এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূলেরই হেভিওয়েট বিধায়ক ‘লম্পট, অসভ্য’ বললেন রাজ্যের অন্যতম শীর্ষমন্ত্রীকে!

তৃণমূলেরই হেভিওয়েট বিধায়ক ‘লম্পট, অসভ্য’ বললেন রাজ্যের অন্যতম শীর্ষমন্ত্রীকে!



যেখানে দলে দলে বিরোধীরা তাঁদের দলে ভীড়ছেন বলে গর্বে বুক ফুলিয়ে তর্জন-গর্জন করছে তাঁরা! দলের মজবুত সংগঠনের নজির তুলে জনসভায় লোকসভা ভোটের আগে ‘মোদী হটাও’ বুলি তুলে মঞ্চ কাঁপাচ্ছেন তাঁরা। সেখানে তাঁদের শিবিরেই এমন উলটপুরাণ নজির! খবর পড়ে চক্ষু চড়ক গাছ হলেও এমই ছবি দেখা গেলো তাও প্রকাশ্যে। কথা হচ্ছে,রাজ্যের শাসকদলের। এদিন তাঁদের গোষ্ঠীকোন্দলই প্রকাশ্যে এলো যা নিয়ে রীতিমতো উদ্বেগে নবান্নকর্তারা। আসুন দেখে নেওয়া যাক,মূল খবরটি।

কাঁকুড়গাছিতে ‘ওয়াল অফ ফেম’ নামক একটি নির্মাণকার্যকে কেন্দ্র করে দলীয় অন্দরেই মতানৈক্য চলছিল তৃণমূলের দুটি প্রবীন নেতা সাধন পান্ডে এবং পরেশ পালের মধ্যে। সাধনবাবু ক্রেতা সুরক্ষা দফতরের মন্ত্রী আর পরেশ পাল বেলেঘাটার বিধায়ক। তাঁদের মধ্যে মতবিরোধ এমন পর্যায়ে পৌছালো যে রীতিমতো প্রকাশ্যেই বচসা বাধিয়ে দিলেন তাঁরা। এদিন সকালেই নির্মাণের একটি অংশ ভাঙাকে কেন্দ্র করে মন্ত্রীকে উদ্দেশ্য করে কটূক্তি করে ফেললেন বিধায়ক। “লম্পট,বদমাশ,অসভ্য”এসব তকমা জুড়ে দিলেন বিশিষ্ট মন্ত্রীর নামের সঙ্গে। এই অপমানজনক মন্তব্যের পর বরিষ্ঠ মন্ত্রী পাল্টা জবাবে বিধায়ককে উদ্দেশ্য করে বলেন,” ওর চৈতন্য হোক। আমি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের মন্ত্রীসভার মন্ত্রী কোনো বিধায়কের কথার উওর দেব না। এর উওর দেবেন মুখ্যমন্ত্রী।”

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

 এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এদিন আবার সাধনবাবুর দিকে অভিযোগের আঙুল তুলে বেলেঘাটার বিধায়ক পরেশ পাল জানান যে, মানিকতলার বিধায়ক সাধনবাবু নাকি বিধানসভা এলাকায় ঢুকে উন্নয়নের কাজ বিগড়ে দেবার চেষ্টা করছেন। নিজের এলাকায় তো কোনো কাজ করেনইনা,বরং দলের অন্যান্য কাজেও হস্তক্ষেপ কর ক্ষতিসাধনের চেষ্টায় রয়েছেন তিনি। এছাড়া তিনি তৃণমূলের কাউন্সিলার থেকে মন্ত্রী অনেকেরই ক্ষতি করার জন্য নানান রকম ফিরিক খুঁজছেন। এসব অভিযোগের পাশাপাশি, প্রাক্তন কেন্দ্রীশ মন্ত্রী অজিত পাঁজার মৃত্যুর দায়ও তিনি সাধন পান্ডের উপরই চাপালেন। তবে এসব অভিযোগের ভিত্তিতে কোনো প্রতিক্রিয়া এখনো পাওয়া যায়নি ক্রেতাসুরক্ষামন্ত্রীর তরফ থেকে। তবে এধরনের প্রকাশ্য তর্কাতর্কির জেরে শাসকদলের অন্দরে বেশ চাপানউতোর চলছে সম্প্রতি। যা রাজ্যরাজনীতির উওাপ বাড়াচ্ছে ক্রমশ,এমনটাই জানা যাচ্ছে রাজনৈতিক সূত্রের খবর থেকে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!