এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উলটপুরাণ! বিক্ষুব্ধদের দাপটে পঞ্চায়েতে বেশ কিছু আসনে প্রার্থী দিতে পারল না শাসকদল

উলটপুরাণ! বিক্ষুব্ধদের দাপটে পঞ্চায়েতে বেশ কিছু আসনে প্রার্থী দিতে পারল না শাসকদল



মুর্শিদাবাদ জেলায় গ্রাম পঞ্চায়েতের পাঁচটি আসনে দলীয় প্রতীক চিহ্নে প্রার্থী মনোনোয়ন করতে পারলো না রাজ্যের শাসক দল তৃণমূল কংগ্রেস। এটা সম্ভব হলো কেবলমাত্র বিক্ষুব্ধদের দাপটে। জানা গিয়েছে আসনগুলিতে দলীয় কর্মীরাই নির্দল হিসেবে প্রতিদ্বন্দ্বীতা করছে। এমনকী, দলের জেলা সভাপতি সুব্রত সাহার বিধানসভা কেন্দ্র সাগরদিঘিতে এক নির্দল প্রার্থী বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় জয় লাভ করেছেন বলে জানা গেছে। তৃণমূল নেতৃত্ব যদিও বিক্ষুদ্ধ নির্দল প্রার্থীদের দাপটের কথা অস্বীকার করেছে।  তাঁদের দাবি, এটা তাঁদের রাজনৈতিক কৌশল। প্রসঙ্গত গত পঞ্চায়েত নির্বাচনে ঐ জেলায় বিশেষ সুবিধে করতে পারেনি শাসক দল।

আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

আর এবার হিসেবটা পুরো উলটে গিয়ে ঐ এলাকায় শাসক দলের দাপটে নাজেহাল। গ্রাম পঞ্চায়েতের ওই পাঁচটি আসনের মধ্যে তিনটিই নওদা ব্লকে রয়েছে। স্থানীয় সূত্রে জানা গিয়েছে, ব্লকের পাটিকাবাড়ি গ্রাম পঞ্চায়েতের ৪নম্বর আসনে আরএসপি এবং দু’জন নির্দল প্রার্থী রয়েছেন। চাঁদপুর গ্রাম পঞ্চায়েতের ৬নম্বর আসনে কংগ্রেস ও নির্দল প্রার্থী এবং ৭নম্বর আসনে কংগ্রেস, বিজেপি ও আরএসপির লড়াই হচ্ছে। নির্দল প্রার্থীরা এলাকায় তৃণমূল কর্মী হিসেবে পরিচিত। স্থানীয় এক তৃণমূল নেতা বললেন, ” দলীয় প্রতীক চিহ্নের জন্য দুই নির্দল প্রার্থীর পক্ষেই জোরদার দাবি দলের কাছে জানানো হয়। তাই দল সেখানে কাউকে প্রতীক দেয়নি। এখন নির্বাচনে যে নির্দল প্রার্থী জয়ী হবেন, তিনিই ‘হিরো’ হিসেবে বিবেচিত হবেন।” তৃণমূলের সাগরদিঘি ব্লক সভাপতি নুরজামান শেখ বললেন,” কোনও রাজনৈতিক দলের প্রার্থীকে সমর্থন করা হবে না বলে গ্রামবাসীরা জানান। তাঁরা একজোট হয়ে স্মৃতিকণাকে নির্দল হিসেবে ভোটে দাঁড় করান। তিনি বিনাযুদ্ধে জয়লাভ করেছেন। অবশ্য এখন তিনি আমাদের সঙ্গেই আছেন। কাজেই এখানে দলে বিক্ষুব্ধদের চাপ বলে কিছু নেই। বিষয়টি দলের জেলা সভাপতি জানেন।”

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!