এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > অতি স্পর্শকাতর বুথ নিয়ে বিজেপি-তৃণমূল তরজা থামছেই না, শাসকদল আসরে নামাচ্ছে একঝাঁক বুদ্ধিজীবীকে

অতি স্পর্শকাতর বুথ নিয়ে বিজেপি-তৃণমূল তরজা থামছেই না, শাসকদল আসরে নামাচ্ছে একঝাঁক বুদ্ধিজীবীকে



লোকসভা ভোটের নির্ঘন্ট প্রকাশিত হওয়ার পর দেশের বিভিন্ন প্রান্তের রাজনৈতিক দলগুলো যখন প্রচার কর্মসূচিতে ব্যস্ত রয়েছে সেখানে পশ্চিমবঙ্গে অতি স্পর্শকাতর বুথ নিয়ে তরজাই থামছে না বিজেপি বনাম তৃণমূলের। গত বুধবার রাজ্যের প্রত্যেকটি বুথকে অতি স্পর্শকাতর দাবী করে ভোট চলাকালীন রাজ্যের সুরক্ষা ব্যবস্থা আরো কড়া করার আর্জি নিয়ে নির্বাচন কমিশনের দ্বারস্থ হয় বিজেপির রাজ্য এবং কেন্দ্রীয় প্রতিনিধিরা।

এই দাবীতে সাড়া দিয়ে ভোট পূর্বকালীন রাজ্যের সার্বিক অবস্থা খতিয়ে দেখতে বঙ্গ সফরে আসার সিদ্ধান্ত নেন ডেপুটি নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈন। অন্যদিকে,বিজেপির দাবীকে অযৌক্তিক বলে দাবী করে তৃণমূল। লোকসভা ভোটের পূর্বে এই ধরণের দাবী করায় গেরুয়াশিবিরের ব্যাপক সমালোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

শুধু তৃণমূল নেতৃত্ব নন,নাগরিক সমাজের পক্ষে অর্থনীতিবিদ অভিরূপ সরকার, কবি সুবোধ সরকার, শিক্ষাবিদ নৃসিংহপ্রসাদ ভাদুড়ি, চিত্রশিল্পী শুভাপ্রসন্ন, অভিনেতা অরিন্দম শীল, নাট্যকার দেবেশ রায়চৌধুরী ডেপুটি নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে দেখা করে দাবি করেন, রাজ্যে এমন কিছু হয়নি যে অতি স্পর্শকাতর বুথ ঘোষণা করতে হবে। বিজেপির এধরণের অভিযোগ যথেষ্ট অপমানজনক বলেই মনে করছেন তাঁরা। ভোটকে একটি ‘বৃহৎ গণতান্ত্রিক উৎসব’ বলে ঘোষণা করে তৃণমূলের তরফ থেকে দাবী করা হয়,পশ্চিমবঙ্গে কোনো ধর্মীয় ভেদাভেদের জায়গা নেই।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

নাগরিক সমাজের পাশাপাশি ডেপুটি নির্বাচন কমিশনার সুদীপ জৈনের সঙ্গে এদিন দেখা করেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। তিনিও বিজেপির ‘অতি স্পর্শকাতর’ বুথের দাবীকে অন্যায্য বলে উল্লেখ করে জানালেন,শুধুমাত্র পশ্চিমবঙ্গে সরকারকে অপমান করার জন্যে ভোটের আগে এরকম অভিযোগ করেছে বিজেপি। সমালোচনায় বিজেপিকে ‘উচ্ছিষ্টদের দল’ বলে কটাক্ষ করলেন মন্ত্রী।

রাজ্যের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরে বললেন,’রাজ্যে উন্নয়নের ধারা চলছে। শান্তি রয়েছে। কিন্তু ছলচাতুরি করছে বিজেপি। পঞ্চায়েত ভোট নিয়ে ওঠা প্রশ্নের বিরুদ্ধে আমরা সুপ্রিম কোর্টে তথ্য দিয়ে প্রমাণ দিয়েছি। অতি স্পর্শকাতর বুথের দাবি অন্যায্য। বাংলাকে অপমান করা হচ্ছে।’

আরো জানালেন,বিজেপির এই অতি স্পর্শকাতর বুথের জবাব বাংলার মানুষ ভোটবাক্সে দেবে। পার্থ বাবুর পাশাপাশি তৃণমূলের প্রতিনিধিদলে ছিলেন দলের রাজ্য সভাপতি সুব্রত বক্সি ও মন্ত্রী তাপস রায়। তাঁরাও একইভাবে বিজেপি’র দাবিকে নশ্যাৎ করে দেন। প্রসঙ্গত,বিজেপির দাবীকে আরো শক্ত করতে বিজেপি নেতা মুকুল রায়ের নেতৃত্বে একটি প্রতিনিধি দল দেখা করে ডেপুটি নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে।

বিরোধী নেত্রী হিসাবে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের পশ্চিমবঙ্গের গণতন্ত্র রক্ষা ও সুষ্ঠু নির্বাচনের জন্য বলা কথাই শাসক মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের বিরুদ্ধে ব্যবহার করল বিজেপি। বললেন,’পঞ্চায়েত ভোটের কাগজ সব তুলে দেওয়া হয়েছে। এই রাজ্য সব সীমা পার করে গিয়েছে। বাংলার পুলিসের উপর বাংলার মানুষেরই বিশ্বাস নেই। কমিশন নিজের দায়িত্বে ভোট করুক। পুলিসের উপরে যেন দায়িত্ব দেওয়া না হয়।’ বিজেপি’র প্রতিনিধি দলে মুকুল রায় ছাড়াও জয়প্রকাশ মজুমদার, প্রভাকর তেওয়ারি, শিশির বাজোরিয়া উপস্থিত ছিলেন।

এদিকে কংগ্রেসের একটি প্রতিনিধিদলও ডেপুটি নির্বাচন কমিশনারের সঙ্গে দেখা করেন। কংগ্রেস নেতা প্রদীপ ভট্টাচার্য জানিয়েছেন,রাজ্যের বর্তমান আতঙ্কগ্রস্ত পরিস্থিতির কথাই নির্বাচন কমিশনকে জানানো হয়েছে। কংগ্রেসও রাজ্যের পুলিশ,গুণ্ডা নিয়ে ভোট করানোর বিরুদ্ধে সরব হয়ে রাজ্যের ৭৯ টি বুথকে স্পর্শকাতর বুথ হিসাবে ঘোষণা করার দাবীর স্বপক্ষে কথা বলে।

সিপিএম নেডা রবীন দেবও ডেপুটি নির্বাচন কমিশনের সঙ্গে দেখা করে অবাধ এবং সুষ্ঠু নির্বাচনের স্বার্থে সিভিক ভলেন্টিয়ারের ভোটে কড়া পাহাড়া দেওয়ার দাবী করেন। এছাড়া কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সঠিকভাবে ব্যবহার করার দাবীও জানান। বৈঠকের পর নির্বাচন কমিশনের পক্ষ থেকে বলা হয়েছে,সুষ্ঠুভাবে ভোট করার প্রয়োজনে কমিশনের নির্দেশিক সকলকে মানতে হবে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!