এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > নদীয়া-২৪ পরগনা > তৃণমূল প্রার্থীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করতে চলছেন বিজেপি নেতা অর্জুন সিং , জেনে নিন বিস্তারিত

তৃণমূল প্রার্থীর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করতে চলছেন বিজেপি নেতা অর্জুন সিং , জেনে নিন বিস্তারিত



আগামী কাল শেষ দফা লোকসভা ভোটগ্রহণ হতে চলেছে। তার পর বাকি উপনির্বাচন। একে অপরকে সুযোগ পেলেই একে অপরকে বিঁধতে ছাড়ছে না তৃণমূল -বিজেপি দু দলই। গোটা রাজ্যের পাশাপাশি এবার নাম জড়ালো ভাটপাড়া নিয়েও। একদিকে ব্যারাকপুরের তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদী আর অন্যদিকে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেওয়া ব্যারাকপুরের বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিং এর। সামনেই ভাটপাড়া বিধানসভার কেন্দ্রের উপনির্বাচন। সেখানে তৃণমূলের তরফে প্রার্থী মদন মিত্র আর অপরদিকে বিজেপির হয়ে টিকিট পেয়েছেন অর্জুন সিং এর ছেলে পবন সিং। ফলে টক্কর হবে জোরদার তা বলাই বাহুল্য।

কিন্তু এদিন ভোটের ময়দানে নামার আগেই তৃণমূলের তরফ থেকে ভয়ানক অভিযোগ আনা হয়েছে বিজেপির বিরুদ্ধে, বলা ভালো অর্জুন সিং এর বিরুদ্ধে। এদিন তৃণমূল কংগ্রেস নেতা দীনেশ ত্রিবেদী, নির্মল ঘোষ, জ্যোতিপ্রিয় মল্লিক সহ উত্তর 24 পরগণা জেলার তৃণমূলের কয়েকজন নেতা জেলা নির্বাচনী আধিকারিক অন্তরা আচার্যর সঙ্গে দেখা করে অভিযোগ জানান যে, ভাটপাড়া উপনির্বাচনের জন্য জাল ভোটার কার্ড বানানো হচ্ছে। এদিন তিনি দাবি করেন যে, “অনেকে নির্বাচনে অনুপস্থিত থাকেন কিন্তু তাদের নামে ভুয়ো ভোটার পরিচয়পত্র বানানো হচ্ছে। আর এই নিয়ে আমাদের কাছে উপযুক্ত প্রমাণ রয়েছে। তাই আমরা নির্বাচন আধিকারিকদের কাছে এসেছি । যারা ভুয়ো ভোট দেবে, তাদের যেন গ্রেপ্তার করা হয় কেননা এখানে কোনও ভুয়ো ভোটের স্থান নেই।”

সাথেই তিনি দাবি করেন যে, প্রার্থী ছাড়া অন্য কাউকে বুথে ঢুকতে না দেওয়া হয়। নাম না করে অর্জুন সিংকে কটাক্ষ করে তিনি বলেন, “লোকসভায় যে বিজেপির প্রার্থী হয়েছিলেন, তাঁরও জানা দরকার তিনি ভাটপাড়ার বিধানসভার প্রার্থী নয় । তাই প্রার্থীর মতো তাঁর ব্যবহার করা উচিত নয়। ”

পাশাপাশি, সাংবাদিকদের প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, “আমরা চেয়েছিলাম নির্বাচনে প্রতিটি বুথে কেন্দ্রীয় বাহিনী, মাইক্রো অবজ়ারভাররা থাকুক । আমরা আজও এই দাবি জানালাম । লোকসভা ভোটে আমি তো নিজেই বলেছিলাম, আমার উপর একটি ক্যামেরা দিয়ে নজর রাখা হোক । আর একটি ক্যামেরা দিয়ে বিজেপি প্রার্থীর উপরও নজর রাখা হোক ।”

আর এই নিয়েই পাল্টা পতিক্রিয়া দিয়েছেন অর্জুন সিং। তৃণমূলের অভিযোগের প্রেক্ষিতে অর্জুন সিং বলেন, “আমি মানহানির মামলা করব।” সাথেই দীনেশ ত্রিবেদীর নাম করে কটাক্ষ করে বলেন যে, “দীনেশ ত্রিবেদীর রাজনৈতিক জ্ঞান একটু কম আছে। কর্পোরেটদের পার্টিতে যাওয়া আর রাজনীতি করার মধ্যে তফাৎ আছে। ওর বিরুদ্ধে আমি মামলা করব। এই দেশদ্রোহী কাজটা ওর এবং ওর দলের পক্ষেই সম্ভব। ওই দলটাই তো পুরোপুরি দেশদ্রোহী। উনি যদি সত্যিই এই অভিযোগ করে থাকেন তাহলে ওর বিরুদ্ধে মানহানির মামলা করব। কাউকে দেশদ্রোহীর আখ্যা দেওয়ার জন্য যেন তার জেল হয়।”

ফলে জোর রাজনৈতিক চাপানউতোর শুরু হয়েছে দুই দলের মধ্যে। তৃণমূলের তরফ থেকে দাবি করা হচ্ছে যে অর্জুন সিং যাই করুক জিতবেন মদন মিত্র। আর বিজেপির এই কাজের প্রতিবাদে যতদূর যাওয়া সম্ভব যাবে। এই অন্যায় কিছুতেই তারা মেনে নেবে না। অর্জুন সিং মামলা করলেও ধোপে টিকবে না।

অন্যদিকে অর্জুন অনুগামীদের দাবি যে তৃণমূল যে ভাবেই তাদের দাদাকে আটকাতে চাক না কেন তাতে কোনো কাজ হবে না। তাদের ভাইপো পাবেন সিং- এর ( অর্জুন সিং এর ছেলে)ই জিতবে। তবে এর জল এখন কতদূর গড়ায় তার জন্য অপেক্ষা করতে হবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!