এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > তৃণমূলের ‘প্রাক্তন’, অধুনা সাংসদ এবার পৌরসভা দখলে বিজেপির মুখ, জেনে নিন!

তৃণমূলের ‘প্রাক্তন’, অধুনা সাংসদ এবার পৌরসভা দখলে বিজেপির মুখ, জেনে নিন!



দলের সঙ্গে সংঘাত করে গত লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির টিকিটে কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্র থেকে জয়লাভ করেন তৃণমূলের প্রাক্তন যুবনেতা নিশীথ প্রামাণিক। এককালে এই নিশীথবাবুর দাপটে বিরোধীদের কোচবিহার জেলায় প্রবেশে ছিল নিষেধাজ্ঞা‌। সেদিক থেকে বিরোধীরা তেমনভাবে এই জেলায় দাগ কাটতে পারত না। কিন্তু নিশীথ প্রামাণিক বিজেপি সাংসদ হওয়ার পরেই দিনহাটা শহর সহ গোটা কোচবিহার জেলা জুড়ে বিজেপির উত্থান ঘটতে শুরু করে। আর তৃনমূলের প্রাক্তন এই যুব নেতাকে দিয়েই দিনহাটা পৌরসভা নিজেদের দখলে আনতে তৎপর হয়ে উঠেছে গেরুয়া শিবির।

জানা গেছে, ইতিমধ্যেই দিনহাটা পৌরসভায় বিজেপিকে জেতানোর জন্য দলের তরফে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামাণিককে। আর দায়িত্ব পেয়েই বিন্দুমাত্র সময় নষ্ট না করে নিজের প্রাক্তন দল তৃণমূল কংগ্রেসকে কুপোকাত করতে ময়দানে নেমে ব্লু প্রিন্ট তৈরি করা শুরু করেছেন এই বিজেপি সাংসদ। বস্তুত, কোচবিহার লোকসভা কেন্দ্রে বিজেপি দখল করার পর সব থেকে বেশি অশান্তি হয়েছে দিনহাটা এলাকায়।

তৃণমূল এবং বিজেপির রাজনৈতিক সংঘর্ষে রীতিমতো ঘুম উড়েছিল এখানকার মানুষের। কিন্তু এবার সেই দিনহাটা পৌরসভা তৃণমূলের কাছ থেকে নিজেদের দখলে আনতে বিজেপির তরফে নিশীথ প্রামাণিককে দায়িত্ব দিয়ে সেই নিশীথবাবুকে অগ্নিপরীক্ষার মুখে ফেলে দেওয়া হল বলেই মত রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের। কিন্তু এই লড়াইয়ে তিনি কতটা উত্তীর্ণ হবেন! এদিন এই প্রসঙ্গে একটি কার্যালয়ের উদ্বোধন করে কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ নিশীথ প্রামাণিক বলেন, “বহুবার দিনহাটায় বিজেপির কার্যালয়ের উপর তৃণমূলের দুষ্কৃতীরা আক্রমণ করেছে। পৌরসভার চেয়ারম্যানের নেতৃত্বে কার্যালয় বুলডোজার দিয়ে গুঁড়িয়ে দেওয়া হয়েছে। কর্মীরা এতদিন রাস্তার মোড়ে দাঁড়িয়ে নেতাকর্মীদের বাড়িতে বসে দলের কাজকর্ম চালাতেন। পৌরসভা নির্বাচনকে সামনে রেখে বসার জায়গা করা হল। এখানে বিভিন্ন মিটিং থেকে শুরু করে নির্বাচন পরিচালনার কাজ করা হবে।”

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

তবে বিজেপি নিশীথ প্রামাণিককে দিয়ে এই পৌরসভা দখলের ব্যাপারে উদ্যোগী হলেও, তাতে গুরুত্ব দিতে নারাজ তৃণমূল এবং বামেরা। এদিন এই প্রসঙ্গে সিপিএম নেতা তারাপদ বর্মণ বলেন, “বিজেপি যতই হাইটেক নির্বাচনী কার্যালয় খুলুক, দখল ও বিভেদের রাজনীতি দিনহাটার বাম সংস্কৃতি চেতনা সম্পন্ন মানুষ তাদের পর্যুদস্ত করবে।” অন্যদিকে এই ব্যাপারে তৃণমূল বিধায়ক তথা দিনহাটা পৌরসভার চেয়ারম্যান উদয়ন গুহ বলেন, “বিজ্ঞাপন দিয়ে যাদের প্রার্থী খুজতে হয়, তাদের কার্যালয় খুলে কি কিছু লাভ হবে!” তবে বিশেষজ্ঞরা বলছেন, লোকসভা নির্বাচনে তৃণমূল থেকে বিজেপিতে গিয়ে নিশীথ প্রামানিক তার অস্তিত্ব জানান দিয়েছেন।

তৃণমূলের বিরুদ্ধে লড়াই করে লোকসভায় জিতে তিনি প্রমান করে দিয়েছেন, কোচবিহার জেলায় তাঁর সঙ্গে লড়াই করা অত সহজ নয়। তাই তার মত দাপুটে ব্যক্তিত্বের ওপর ভরসা রেখেই এবার দিনহাটা পৌরসভা দখল করে তৃণমূলকে চ্যালেঞ্জ জানাতে চাইছে ভারতীয় জনতা পার্টি। আর বিজেপির তরফে দলীয়ভাবে দায়িত্ব পাওয়ার পর এবার নির্বাচনী কার্যালয় খুলে, নিজের প্রাক্তন দল তৃণমূল কংগ্রেসের অস্বস্তিকে বাড়িয়ে দিতে ময়দানে নেমে পড়লেন কোচবিহারের বিজেপি সাংসদ।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!