এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > বহিরাগত ইস্যুতে তৃণমূলকে দিলীপ চেপে ধরতেই কল্যাণ জানালেন বিজেপির বিভাজনের রাজনীতির কথা

বহিরাগত ইস্যুতে তৃণমূলকে দিলীপ চেপে ধরতেই কল্যাণ জানালেন বিজেপির বিভাজনের রাজনীতির কথা



আপনাদের সুবিধার্থে খবরের শেষে বিধানসভা ২০২১ উপলক্ষে আমাদের করা সর্বশেষ সমীক্ষার প্রতিটির লিঙ্ক দেওয়া আছে।

আপনার মতামত জানান -

প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট –

বিজেপি যখন বাংলার মানুষের মন জয় করতে উদ্যত হয়েছে, ঠিক তখনই বাঙালি-অবাঙালি বিভাজন করার অভিযোগ উঠেছে বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে। এদিন একটি বিস্ফোরক মন্তব্য করেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি। যেখানে তিনি জানিয়ে দেন, বাংলার উন্নয়নে বাঙ্গালীদের থেকে অবাঙালিদের ভূমিকা সবথেকে বেশি। স্বাভাবিক ভাবেই দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্যের পরই রীতিমত ময়দানে নেমে পড়েছে তৃণমূল কংগ্রেস ও বিজেপি বিরোধী দলগুলো। প্রত্যেকেরই দাবি, যেখানে প্রধানমন্ত্রী থেকে শুরু করে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী বাংলার প্রতি দরদ দেখাচ্ছেন, সেখানে দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্য থেকেই স্পষ্ট, বিজেপি কতটা বাংলা-বিদ্বেষী।

ইতিমধ্যেই দিলীপ ঘোষের এহেন বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে কড়া ভাষায় নিজেদের প্রতিক্রিয়া জানিয়েছে তৃণমূল কংগ্রেস। এদিন এই প্রসঙ্গে দিলীপ ঘোষকে কটাক্ষ করেছেন তৃণমূল সাংসদ কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি বলেন, “বাংলায় যারা থাকবে তারাই বাঙালি। বিভাজনের রাজনীতি করছে বিজেপি। তবে এটা বেশিদিন চলবে না। বাইরে থেকে এসে যারা রাজ্যে প্রচার চালাচ্ছে, তারাই আসলে বহিরাগত।”


দেশে যে কোনো দিন ব্যান হয়ে যেতে পারে হোয়াটস্যাপ। তাই এখন থেকে আমরা শুধুমাত্র টেলিগ্রাম ও সিগন্যাল অ্যাপে। প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার নিউজ নিয়মিতভাবে পেতে যোগ দিন –

টেলিগ্রাম গ্রূপটাচ করুন এখানে

সিগন্যাল গ্রূপটাচ করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, কিছুদিন আগেই বিজেপি কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের পক্ষ থেকে বাংলার জন্য সর্বভারতীয় ক্ষেত্রে 5 বিজেপি নেতাকে দায়িত্ব দেওয়া হয়েছে। আর তারপর থেকেই তৃনমূল কংগ্রেসের পক্ষ থেকে প্রশ্ন তোলা হয়েছে, বিজেপি বাংলা দখল করার জন্য বাইরে থেকে লোক আছে। প্রত্যেকের বহিরাগত।

স্বাভাবিকভাবেই এই বহিরাগত ইস্যু নিয়ে এতদিন টালমাটাল হয়ে পড়েছিল রাজ্য রাজনীতি। আর তার মাঝেই এবার কেন্দ্রীয় নেতৃত্বের অস্বস্তি বাড়িয়ে দিয়ে বাংলা ও অবাঙালি বিভাজনের রাজনীতির কথা তুলে ধরার অভিযোগ উঠল বিজেপি রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষের বিরুদ্ধে। যেখানে দিলীপ ঘোষের এই ধরনের মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তৃণমূল কংগ্রেস বিজেপি বিরোধিতার নতুন অস্ত্র হাতে পেয়ে গেল বলেই মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

এদিন দিলীপ ঘোষের এই মন্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে তাকে কড়া ভাষায় আক্রমণ করেছে মার্কসবাদী কমিউনিস্ট পার্টিও। এদিন এই প্রসঙ্গে সিপিএম নেতা শমীক লাহিড়ী বলেন, “বিভাজনের রাজনীতিতে মেতেছে বিজেপি। জাতি-ধর্ম ভাঙ্গার ভিত্তিতে মানুষের মধ্যে বিভেদ তৈরি করছে গেরুয়া শিবির। কৃষকদের অধিকার, চাকরি এসব নিয়ে তাদের মুখে কোনো কথা নেই। কেবল ভেদাভেদের রাজনীতি করে চলেছে তারা।”

প্রসঙ্গত, কিছুদিন আগেই প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদী বাংলার শারদোৎসবের উদ্বোধন করে সেখানে বাংলা প্রীতির কথা তুলে ধরেছিলেন। যা নিয়ে ব্যাপক চাঞ্চল্যের সৃষ্টি হয়। অর্থাৎ বাংলার বিধানসভা নির্বাচনের আগে বিজেপি বাঙ্গালীদের মন পেতে এই ধরনের উদ্যোগ নিতে শুরু করেছিল। কিন্তু তার মাঝেই হঠাৎ করে দিলীপ ঘোষের এই ধরনের বিতর্কিত মন্তব্য বিজেপিকে অনেকটাই চাপে ফেলে দিল। যার জেরে তৃণমূল সহ অন্যান্য বিজেপি বিরোধী রাজনৈতিক দলগুলো এবার বিজেপির বিরুদ্ধে ময়দানে নামতে শুরু করবে বলেই দাবি বিশেষজ্ঞদের। সব মিলিয়ে গোটা পরিস্থিতি কোথায় গিয়ে দাঁড়ায়, সেদিকেই নজর থাকবে সকলের।

 

একনজরে দেখে নিন আমাদের সর্বশেষ বিধানসভা ২০২১ ওপিনিয়ন পোল –

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – দ্বিতীয় পর্ব – 

# মুর্শিদাবাদ জেলার ওপিনিয়ন পোল – প্রথম পর্ব – 

# মালদহ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# দক্ষিণ দিনাজপুর জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# উত্তর দিনাজপুরে জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# জলপাইগুড়ি ও কালিম্পঙ জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# আলিপুরদুয়ার ও দার্জিলিং জেলার ওপিনিয়ন পোল –

# কুচবিহার জেলার ওপিনিয়ন পোল –

আপনার মতামত জানান -
আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!