এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > বামভোটে ধ্বস, কিন্তু তা এসেছে তৃণমূলের দিকেই দাবি নিচুতলায়, স্বস্তি ফিরছে ঘাসফুল শিবিরে

বামভোটে ধ্বস, কিন্তু তা এসেছে তৃণমূলের দিকেই দাবি নিচুতলায়, স্বস্তি ফিরছে ঘাসফুল শিবিরে



এবারের লোকসভা ভোটে সংগঠনের অনেকটাই ভেঙে পড়া বামেদের ভোট বিজেপিতে চলে যেতে পারে বলে আশঙ্কা করেছিলেন অনেকে। আর বাম ভোট যদি রামে যায় তাহলে তাদের জয়ের পক্ষে তা অনেকটাই কাটা হয়ে দাঁড়াতে পারে বলে চিন্তার ভাঁজ করেছিল শাসকদল তৃণমূলের নেতাদের কপালে। কিন্তু ভোট পরবর্তী সময় এবার হিসেব কষে বামেদের ভোট তাদের দিকেই আসবে বলে দাবি করতে শুরু করেছে তৃণমূল। যেমন, নদীয়ার তেহট্ট বিধানসভা। এখানে বামেদের ভোটেই তৃণমূল লিড পাবে বলে আত্মবিশ্বাসী শাসক দল।

প্রসঙ্গত, এই তেহট্ট বিধানসভায় মোট 13 টি গ্রাম পঞ্চায়েত রয়েছে। যার মধ্যে রয়েছে পাথরঘাটা 1, তেহট্ট, নাটনা রঘুনাথপুর, শ্যামনগর, বেতাই 1, বেতাই 2, ছিটকা, কানাইনগর, নারায়ানপুর 1 এবং নারায়ানপুর 2, নন্দনপুর ও দিঘলকান্দি গ্রাম পঞ্চায়েত। রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের একাংশের মতে, 2016 সালে এই বিধানসভায় কেন্দ্রে বামেরা দ্বিতীয় হলেও গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে বামেদের ভোটব্যাংকে ধ্বস নামতে শুরু করে। আর যার জেরে সেখানে দ্বিতীয় স্থান দখল করে নিয়েছে বিজেপি। তাহলে বাম ভোট কি তাদের ঝুলিতে থাকবে? নাকি তা ছিনিয়ে নেবে অন্য কোনো রাজনৈতিক দল?

এদিন এই প্রসঙ্গে নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক এক সিপিএম নেতা বলেন, “ভোট প্রচার ও ভোটের দিন থেকে শুরু করে মানুষের সারা দেখে বোঝা গিয়েছে ভোটব্যাঙ্ক আর আমাদের দিকে থাকবে না। এর মধ্যে একটা অংশ বিজেপির দিকে আর একটা অংশ তৃণমূলের দিকে যাবে।”


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

এদিকে বাম ভোট নিয়ে আশাবাদী তৃণমূল ও বিজেপি দুই শিবিরই‌। গেরুয়া শিবিরের দাবি, তাদের প্রার্থী কল্যান চৌবে তেহট্ট বিধানসভা থেকে কুড়ি হাজারের বেশি ভোট পাবেন। অন্যদিকে তেহট্ট থেকে তাদের প্রার্থী মহুয়া মৈত্র 25 থেকে 30 হাজার ভোটে জয়লাভ করবেন বলে দাবি তৃণমূলের। এদিন এই প্রসঙ্গে বিজেপি নেতা বিকাশ বিশ্বাস বলেন, “এই কেন্দ্রে সিপিএমের ভোট আমরাই পেয়েছি। তার সঙ্গে বিগত পঞ্চায়েতে ভোট দিতে না পারার রাগ অনেকের মধ্যে রয়েছে। তাই এই 2 ফ্যাক্টর মিলিয়ে আমরা এই কেন্দ্রে লিড পাব।”

অন্যদিকে নদীয়া জেলা তৃণমূল সভাপতি তথা তেহট্ট বিধানসভা তৃণমূল বিধায়ক গৌরীশঙ্কর দত্ত বলেন, “আমরা প্রথম থেকেই সিপিএম, কংগ্রেস ও বিজেপির বিরুদ্ধে লড়াই করে এসেছি। এই তিনটি দলের যে অশুভ আঁতাত আছে, তা সাধারন মানুষ বুঝে গিয়েছে। তাই মানুষ এবার আমাদেরকেই ভোট দিয়েছেন।”

অন্যদিকে তৃণমূল আর বিজেপি ভাবছে, বামেদের ভোট তাদের দিকে গিয়েছে। কিন্তু বামেদের ভোট বামেদের দিকেই রয়েছে বলে দাবি সিপিএমের এরিয়া কমিটির সম্পাদক সুবোধ বিশ্বাসের। সব মিলিয়ে এবার বাম ভোট কোন দিকে যায় তার দিকেই নজর সকলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!