এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > সদ্য হওয়া উপনির্বাচন,তৃনমূলের সেমিফাইনাল , বিজেপির কাছে গুরুত্বহীন

সদ্য হওয়া উপনির্বাচন,তৃনমূলের সেমিফাইনাল , বিজেপির কাছে গুরুত্বহীন



আসন্ন পঞ্চায়েত ভোটের আগে নোয়াপাড়া ও উলুবেড়িয়া কেন্দ্রের উপনির্বাচনকে শাসকদলের মতে সেমিফাইনাল রাউন্ড। সেখানে এই উপনির্বাচন গুরুত্তহীন বলে দাবি করছে বিজেপি। বিজেপির দলীয় সূত্রে দাবি, এই দুই কেন্দ্রের উপনির্বাচনকে তাঁরা গুরুত্ব দিচ্ছে না। তাঁদের লক্ষ্য ২০১৯ ও ২০২১ এর ভোট। তবে রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের মতে , মুকুল রায়ের তৃনমূল ছেড়ে বিজেপিযে যোগ দেওয়ার পরই এই উপনির্বাচনের গুরুত্ব বেশি। আদৌ মুকুল-এফেক্ট কত তা কার্যকরী হল তা এই নির্বাচনের ফলই স্পস্ট করে দেবে। অন্যদিকে রাজ্যে যখন ২০০ র বেশি আসন তৃনমূলের দখলে সেখানে বিজেপির কাছে সব কটি নির্বাচনই মূল্যবান । বিজেপি নিজেকে রাজ্যের প্রধান রাজনৈতিক দল হিসেবে প্রতিষ্টা করতে চাইলে পঞ্চায়েত ভোটের আগেই কোমর কষতে হবে। কিন্তু বিজেপির বক্তব্য তো অন্য ইঙ্গিত দিচ্ছে।

গত ২৯জানুয়ারি এই দুই কেন্দ্রে উপনির্বাচন সম্পন্ন হয় । এর পরই বিজেপির সাধারণ সম্পাদক দেবশ্রী চৌধুরী-র কাছে ভোট প্রসঙ্গে জানতে চাওয়া হলে তিনি বিস্ফোরক মন্তব্য করে বলেন”পশ্চিমবঙ্গে বিজেপির লক্ষ্য ২০১৯ এবং ২০২১। এই লক্ষ্যেই এগিয়ে চলেছে বিজেপি। ”
উল্লেখ্য, এই উপনির্বাচনের দিকে তাকালে শাসক ও বিজেপির লড়াইটা দেখে বোঝার উপায় ছিল না রাজ্যে বিজেপির সাংগঠনিক শক্তি নেই । বিজেপির তরফে ব্যাপক প্রচার সভা, পোস্টার ,ফ্লেক্স দলীয় পতাকা দিয়ে মুড়ে ফেলা হয়েছিল এই দুই কেন্দ্রকে। বিজেপি সূত্রে দাবি করা হয়েছিল এই উপনির্বাচন গুরুত্বপূর্ণ । তাহলে হঠাৎ কি এমন হল যে এক লহমায় ‘গুরুত্বহীন’ হয়ে গেল এই উপনির্বাচন?
তৃণমূলের মতে, মুকুল রায়ের উপর দলের আস্থা থেকেই এই দুই উপনির্বাচনকে গুরুত্ব দিচ্ছিল গেরুয়া শিবির। কিন্তু প্রার্থী হিসেবে মঞ্জু বসুর বিতর্কে নাস্তানাবুদ হতে হয় বিজেপির রাজ্য তথা কেন্দ্রীয় নেতৃত্বকে। এই সুযোগেই পাল্টা শাসকের তরফে প্রচার করা হয়। যার ফলে কিছুটা হলেও চাপে পড়ে মুকুল রায় সহ ওই এলাকার বিজেপি নেতারা। এর প্রভাব যে ভোট সংখ্যায় পড়বে তা জেনেই বিজেপির রাজ্য সম্পাদক আগেভাগেই সাফাই দিয়ে রাখছেন ।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!