এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > তৃণমূলে ৪২ আর বিজেপির ২২ এর মাঝে পরে নিজেদের ১২-এর হিসেবে বুঝে নিতে চায় বামেরা

তৃণমূলে ৪২ আর বিজেপির ২২ এর মাঝে পরে নিজেদের ১২-এর হিসেবে বুঝে নিতে চায় বামেরা



এ যেন নানা মুনীর নানা মত। কিছুদিন আগেই বাংলার লোকসভায় তাঁদের 42 টি আসনই দরকার বলে হুঙ্কার ছেড়েছেন তৃনমূল নেত্রী তথা মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। পিছিয়ে নেই বিজেপিও। দলের সর্বভারতীয় সভাপতি অমিত শাহের এই বাংলা থেকে টার্গেট 22 টি আসন। কিন্তু বিজেপি, তৃনমূল নিজেদের আসন সম্পর্কে বললেও কেন এই ব্যাপারে কোনোও সুর শোনা যাচ্ছে না বামদের গলায়?

সূত্রের খবর, বর্তমানে এই রাজ্য থেকে সিপিএমের দুজন সাংসদ রয়েছেন। আগামী লোকসভায় কেন্দ্র থেকে বিজেপিকে সরাতে এবং রাজ্যের শাসকদল তৃনমূলকে চাপে ফেলতে কংগ্রেসের সাথে জোট করার পক্ষে সায় দিয়েছে সিপিএমের রাজ্য নেতৃত্ব। আর এই তৃনমূল ও বিজেপির বিরুদ্ধের লড়াইয়ে তাঁদের ঝুলিতে এই রাজ্য থেকে 12 টি আসন আসতে পারে বলে মনে করছে কাস্তে হাতুড়ী শিবির।

জানা গেছে, এই ব্যাপারে 26 সেপ্টেম্বর দিল্লিতে পলিটব্যুরোর একটি বৈঠকও হবে। আর সেখানেই প্রাথমিক রিপোর্ট তৈরি হওয়ার পর আগামী 6 থেকে 8 অক্টোবরের মধ্যে কেন্দ্রীয় কমিটির বৈঠকে পেশ করা হবে রাজ্যভিত্তিক রিপোর্ট। তবে রাজ্যে কংগ্রেসের সাথে জোটে লড়লে কংগ্রেসেরই ঝুলিতে বেশি আসন আসবে বলে মনে করছেন বাম নেতারা। তাই এখন থেকেই অনেকে এব্যাপারে তীব্র আপত্তি তুলতে শুরু করেছেন।

একাংশের মতে, রাজ্যে যেভাবে দলবদল হচ্ছে তাতে কংগ্রেসের বর্তমান বিধায়করাও 2021 এর বিধানসভার আগে তৃনমূলে যোগ দেবেন। আর তাই যদি হয় তাহলে সেই কংগ্রেসের সাথে সমঝোতা করে রাজ্যসভার পর লোকসভাতেও এই রাজ্য থেকে বামদের শূন্য হাতেই ফিরতে হবে। তবে কংগ্রেসের সাথে জোট হলে আগামী লোকসভায় এই রাজ্য থেকে 12 টি আসন তাঁদের দখলে থাকবে বলে একপ্রকার নিশ্চিত বাম নেতারা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

এ প্রসঙ্গে এদিন দলের পলিটব্যুরোর এক সদস্য বলেন, “তৃনমূল ও বিজেপিকে এক ইঞ্চি জমি ছাড়া হবে না। বাংলার রাজনৈতিক পরিস্থিতিতে আগামী লোকসভায় তৃনমূল ও বিজেপির মোকাবিলায় 12 টির মত আসনে ধর্মনিরপেক্ষ শক্তি প্রধান প্রতিপক্ষ হয়ে উঠতে পারে।” তবে এইসবই এখন সময়ের অপেক্ষা। শেষ পর্যন্ত আগামী লোকসভায় কে শেষ হাসি হাসে তা দেখতে আরও বেশ কিছুদিন অপেক্ষা করতে হবে সকলকে।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!