এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > কলকাতা > একুশের লক্ষ্যে অমিত শাহ বাংলায় ঝাঁপিয়ে পড়তেই, পাল্টা স্ট্র্যাটেজি নিয়ে ময়দানে পিকে-তৃণমূল

একুশের লক্ষ্যে অমিত শাহ বাংলায় ঝাঁপিয়ে পড়তেই, পাল্টা স্ট্র্যাটেজি নিয়ে ময়দানে পিকে-তৃণমূল



লোকসভা ভোট মেটার পর বিজেপির বাড়বাড়ন্তে মাথায় হাত পরে যায় তৃণমূলের , মমতা অভিষেকের ম্যাজিকে কাজ হচ্ছে না এই কথা সামনে আসতেই তড়িঘড়ি ভোটগুরু প্রশান্ত কিশোরকে নামানো হয় ,দ্বায়িত্ব দেওয়া হয় দলের। তিনি আসার পর চেগে ওঠে দল , একের পর এক কর্মসূচিতে রাস্তায় নেমে নতুন করে দলকে তৃণমূল স্তর থেকে সারাইয়ের কাজ শুরু হয় ঘাসফুল শিবিরের। নেতা মন্ত্রীদের কালঘাম ছুটে যায় কর্মসূচির জেরে।

কোরোনার জেরে লকডাউন কিছুটা স্বস্তি দিয়েছিলো তৃণমূলের নেতা নেত্রীদের , কিন্তু না থেমে থাকলে হবে না , ২০২১ শের বিধানসভা নিয়ে বিজেপি আসরে নেমে পড়েছে। অমিত শাহ ঘোষণাও করে দিয়েছেন তাঁরা প্রস্তুত ,২০২১ এ বাংলাকে দখল করবেনই। এদিকে করোনা নিয়ে রাজ্য সরকারের বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ তুলেছিল বিরোধীরা – যেমন ,আক্রান্তের সংখ্যা লুকানো, মৃত্যুর সংখ্যা লুকানো, চিকিৎসা ব্যাবস্থায়অবাবস্থা। এইসবের চাপ কমতে না কমতে রাজ্যে হানা দিয়েছে এমফান। যার জেরে লন্ডভণ্ড হয়েছে বাংলা।

কিন্তু হাওয়া অফিস এই নিয়ে আগে থেকেই জোর সতর্ক করেছিল সাথেই প্রয়োজনীয় ব্যাবস্থা নিতেও আগাম জানিয়েছিল রাজ্যকে তখন রাজ্যও জানিয়েছিল তারা সমস্ত বিপর্যয়ের মোকাবিলা করতে প্রস্তুত। কিন্তু দিন গেছে যত প্রশাসনের ব্যার্থতা প্রকাশ পেয়েছে। জল, বিদ্যুতের এভাবে সাধাত্ৰন মানুষ মাঠে নেমে বিক্ষোভ দেখতে শুরু করেছে। বিরোধীদের পাশাপাশি দলের মন্ত্রীও প্রশাসন ও মেয়রের বিরুদ্ধে অভিযোগের আঙ্গুল তুলেছেন।জল্পনা ছড়িয়েছে, বিরোধীরা ইস্যু করেছে, আর এর ফলে যা হয়েছে তা হলো ব্যাপকভাবে দলের ভাবমূর্তি ব্যাপকভাবে ক্ষতি হয়েছে।

আর তাই কোনো দেরি না করে এবার ফের প্রশান্ত কিশোরের পরামর্শে ফের পথে নামতে চলেছে তৃণমূল। তবে সামাজিক সুরক্ষাবিধি উপেক্ষা করে সরাসরি পথে আপাতত নামছে না জানা যাচ্ছে আপাতত সাংবাদিক সম্মেলনের আয়োজন করে নয়া প্রচারের কৌশল নিয়েছে প্রশান্ত কিশোর আর তাই এবার ঝাঁপাচ্ছে তৃণমূল শিবির।

আমাদের নতুন ফেসবুক পেজ (Bloggers Park) লাইক ও ফলো করুন – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের টেলিগ্রাম গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের সিগন্যাল গ্রূপে জয়েন করতে – ক্লিক করুন এখানে



আপনার মতামত জানান -

সূত্রের খবর এবার থেকে একযোগে সমস্ত জেলা নেতৃত্ব সাংবাদিক বৈঠক করে জানাবেন, এই লকডাউন পর্বে তাঁরা কী করলেন মানুষের জন্য। আমফান ও লকডাউন এই জোড়া চাপ সামলে মানুষের জন্য কতটা কাজ করলো তৃণমূল সরকার তা তুলে ধরা , সাথেই জানানো তারাই কাজ করছে বাকিরা শুধু বিরোধিতা করছে।

জানা যাচ্ছে আগামী বুধবার রাজ্যের সব কটি জেলা কমিটির তরফে সাংবাদিক সম্মেলন করা হবে। এই সম্মেলনে রাজ্য তৃণমূলের প্রতিটি জেলা কমিটি যে তথ্য গুলো তুলে ধরবে তা হল –
১. লকডাউনে কত মানুষকে খাদ্যদ্রব্য দেওয়া হয়েছে।
২.রান্না করা খাবার দলীয় উদ্যোগে পেয়েছেন কত মানুষ।
৩.আমফন ঝরে দুর্গত মানুষজনকে দলের তরফে কী ভাবে সাহায্য করা হচ্ছে ।
৪.দলীয় উদ্যোগে গাছ কাটা, বাড়ি সাড়ানো হয়েছে কত মানুষের ।

রাজ্যের নানা বিষয়ে তৃণমূলের ব্যর্থতা নিয়ে সরব হয়েছে বিজেপি যার ফলে দলের ভাবমূর্তি ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে কিছুটা আর এবার সেই খাটো সারাতে ফের নয়া পদক্ষেপ নিলো ভোট গুরু। বিজেপি র টানা “অপপ্রচারের” জবাব দিতেই এবার ধাপে ধাপে পথে নামার পরামর্শ দিয়েছেন প্রশান্ত কিশোর। সব মিলিয়ে বাংলাতেও ধীরে ধীরে বিজেপির প্রচারের বিরুদ্ধে পাল্টা প্রচারের রূপরেখা তৈরি করা, কেন্দ্রের বঞ্চনা ও তৃণমূল দল ও রাজ্য সরকারের উন্নয়ন কর্মসূচি নিয়ে ঝাপাচ্ছে তৃণমূল । এখন দেখার কতটা সফল হয় রাজ্য সরকার।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!