এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > ফ্লেক্স-দেওয়াল লিখন এখন অতীত – তৃণমূল-বামফ্রন্ট-বিজেপি সকলেরই ভরসা এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার!

ফ্লেক্স-দেওয়াল লিখন এখন অতীত – তৃণমূল-বামফ্রন্ট-বিজেপি সকলেরই ভরসা এখন সোশ্যাল মিডিয়ায় প্রচার!



এতদিন যে কোনো নির্বাচনেই দেওয়াল লিখন কিংবা পোস্টারের উপর ভরসা করেই জোর প্রচারের পক্ষে সওয়াল করত বিভিন্ন রাজনৈতিক দলগুলো। কিন্তু মানুষ যত আধুনিক হচ্ছে ততই উন্নত হচ্ছে প্রযুক্তি। আর তাই নব্য যুগের এই নব্য প্রযুক্তিকে হাতিয়ার করে সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইটের মাধ্যমে সাধারণ মানুষের কাছে নিজেদের দলীয় প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার আবেদন জানাতে এবার সেই সোশ্যাল সাইটকেই মূল মাধ্যম করতে চলেছে রাজ্যের সমস্ত রাজনৈতিক দলগুলো।

যেমন, হুগলি জেলায় এখন এই সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমেই বেশি করে মানুষের কাছে পৌঁছে যেতে মরিয়া হয়ে উঠেছে শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস, বিরোধী দল বিজেপি এবং বামেরা। জানা গেছে, ফেসবুক, টুইটার এবং হোয়াটসঅ্যাপে তৈরি গ্রুপের মাধ্যমে নিজেদের দলের প্রার্থীকে পরিচয় করার পাশাপাশি সাধারণ মানুষের কাছে নিজেদের প্রার্থীকে যাতে তারা ভোট দেয় সেই ব্যাপারে আবেদন জানাচ্ছে বিভিন্ন রাজনৈতিক দল।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

অন্যদিকে তৃণমূলের সাইবার সেলের কর্মীরা বিগত 7 থেকে 8 বছর রাজ্যের উন্নয়নে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সরকার ঠিক কি কি কাজ করেছে সেই কথা তুলে ধরে ও কেন্দ্রের জনবিরোধী মোদী সরকারের বিভিন্ন জনবিরোধী নীতির কথা তুলে ধরে সাধারণ মানুষের কাছে আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে তাদের দলীয় প্রার্থীকে ভোট দেওয়ার আবেদন জানানো হচ্ছে।

অন্যদিকে এই জেলায় বিজেপিও নিজেদের আইটি সেল তৈরি করে প্রায় 70 জন কর্মীকে সোশ্যাল মিডিয়ার কাছে নামিয়ে দিয়েছে। এদিকে পিছিয়ে নেই বামেরাও। হুগলিতে প্রায় 30 জনের অ্যাকাউন্ট থেকে নিজেদের আদর্শ, নীতি এবং আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে কেন সাধারন মানুষ তাদেরকে সমর্থন করবেন তার কারণ সোশ্যাল মিডিয়ায় তুলে ধরছে কাস্তে হাতুড়ি শিবির। কেমন চলছে প্রচার?

এদিন এই প্রসঙ্গে হুগলি জেলা তৃণমূল সভাপতি তপন দাশগুপ্ত বলেন, “গতানুগতিক প্রচারের পাশাপাশি আমরা এবার সোশ্যাল মিডিয়ার মাধ্যমে প্রচারকে গুরুত্ব দিচ্ছি। এতে অল্প সময়ে, কম খরচে, কয়েক মিনিটের মধ্যে প্রচুর মানুষের কাছে নিজেদের আবেদন পৌঁছে দেওয়া যায়।” অন্যদিকে বর্তমান সময়ে সোশ্যাল মিডিয়া প্রচারের জন্য একটি অন্যতম গুরুত্বপূর্ণ মাধ্যম বলে জানান হুগলি জেলা বিজেপির সভাপতি সুবীর নাগ। সব মিলিয়ে এবার আসন্ন লোকসভা নির্বাচনে মাঠে ময়দানে প্রচারের পাশাপাশি সোশ্যাল মিডিয়াতেও গুরুত্ব শাসক-বিরোধী বিভিন্ন রাজনৈতিক দলের।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!