এখন পড়ছেন
হোম > রাজ্য > মেদিনীপুর > শুভেন্দু-গড়ে তৃণমূল নেতা-কর্মীকে অপহরণ করে খুনের চেষ্টা, বাড়ছে উত্তেজনা

শুভেন্দু-গড়ে তৃণমূল নেতা-কর্মীকে অপহরণ করে খুনের চেষ্টা, বাড়ছে উত্তেজনা



শাসকদল হয়েও রক্ষে নেই। একের পর এক তৃনমূল কর্মী খুনে বর্তমানে উত্তপ্ত পরিস্থিতি ভগবানপুর 1 ব্লকের মহম্মদপুর এলাকায়। প্রসঙ্গত উল্লেখ্য, বেশ ক মাস আগে এই মহম্মদপুরের উপপ্রধান নান্টু প্রধানকে খুন করা হয়। এবার সেই নান্টু প্রধানেরই দুই ঘনিষ্টের ওপর নেমে এল দুস্কৃতীদের খাড়া।

সূত্রের খবর, গত মঙ্গলবার এই মহম্মদপুরের বাসিন্দা দুই তৃনমূল নেতা সুদর্শন গিরি এবং তাপস দলপতি নিজেদের কাজে যাওয়ার সময় হঠাৎই কিছু দুস্কৃতী তাঁদের দুজনকে তুলে নিয়ে যাওয়ার চেষ্টা করলে তাপস দলপতি কোনোরকমে পালিয়ে আসেন। কিন্তু শেষরক্ষা হয়নি সুদর্শন গিরির।

অভিযোগ, এই সুদর্শন গিরিকে একটি ধারালো অস্ত্র দিয়ে কোপানো হয়। আর এরপরই সেই দুস্কৃতীদের দেখতে পেয়ে শাসকদলের কর্মীরা জড়ো হলে অভিযুক্তরা কোনোরকমে চম্পট দেয়। এদিকে এই ঘটনায় জখম সুদর্শন গিরিকে ভগবানপুর গ্রামীন হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। পাশাপাশি আক্রান্তের পরিবারের লোকজনের তরফে একটি অভিযোগও দায়ের করা হয়েছে ভগবানপুর থানা এদিকে এই ঘটনায় তৃনমূল এবং সিপিএমের মধ্যে শুরু হয়েছে রাজনৈতিক তরজাও।

ফেসবুকের কিছু টেকনিকাল প্রবলেমের জন্য সব খবর আপনাদের কাছে পৌঁছেছে না। তাই আরো খবর পেতে চোখ রাখুন প্রিয়বন্ধু মিডিয়া-তে

এবার থেকে প্রিয় বন্ধুর খবর পড়া আরো সহজ, আমাদের সব খবর সারাদিন হাতের মুঠোয় পেতে যোগ দিন আমাদের হোয়াটস্যাপ গ্রূপে – ক্লিক করুন এই লিঙ্কে

দলীয় কর্মী খুন হওয়ায় সিপিএমের বিরুদ্ধে তোপ দেগে তৃনমূলের ব্লক সভাপতি মদনমোহন পাত্র বলেন, “এই বুথে সিপিএম জয়ী হয়েছে। তাই ক্ষমতা দখলে মরিয়া হয়ে আমাদের কর্মীদের ওরা খুন করেছে।” তবে এই ঘটনায় সিপিএম যোগের কথা সম্পূর্নভাবে উড়িয়ে দিয়ে দলের ভগবানপুর এরিয়া কমিটির সম্পাদক সুব্রত মহাপাত্র বলেন, “পারিবারিক মারধর এবং তৃনমূলের গোষ্টীদ্বন্দ্বকে রাজনৈতিক রং দেওয়ার চেষ্টা চলছে। এর সঙ্গে সিপিএম কোনোওভাবেই জড়িত নয়।” সব মিলিয়ে খোদ পরিবহন মন্ত্রী শুভেন্দু অধিকারীর গড়ে একের পর এক শাসক কর্মী আক্রান্ত হওয়ায় তীব্র চাঞ্চল্য এলাকায়।

আপনার মতামত জানান -

Top
error: Content is protected !!