এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > কোন ফ্যাক্টারে তৃণমূল প্রার্থী মানাস ভূঞাকে হারিয়ে জিততে চলেছেন দিলীপ ঘোষ ,জানালেন নিজে

কোন ফ্যাক্টারে তৃণমূল প্রার্থী মানাস ভূঞাকে হারিয়ে জিততে চলেছেন দিলীপ ঘোষ ,জানালেন নিজে



বহু চাপানউতোর পেরিয়ে হোলির দিন প্রকাশিত হল বিজেপির প্রথম দফার লোকসভা ভোটের প্রার্থী তালিকা। ২৮ টি লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী তালিকা প্রকাশিত হয়েছে। বহু প্রত্যাশিত ভাবে মেদিনীপুর লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থীপদে দেখা গিয়েছে রাজ্য বিজেপি সভাপতি দিলীপ ঘোষের নাম। বৃহস্পতিবার যখন বিজেপি প্রার্থী তালিকা প্রকাশিত হল তখন দিলীপবাবু ছিলেন খড়গপুরে।

শুক্রবার সকালে খড়গপুরে কিছু জায়গায় প্রচার করার পর বিকালে মেদিনীপুরের বিধাননগর এলাকাতে প্রচার চালান তিনি। পাশাপাশি দলীয় কর্মীদের নিয়ে সভাও করেন। কীভাবে দলীয় প্রচার কর্মসূচি চলবে তা নিয়েই আলোচনা হয় কর্মী সভায়। মেদিনীপুর কেন্দ্রে তৃণমূল কংগ্রেসের মানস ভুঁইঞার বিরুদ্ধে লড়াই করবেন তিনি। জানালেন, ‘২০১৬ সালে বিধানসভা নির্বাচনে লড়েছিলাম জেতার জন্য। জিতেছি। এবারও জেতার জন্য লড়াই করছি।’

প্রার্থীপদ ঘোষণার পর থেকেই যুদ্ধকালীন তৎপরতায় প্রচার কর্মসূচি শুরু করেছে বিজেপি। কত সমীকরণ মেনে প্রচার করলে তৃণমূল প্রার্থী মানস ভুঁইঞাকে লড়াইয়ের হারানো সম্ভব হবে সে নিয়ে কর্মীদের বেশ কিছু কৌশল বাতলে দিলেন তিনি। তাঁর বক্তব্য,পশ্চিমবঙ্গে কোনো গণতান্ত্রিক পরিবেশ নেই। দুর্নীতি এবং হিংসার রাজনীতি রমরমা এখানে।

দিলীপবাবু জানিয়েছেন,পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল সরকারের আমলে শিল্পের সার্বিক অবনতিকেই হাতিয়ার করে বিজেপির প্রচার কর্মসূচি সারার পরামর্শ দিয়েছে তিনি। পশ্চিমবঙ্গের মানুষ শান্তি চায়,শিল্প চায়। কিন্তু এ রাজ্যে সেসব কিছু হয় না,এখানে সব জায়গায় শুধু বোমা শিল্প গড়ে উঠেছে।- এই কথাগুলোকেই তৃণমূলের বিরুদ্ধে ব্যবহার করে প্রচার সারতে বলেছেন রাজ্য বিজেপি সুপ্রিমো।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

প্রার্থী তালিকা ঘোষণার পরে বেশি কয়েকটি জায়গায় বিক্ষোভ দেখিয়েছে বিজেপির নীচুতলার কর্মী সমর্থকরা। বিষয়টিকে হাল্কাভাবে নিয়ে দিলীপবাবু জানিয়েছেন,সমস্যা ২-৩ দিনের মধ্যেই মিটে যাবে। সব কয়টি আসনে জেতার জন্যে লড়াই শুরু করবেন নেতা-কর্মীরা। দল যাঁকে প্রার্থী করবে তাকে মেনে নিতে হবে।

গত বিধানসভা নির্বাচনে কংগ্রেস-সিপিএম জোটের প্রার্থী হিসাবে সবং আসন থেকে জেতার পর তৃণমূল কংগ্রেসে যোগ দিয়েছিলেন মানস ভুঁইয়া। বর্তমানে তিনি রাজ্যসভার সাংসদ। ইতিমধ্যে তাঁর দলীয় প্রচার শুরু হয়েছে বলেই জানালেন তিনি। আসন্ন নির্বাচনে মেদিনীপুর কেন্দ্রে তাঁর জয়ের ব্যাপারে অত্যন্ত আত্মবিশ্বাসী তিনি। ২০১৪ সালের লোকসভা নির্বাচনে এই কেন্দ্র থেকে ৫,৮১,৮৬০ ভোট পেয়ে ১,৮৬,৬৬৬ ভোটে জিতেছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের তারকা প্রার্থী সন্ধ্যা রায়। বিজেপি প্রার্থী প্রভাকর চক্রবর্তী পেয়েছিলেন ১,৮০,০৭১ ভোট। কাজেই লোকসভা নির্বাচনে বিজেপির জয়ের আশা ভালোই রয়েছে বলে মনে করছেন গেরুয়াশিবির কর্তারা।

অন্যদিকে,ঘাটাল আসনে তৃণমূলের তারকা প্রার্থী দেবের বিরুদ্ধে বিজেপির তরফ থেকে লড়াইয়ের ময়দানে নামানো হয়েছে প্রাক্তন পুলিশ সুপার ভারতী ঘোষকে। ঘাটালে কর্মীসভা করে ইতিমধ্যেই প্রচারের ঝড় তুলেছেন দেব। আগামী সোমবার এই কেন্দ্রেই কর্মীসভা করার কথা রয়েছে ভারতী ঘোষের। পূর্ব তথা পশ্চিম মেদিনীপুরকে বিজেপি বনাম তৃণমূলের সেয়ানে সেয়ানে লড়াই হবে বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!