এখন পড়ছেন
হোম > রাজনীতি > তৃণমূল > বড় ধাক্কা লাগতে চলেছে তৃণমূলে? শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ রাজ্যসভার হেভিওয়েট সাংসদ করতে চলেছেন পদত্যাগ?

বড় ধাক্কা লাগতে চলেছে তৃণমূলে? শুভেন্দু ঘনিষ্ঠ রাজ্যসভার হেভিওয়েট সাংসদ করতে চলেছেন পদত্যাগ?



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – শুভেন্দু অধিকারীর মন্ত্রিত্ব পদ ছাড়ার পর তাঁকে দলে রাখার ক্ষেত্রে বৈঠক করা হলেও ভবিষ্যতে তা কতটা ফলপ্রসূ হবে সেই নিয়েও সন্দেহ প্রকাশ করেছেন অনেক বিশেষজ্ঞরা। কারণ ইতিমধ্যেই শুভেন্দু অধিকারীর হোয়াটস অ্যাপ মেসেজ নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছে রাজনৈতিক মহলে। এমন পরিস্থিতিতে দলে শুভেন্দু অধিকারীর ঘনিষ্ঠ বেশকিছু নেতা মন্ত্রী রয়েছেন, যাঁরা শুভেন্দু অধিকারী দল ছাড়লে, তাঁদেরও দল ছাড়ার সম্ভাবনা প্রবল, সেটা আগেও বহু রাজনৈতিক বলেছিলেন।

এমন পরিস্থিতিতে দলে তাই যেখানে একদিকে দলে শুভেন্দু অধিকারী ঘনিষ্ঠ নেতা মন্ত্রীদের চিহ্নিতকরণ চলছিল বলে জানা গিয়েছিল, সেখানেই বহু প্রভাবশালী তৃণমূল নেতাদের আগে থেকেই পদ থেকে সরানোর প্রক্রিয়া শুরু হয়েছে বলেও তথ্য সূত্র জানা গিয়েছিল। তবে এরই মধ্যে তৃণমূলে আরো বড় ধাক্কা দিয়ে আরো এক সাংসদের দল ছাড়ার জল্পনা প্রবল হয়ে উঠেছে বলেই মনে করা হচ্ছে।

আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, সম্প্রতি অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায় ও প্রশান্ত কিশোরের ডাকা বৈঠকে মালদহ জেলা নেতৃত্বের প্রায় সবাই এলেও মৌসম বেনজির নুর ও সাবিত্রী মিত্র সেখানে উপস্থিত ছিলেন না বলেই জানা গেছে। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, শুভেন্দু অধিকারী মালদহ জেলার পর্যবেক্ষক ছিলেন। তাঁর হাত ধরেই মালদহ জেলায় তৃণমূল প্রভাব বিস্তার করতে শুরু করে।

সেই শুভেন্দু তৃণমূলের সঙ্গে দূরত্ব তৈরি করতেই অভিষেক ও পিকে সতর্ক হয়ে গিয়েছিলেন বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা। আর তাই মালদহ জেলা নেতৃত্বের সঙ্গে তাঁরা বৈঠক করেছিলেন বলেও অনুমান করা হয়। আর সেখানে প্রায় সবাই যোগ দিলেও জেলা সভানেত্রী মৌসম উপস্থিত ছিলেন না।


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

ফলে তখন থেকেই জল্পনা শুরু হয়। উল্লেখ্য, বর্তমানে তিনি মালদহ জেলা তৃণমূলের সভানেত্রী। গনিখান চৌধুরীর ভাগ্নী মৌসম বেনজির নুর তৃণমূলে আসার আগে কংগ্রেসের সাংসদ ছিলেন। সেইসঙ্গে রাহুল গান্ধীর ঘনিষ্ঠ হিসেবে পরিচিত তিনি জেলা কংগ্রেসের সভানেত্রীও ছিলেন। কিন্তু ২০১৯ লোকসভা নির্বাচনের আগে তিনি কংগ্রেস ছেড়ে তৃণমূলে যোগ দেন।

এরপর নবান্নে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে দেখা করে কার্যত শুভেন্দু অধিকারীর হাতে ধরেই তিনি তৃণমূলে নাম লেখান বলে জানা যায়। এরপর লোকসভা নির্বাচনে মালদহ উত্তর থেকে তিনি হেরে যান। সেইসময় তাঁকে হারিয়ে বিজেপির খগেন মুর্মু সাংসদ হন।

এরপর তৃণমূল তাঁকে জেলা সভাপতির আসনে বসায়। কিন্তু সম্প্রতি এখন তৃণমূলের সঙ্গে শুভেন্দুর ফাটল চওড়া হতেই মৌসম বেনজির নুরকে নিয়েও জল্পনা বাড়ছে বলেই জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। সেইসঙ্গে তিনিও তৃণমূল ছাড়তে পারেন বলে সোশ্যাল মিডিয়ায় জল্পনা শুরু হয়েছে বলেও জানা গেছে। তবে মৌসম বা তৃণমূলের তরফে এই ঘটনার সত্যতা স্বীকার করা হয়নি বলেই জানা গেছে।

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!