এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > শিক্ষক নিয়োগে ক্ষোভ ও দুর্নীতি সামাল দিতে এবার শিক্ষা দপ্তরের নজরদারিতে নিয়োগপত্র বিলি

শিক্ষক নিয়োগে ক্ষোভ ও দুর্নীতি সামাল দিতে এবার শিক্ষা দপ্তরের নজরদারিতে নিয়োগপত্র বিলি



অবশেষে জট কাটল। সূত্রের খবর, রাজ্যের একাদশ ও দ্বাদশ শ্রেনীতে শিক্ষক নিয়োগের জন্য মধ্য শিক্ষা পর্ষদের কাছে সুপারিশ করা হলেও বেশ কিছুদিন চলে যাওয়ায় এবং শিক্ষকেরা নিয়োগপত্র না পাওয়ায় তীব্র ক্ষোভ দানা বাঁধছিল শিক্ষামহলে।

সম্প্রতি এই ব্যাপারে খোদ শিক্ষামন্ত্রী পার্থ চট্টোপাধ্যায়ের কাছেও একটি অভিযোগ পত্র জমা পড়ে। আর এরপরই গত 5 সেপ্টেম্বর এই বিষয় নিয়ে পর্ষদের সভাপতির সাথে কথা বলেন শিক্ষামন্ত্রী। কেন এই কাজে এত টালবাহানা সেই ব্যাপারে পর্ষদ সভাপতির কাছে ক্ষোভও প্রকাশ করেন তিনি।

জানা যায়, পর্ষদের উপ সচিবের জন্যই মূলত এই সমস্যার সৃষ্টি হয়েছে। কারন তিনি ছুটিতে থাকার জন্যই এই নিয়োগপত্র নিয়ে এত জটিলতা। কিন্তু এমন অজুহাত শোনার পাত্র নন শিক্ষামন্ত্রী। শীঘ্রই যে এই ব্যাপারে নিয়োগপত্র ছাড়তে হবে সেই সম্পর্কে পর্ষদকে বার্তাও দেন তিনি।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

শুধু তাই নয়, প্রথমে এই নিয়োগপত্র দেওয়ার ওখানে বিকাশ ভবনের একজন আধিকারিক থাকার কথা থাকলেও তা বর্তমানে দুজন করা হয়েছে। সূত্রের খবর, শুধু এই নিয়োগপত্র দেওয়া নিয়েই বিভ্রাট নয়, বোর্ডের ওয়েবসাইটে নিয়োগপত্র নিতে যাওয়ার সময় শুধু মাত্র বয়সের প্রমানপত্র হিসাবে জন্মের সার্টিফিকেট নিয়ে যেতে বলা হলেও পরে শিক্ষামন্ত্রীর কড়া হুশিয়ারিতে সেই সিদ্ধান্ত বদল করে সেখানে অ্যাডমিড কার্ডের কথাও বলা হয়েছে। সব মিলেয়ে এবার দুর্নীতি ও ক্ষোভ প্রশমিত করতে শিক্ষাদপ্তরের কড়া নজরদারিতে বিলি হচ্ছে নিয়োগপত্র।

 

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!