এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > এবার কি তৃণমূলের এই হেভিওয়েট মন্ত্রী কি বিজেপি-গামী? নতুন পদক্ষেপে জল্পনা চরমে, জানুন বিস্তারিত

এবার কি তৃণমূলের এই হেভিওয়েট মন্ত্রী কি বিজেপি-গামী? নতুন পদক্ষেপে জল্পনা চরমে, জানুন বিস্তারিত



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –অনেকদিন ধরেই জল্পনা চলছিল। ভয়াবহ দুর্যোগের পর কলকাতার বিভিন্ন গাছপালা নিয়ে রাস্তা অবরুদ্ধ হয়ে যাওয়ায় কার্যত বিদ্রোহী মনোভাব পোষণ করেছিলেন রাজ্যের মন্ত্রী সাধন পান্ডে। রাজ্যের মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিমের বিরুদ্ধে সোচ্চার হয়েছিলেন মানিকতলার এই তৃণমূল বিধায়ক। যার পরে তৃণমূলের অন্দরে আরও চাঞ্চল্য ছড়িয়ে পড়ে।

পরবর্তীতে সাধন পান্ডের দল বিরোধী মন্তব্যে কিছুটা অস্বস্তিতে পড়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেছিলেন, কলকাতার যে সমস্ত নেতারা দলের বাইরে গিয়ে মন্তব্য করছেন, তারা চাইলে চলে যেতে পারেন। অবশেষে কি এবার নেত্রী কথামত অন্য দলে পা বাড়াচ্ছেন রাজ্যের হেভিওয়েট মন্ত্রী সাধন পান্ডে?

সূত্রের খবর, পয়লা জুলাই বিধান চন্দ্র রায়ের জন্ম এবং মৃত্যু দিবস উপলক্ষে বিজেপির উত্তর কলকাতার সভাপতি শিবাজী সিংহ রায় এবং রাজ্যের মন্ত্রী সাধন পান্ডেকে একসাথে মাল্যদান করতে দেখা যায়। আর হঠাৎ করে বিজেপির সভাপতির সঙ্গে সাধন পান্ডের এই বিধান চন্দ্র রায়ের মূর্তিতে মাল্যদান ঘিরে রাজনৈতিক মহলে ছড়িয়ে পড়েছে জল্পনা।

ফেসবুকে আমাদের নতুন ঠিকানা, লেটেস্ট আপডেট পেতে আজই লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

যেখানে তৃণমূল-বিজেপি আদায়-কাঁচকলায় সম্পর্ক বিজেপির কোনো নেতার পাশে তৃণমূলের নেতাদের বসা কার্যত নিষেধ, সেখানে কিছুদিন আগেই দলের বিরুদ্ধে বিদ্রোহী হয়ে এবার বিজেপি সভাপতির সঙ্গে এক মঞ্চে কি করে উপস্থিত হলেন সাধন পান্ডে? জানা যায়, সাধন পান্ডে যে মঞ্চে উপস্থিত ছিলেন, সেখানে “ভারত মাতা কি জয়” স্লোগান উঠতেও দেখা যায়।

বিশেষজ্ঞরা বলছেন, কিছুদিন আগেই দলের অন্যতম শীর্ষ নেতা তথা মমতা বন্দোপাধ্যায়ের অত্যন্ত ঘনিষ্ঠ ফিরহাদ হাকিমের ব্যর্থতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছেন সাধন পান্ডে, তাতে শেষ পর্যন্ত দলের কুনজড়ে পড়ে গিয়েছিলেন তিনি। শেষ পর্যন্ত শোকজ হতেও দেখা যায় তাকে।কিন্তু এবার যেভাবে তিনি বিজেপির সভাপতির সঙ্গে এক মঞ্চ শেয়ার করলেন, তাতে তার বিজেপিতে যোগ দেওয়া শুধুই সময়ের অপেক্ষা বলেই মনে করছে রাজনৈতিক মহল।

আর তৃণমূলের হেভিওয়েট মন্ত্রী যদি সত্যি সত্যিই সেই রকম কোনো সিদ্ধান্ত নিয়ে ফেলেন, তাহলে কলকাতায় তৃনমূল চরম চাপে পড়তে চলেছে বলেই দাবি রাজনৈতিক পর্যবেক্ষকদের। আর বিজেপি সভাপতি সঙ্গে একসঙ্গে বিধানচন্দ্র রায়ের মূর্তিতে মালা দেওয়ার পর এবার পদ্মফুলের মালা কবে নিজের গলায় পড়ে নেন সাধন পান্ডে, তার দিকেই নজর থাকবে রাজনৈতিক বিশেষজ্ঞদের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!