এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > উত্তরবঙ্গ > শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত ইসলামপুর,চলল গুলি,মৃত্যু ছাত্রের,আজ বিজেপির বনধ

শিক্ষক নিয়োগকে কেন্দ্র করে উত্তপ্ত ইসলামপুর,চলল গুলি,মৃত্যু ছাত্রের,আজ বিজেপির বনধ



উত্তর দিনাজপুরের ইসলামপুর ব্লকের ছাত্র আন্দোলনকে ঘিরে অগ্নিগর্ভ পরিস্থিতির শিকার হল দাড়িভিট হাইস্কুল। বাংলা মাধ্যমের শিক্ষক নিয়োগের দাবী তুলে স্কুলের ছাত্ররা বিক্ষোভ করলে পুলিশের লাঠিচার্জে পরিস্থিতি উত্তপ্ত হয়ে ওঠে। একজন প্রাক্তন ছাত্রের মৃত্যুও হয়েছে পুলিশের গুলিতে। এছাড়া গুলিতে জখম হয়েছে দশম শ্রেণির আরো দুজন ছাত্র বিনোদ সরকার এবং মধু বর্মন। ছাত্রমৃত্যুর প্রতিবাদ আজ জেলা জুড়ে ১২ ঘন্টার বনধের ডাক দিয়েছে বিজেপি। এমনটাই জানালেন বিজেপির জেলা সম্পাদক শঙ্কর চক্রবর্তী। ওদিকে এসএফআই আগামীকাল অর্থাৎ শনিবার রাজ্যজুড়ে ছাত্র ধর্মঘটের ডাক দিয়েছে। শিক্ষক নিয়োগের দাবীর জন্য একটি ছাত্রের প্রাণ দেওয়ার ঘটনা প্রমাণ করে দিল রাজ্যের শিক্ষার ব্যবস্থার হাল। এমনটাই বললেন, বাম পরিষদীয় দলনেতা সুজন চক্রবর্তী।

দাড়িভিট স্কুলে বাংলা মাধ্যমে শিক্ষক কম থাকার দীর্ঘদিন ধরেই পড়াশুনোতে ব্যাঘাত ঘটছে। তাই বেশ কয়েকবার বাংলা মাধ্যমের শিক্ষক নিয়োগের দাবী জানানো হচ্ছিল। কর্তৃপক্ষ তাদের দাবী মেনে নেবে এমনটাই প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলো। কিন্তু এদিন প্রতিশ্রুতি ভঙ্গ করে বাংলার বদলে অন্য মাধ্যমের শিক্ষক নিয়োগ করতে গেলে ধৈর্যের বাঁধ ভাঙে পড়ুয়াদের। আন্দোলনে পথে নামেন ছাত্রছাত্রীরা। স্কুলের গেটেই তালা ঝুলিয়ে দেয় তারা। স্কুলের প্রধান তালা ভেঙে ভেতরে ঢোকার চেষ্টা করলে তাতে মদত দেয় ইসলামপুর থানার পুলিশ। বিক্ষোভকারীদের কোনো অনুরোধেই কর্ণপাত করেনি পুলিশ। এরপর পুলিশ তালা ভাঙতে গেলে ছাত্র-পুলিশে ধস্তাধস্তি শুরু হয়। উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়ে যখন শোনা যান পুলিশ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে ছাত্রদের মারধোর করছে। স্থানীয়রা পুলিশকে লক্ষ্য করে পাথর,ইট ছুঁড়তে শুরু করে। ভাঙচুর হয় স্কুলের আসবাব,দরজা,মটরবাইক। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ প্রথম কাঁদানে গ্যাস ছোঁড়ে। তাতেও পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে না এলে বাধ্য হয়ে গুলি চালাতে শুরু করে তারা। তিনজন ছাত্র গুলিবিদ্ধ হয়। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় স্কুলের প্রাক্তণ ছাত্র রাজেশ সরকারের (১৯)। আইআইটিতে পাঠরত ছিল সে। স্কুলের পাশেই বাড়ি তার। সংঘর্ষের জেরে আরো ১২ জন ছাত্রছাত্রী,শিক্ষক,স্থানীয় এবং পাঁচজন পুলিশ কর্মী জখন হন। আপাতত হাসপাতালে চিকিৎসাধীন রয়েছেন তাঁরা।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

মৃত রাজেশের বাবা নীলকমল সরকার তরফ থেকে জানা গিয়েছে,রাজেশ আইআইটিতে দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র ছিল। পুরানো স্কুলে গন্ডোগোল হচ্ছে শুনে এগিয়ে আসে সে। এইসময় ধস্তাধস্তির জেরে পীঠে গুলি লাগে তার। রাজেশকে আর বাঁচানো যায়নি। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথেই মৃত্যু হয় তাঁর। এ ব্যাপারে একটাও মন্তব্য করতে দেখা যায়নি স্কুলের প্রধান শিক্ষক অভিজিৎ কুন্ডুকে। স্কুলের পরিচালন কমিটির সম্পাদক নিশিকান্ত গণেশ জানিয়েছেন,পরিচালন কমিটির মিটিং-এ বসে পরবর্তী সিদ্ধান্ত নেবে। ওদিকে ইসলামপুরের অতিরিক্ত পুলিশ সুপার কার্তিক চন্দ্র মন্ডল ঘটনার রিপোর্ট নেওয়া হচ্ছে বলেই জানালেন।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!