এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃনমূল থেকে একের পর বিধায়ক আসছে বিজেপিতে, একাংশ খুশি, ক্ষোভ বাড়ছে আর একাংশের

তৃনমূল থেকে একের পর বিধায়ক আসছে বিজেপিতে, একাংশ খুশি, ক্ষোভ বাড়ছে আর একাংশের



লোকসভা ভোটে তৃনমূলের বিপর্যয় এবং বিজেপির প্রবল উত্থানের পরই দিকে দিকে শাসকদলের জনপ্রতিনিধি থেকে নেতা-কর্মী-সমর্থকরা বিজেপিতে যোগদান করতে শুরু করেন। ইতিমধ্যেই একাধিক পৌরসভা এবং একাধিক বিধানসভা তৃণমূল বিধায়ক ও কাউন্সিলররা পদ্ম শিবিরে নাম লিখিয়েছেন।

গতকালই দিল্লিতে বিজেপির সদর দপ্তরে গিয়ে বনগাঁ উত্তরের বিধায়ক বিশ্বজিৎ দাস এবং বনগাঁ পৌরসভার তৃণমূল কাউন্সিলররা বিজেপিতে যোগদান করেন।তবে তৃণমূল থেকে এই জনপ্রতিনিধিরা বিজেপিতে এলেও এখন বিজেপির পুরনো কর্মীরা এই ব্যাপারে প্রবল চিন্তায় পড়েছেন।

একাংশের দাবি, একসময় তৃণমূলের এই নেতা, কাউন্সিলরদের বিরুদ্ধেই বিজেপি নেতাদের ওপর অত্যাচার চালানো হত বলে অভিযোগ ওঠে। ফলে শাসকদলের তরফে সেই নেতা, কাউন্সিলররা এখন বিজেপিতে এসে তাদের মাথার উপর যদি ছড়ি ঘোরায়, তাহলে গেরুয়া শিবিরের পুরনো কর্মীরা তা কোনোমতেই মেনে নেবে না।

তাই বিজেপির পুরনো কর্মীদের একাংশের দাবি, বনগাঁর তৃণমূল বিধায়ক এবং বনগাঁ পৌরসভার তৃণমূল কাউন্সিলররা বিজেপিতে গেলেও তাদের এখনই যেন কোনো পদ না দেওয়া হয়। আর এইখানেই তৈরি হয়েছে দ্বন্দ্ব। তাহলে কি এবার বিজেপিতেও আদি বনাম নব্যের সংঘাত শুরু হয়ে গেল!

এদিকে এদিন বনগাঁ উত্তরের তৃণমূল বিধায়ক এবং বনগাঁ পৌরসভার 12 জন কাউন্সিলার বিজেপিতে যোগ দিলেও সেই ব্যাপারে পাল্টা গেরুয়া শিবিরকে খোঁচা দিয়েছেন উত্তর 24 পরগনা জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা খাদ্যমন্ত্রী জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

 

এদিন তিনি বলেন, “12 জন কাউন্সিলরের মধ্যে 6 জন আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করছেন। দিল্লিতে বেড়ানোর নাম করে নিয়ে গিয়ে তাদের বিজেপি অফিসে নিয়ে যাওয়া হয়েছে। জোর করে উত্তরীয় পড়ানো হয়েছে। বনগাঁয় ফিরেই তারা নিজেদের ভূমিকা দেখাবেন। আর যে বিধায়ক বিজেপিতে গেছে ও সস্তায় বিধায়ক হয়েছিল। অন্তত কুড়ি বছর পরে ওর টিকিট পাওয়া উচিত ছিল। কিন্তু ওকে আগেই দেওয়া হয়েছে।” তবে জ্যোতিপ্রিয় মল্লিকের এহেন দাবি মানতে নারাজ বিজেপি।

এদিন এই প্রসঙ্গে বারাসাত সাংগঠনিক জেলা বিজেপির সভাপতি বিপ্লব হালদার বলেন, “তৃণমূল অনেক কিছুই দাবি করে। তাদের সঙ্গে ছয়জন রয়েছে বলে ওরা এখন মিথ্যা প্রচার করছে। শুভবুদ্ধিসম্পন্ন মানুষ এখন তৃণমূল থেকে নিষ্কৃতি পেতে চাইছেন। তাই সকলেই উন্নয়নের জন্য বিজেপিতে যোগ দিচ্ছেন।”

সব মিলিয়ে এবার লোকসভা ভোটে ভালো ফলাফল হওয়ার পরেই একের পর এক তৃণমূলের জনপ্রতিনিধি বিজেপিতে নাম লেখালেও বিজেপির অন্দরেই নব্য বনাম আদির সংঘাতের আতঙ্ক দেখতে শুরু করেছেন অনেকে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!