এখন পড়ছেন
হোম > জাতীয় > আসামে তৃণমূলের প্রতিনিধিদলকে আটকানো প্রসঙ্গে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানালেন দিলীপ ঘোষ

আসামে তৃণমূলের প্রতিনিধিদলকে আটকানো প্রসঙ্গে তীব্র প্রতিক্রিয়া জানালেন দিলীপ ঘোষ



অসমে তৃণমূলের প্রতিনিধি দলকে আটকানো নিয়ে মুখ খুললেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। সর্বভারতীয় সংবাদ মাধ্যমকে দেওয়া তাঁর সাক্ষাতকারে দিলীপ বাবু তৃনমূলকে অসমে ‘অনভিপ্রেত’ বলে আখ্যা দেন।

জাতীয় নাগরিকপঞ্জির খসড়া তালিকা প্রকাশের পর থেকেই তৃণমূল এর বিরুদ্ধে সরব হয়েছে। দিল্লীতে স্বরাস্ট্রমন্ত্রী রাজনাথ সিং এর কাছেও এই বিষয়ে অভিযোগ করেন মমতা ব্যানার্জি। তৃণমূলের অভিযোগ, অনুপ্রবেশকারীর নাম দিয়ে অসম থেকে বাঙালিদের তাড়ানোর ষড়যন্ত্র করছে বিজেপি। এই ইস্যুতেই তৃণমূলের এক প্রতিনিধি দল অসম রওনা দিয়েছিল এবং অভিযোগ অসম বিমানবন্দরেই তাঁদের আটকে দেওয়া হয়।

বৃহস্পতিবার বেলা ১.৩০ মিনিট নাগাদ তৃণমূলের প্রতিনিধিরা দিল্লি থেকে বিমানে শিলচর বিমানবন্দরে পৌঁছন। প্রতিনিধি দলের নেতৃত্বে ছিলেন বিজেপির রাজ্যসভার মুখ্য সচেতক সুখেন্দুশেখর রায়। এছাড়া দলে ছিলেন রাজ্যসভার সাংসদ নাদিমুল হক, লোকসভার সাংসদ কাকলি ঘোষ দস্তিদার, রত্না দে নাগ, মমতা ঠাকুর ও অর্পিতা ঘোষ। ছিলেন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম ও বিধায়ক মহুয়া মিত্র। অভিযোগ, বিমানবন্দরে পৌঁছতেই তৃণমূলের প্রতিনিধিদের আটকায় পুলিস। তাঁদের শারীরিক হেনস্থা করা হয় বলেও অভিযোগ। ১৪৪ ধারার কারণ দর্শিয়ে তাঁদের বিমানবন্দরের বাইরেও বেরোতে দেওয়া হয়নি।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

——————————————————————————————-

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে।

এই নিয়ে তৃণমূল অভিযোগ করে যে বিজেপি তাঁদের ওপর দমননীতি প্রয়োগ করছে যদিও এই অভিযোগ সম্পূর্ণ উড়িয়ে দিয়ে দিলীপ ঘোষ পাল্টা অভিযোগ করেন যে যখন বসিরহাটে দাঙ্গার সময় সাংসদ রূপা গঙ্গোপাধ্যায়কে ঢুকতে দেওয়া হয়নি। রাজ্যের বিধায়ক হলেও ধূলাগড়ে ঢুকতে দেওয়া হয়নি তাঁকে। তখন তৃণমূলের গণতন্ত্রের দাবী কোথায় ছিল?

অসমের অনুকরণে পশ্চিমবঙ্গে নাগরিক পঞ্জি চালুর দাবিতে বৃহস্পতিবার দক্ষিণ কলকাতার দেশপ্রিয় পার্ক থেকে হাজরা মোড় পর্যন্ত মিছিল করে বিজেপি। বিজেপির যুব ও মহিলা মোর্চা আয়োজিত এই কর্মসূচিতে মহিলা মোর্চার নেত্রী লকেট চট্টোপাধ্যায় জোর গলায় জানান ক্ষমতায় এলেই বাংলাতেও হবে নাগরিক পঞ্জিকরন। অনুপ্রবেশকারীদের তাড়াতে বদ্ধপরিকর বিজেপি।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!