এখন পড়ছেন
হোম > অন্যান্য > OMG! উকিলের ফিজ দেওয়ার পয়সাও নেই অনিল আম্বানির? গয়না বিক্রি করে চালাতে হচ্ছে? জানুন বিস্তারে

OMG! উকিলের ফিজ দেওয়ার পয়সাও নেই অনিল আম্বানির? গয়না বিক্রি করে চালাতে হচ্ছে? জানুন বিস্তারে



প্রিয় বন্ধু মিডিয়া রিপোর্ট – জীবন চাকার মত চলে। কখনো সুখ কখনো দুঃখ। কখনো ভালো আবার কখনো খারাপ। তবে কথাটা কথার কথা বলে মনে হলেও বাস্তব জীবনেও যে এই কথার যথেষ্ট প্রাসঙ্গিকতা আছে সেকথা বুঝিয়ে দিয়েছেন খোদ অনিল আম্বানি। আর সেই নিয়ে শোরগোল পড়ে গেছে চারিদিকে। কারণ এক সময়ের বিশ্বের ধনীতম ব্যক্তির এহেন পরিস্থিতি স্বাভাবিক ভাবেই ভাবাচ্ছে সকলকে।

জানা গেছে, রিলায়েন্স কমিউনিকেশনের কর্ণধার অনিল আম্বানির যিনি কিনা একসময় বিশ্বের ষষ্ঠ ধনী ব্যক্তি ছিলেন, তিনিই কালের নিয়মে আজ দেউলিয়া হয়ে গেছেন। করোনা পরিস্থিতিতে যেখানে তাঁর সব কোম্পানি বন্ধ। সেখানেই বন্ধ হয়ে গেছে তাঁর সমস্ত রোজগারের পথও। শুধু তাই নয়, তাঁর অবস্থা এতটাই সঙ্গিন যে সামান্য উকিলের খরচ মেটাতেও নাকি তাঁকে নিজের গয়না বিক্রি করতে হচ্ছে। তবে শুনে নিশ্চয়ই বিশ্বাস হচ্ছে না। তাহলে জেনে রাখুন, সম্প্রতি ব্রিটেনের এক আদালতে এমনটাই জানিয়েছেন স্বয়ং অনিল আম্বানির ভাই, মুকেশ আম্বানি। তাহলে নিশ্চয়ই ঘটনার সত্যতা নিয়ে সন্দেহ থাকবে না।


WhatsApp-এ প্রিয় বন্ধু মিডিয়ার খবর পেতে – ক্লিক করুন এখানে

আমাদের অন্যান্য সোশ্যাল মিডিয়া গ্রূপের লিঙ্ক – টেলিগ্রামফেসবুক গ্রূপ, ট্যুইটার, ইউটিউব, ফেসবুক পেজ

আমাদের Subscribe করতে নীচের বেল আইকনে ক্লিক করে ‘Allow‘ করুন।

এবার থেকে আমাদের খবর পড়ুন DailyHunt-এও। এই লিঙ্কে ক্লিক করুন ও ‘Follow‘ করুন।



আপনার মতামত জানান -

জানা গেছে, চিনের রাষ্ট্রায়ত্ত্ব ব্যাংক, চায়না ডেভেলপমেন্ট ব্যাংক, ইন্ডাস্ট্রিয়াল এন্ড কমার্সিয়াল ব্যাংক অব চায়না এবং এক্সিম ব্যাংক অব চায়না দাবি করেছে, আম্বানির সংস্থাকে তারা ঋণ বাবদ কয়েক হাজার কোটি টাকা দিয়েছিল। তবে সেই ঋণ নাকি অনিল আম্বানি নিয়েছিল সম্পূর্ণ ব্যক্তিগত গ্যারান্টিতে। ব্যবসায় মুনাফা থেকে তিনি তা শোধ দেবেন বলেও জানিয়েছিলেন। কিন্তু, পরবর্তীকালে আম্বানির ব্যবসায় ক্ষতি হতে থাকায় এই ব্যাংকগুলির ঋণ তিনি মেটাতে পারেননি। এরপর একরকম বাধ্য হয়েই ব্যাংকগুলি ব্রিটেন এবং ভারতের আদালতে অনিল আম্বানির বিরুদ্ধে মামলা করে বলে জানা যায়।

পরবর্তীকালে মামলায় ব্রিটেনের সেই আদালত আম্বানিকে চিনের তিনটি ব্যাংকের প্রায় ৫ হাজার ৪৪৮ কোটি টাকা ঋণ শোধ করার নির্দেশ দেয়। কিন্তু অনিল আম্বানির তরফ থেকে জানানো হয় যে, এই মুহূর্তে তিনি ব্যাংকগুলির ঋণ পরিশোধ করতে পারছেন না। আর সেই কথা শুনেই চোখ কপালে ওঠে আদালতের। জানা গেছে, আদালতে অনিল আম্বানি নাকি জানিয়েছেন, এই মুহূর্তে তাঁর তেমন উল্লেখযোগ্য কোনও সম্পত্তিই নেই। একটিমাত্র গাড়ি আছে। জীবনধারণের জন্যও স্ত্রী-সন্তানের উপর নির্ভর করতে হয় তাঁকে। শুধু তাই নয়, একেবারে একজন সাধারণ মানুষের মতোই নাকি জীবনযাপন করেন তিনি।

অনিল আম্বানিকে আদালত তাঁর সব সম্পত্তির হিসেবের একটা হলফনামা জমা দিতে বলেছিল। সেই সময় আদালতে তিনি জানান, তাঁর জীবনযাত্রা খুবই সাধারণ মানের। তাঁর খরচ স্ত্রী এবং পরিবার বহন করে। এমনকি তাঁর আইনি খরচও নাকি গয়না বিক্রি করেই শোধ করছেন তিনি। এরপর জানা যায় তিনি গয়না বিক্রি করে নাকি ৯ কোটি ৯০ লক্ষ টাকা পেয়েছিলেন। যা বর্তমানে শেষ। এখন আরও খরচ করতে হলে যৎসামান্য যা সম্পত্তি আছে, সেটাও বেচে দিতে হবে তাঁকে। এরকম পরিস্থিতিতে তাই তাঁর কাছে এখন টাকা চাওয়া মানে পরিহাস।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!