকে অভিযুক্ত তৃণমূল নেতার স্ত্রীকে অপসারণ করে দলকে শুদ্ধিকরণের পথে হাঁটল রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল। রাজনৈতিক বিশ্লেষকদের ধারণা, এবারের বিধানসভা নির্বাচনে দুর্নীতি একটি বড় ইস্যু হয়ে দাঁড়িয়েছিল। তাই আগামী দিনে দলকে দুর্নীতি থেকে মুক্ত রাখতে সচেষ্ট হবে তৃণমূল। স্বচ্ছ প্রশাসন গড়ে তোলার চেষ্টা করবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!